default-image

বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের আয়োজনে শুরু হয়েছে বাংলা গানের অনুষ্ঠান ‘সঙ্গে থেকো সংগীত’। ইতিমধ্যে প্রচারিত অনুষ্ঠানের ৯টি পর্বে সংগীত পরিবেশন করেছেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বেশ কয়েকজন শিল্পী। সংগীতের নমুনা ভিডিও পাঠিয়ে যেকোনো অঞ্চলের শিল্পী যোগ দিতে পারবেন এ অনুষ্ঠানে।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিল্পীদের গান নিজেদের ইউটিউব চ্যানেলের অনুষ্ঠান ‘সঙ্গে থেকো সংগীত’–এ প্রচার করছে বেঙ্গল ফাউন্ডেশন। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার বাংলাদেশের সময় রাত ৯টায় থাকছে অনুষ্ঠানের ১০ম পর্ব। এতে গান করবেন কবিতা রায় ও মো. শাহীনুর ইসলাম। সঙ্গে থেকো সংগীত অনুষ্ঠানের প্রতি পর্বে দুজন শিল্পী তিনটি গান বা বাজনা পরিবেশন করেন। এ পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, নীলফামারী, কুষ্টিয়া, সুনামগঞ্জ, ঢাকা, সিলেট, খুলনা, জয়পুরহাট, রংপুর, ফরিদপুর, কুড়িগ্রামসহ বিভিন্ন জেলার ১৮ জন শিল্পীর গান ও বাজনা উপস্থাপন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
default-image

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ধারাবাহিকভাবে অনলাইনে আয়োজিত হয়ে আসছে গানের অনুষ্ঠান সঙ্গে থেকো সংগীত। বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের ইউটিউব চ্যানেলে সম্প্রচারিত এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিল্পীদের পরিবেশনায় মূলধারার মানসম্পন্ন কণ্ঠসংগীত ও যন্ত্রসংগীত, বিশেষ করে লোকগান, উপস্থাপিত হয়ে আসছে। মহামারির কারণে একদিকে যেমন সামনাসামনি বৈঠকি গান উপভোগ করার সুযোগ কমেছে, অন্যদিকে ডিজিটাল মাধ্যমে যোগাযোগের নতুন সূত্রও তৈরি হয়েছে। বেঁধে দেওয়া নিয়ম মেনে দেশের নানা অঞ্চল থেকে শিল্পীরা সহজেই বাড়ি থেকে গান রেকর্ড করে পাঠাচ্ছেন যা, সঙ্গে থেকো সংগীত অনুষ্ঠানে সম্প্রচার করা হচ্ছে। অংশগ্রহণে আগ্রহী শিল্পীরা সংগত ছাড়া খালি গলায় গান বা বাজনার দু-তিন মিনিটের নমুনার ভিডিও হোয়াটসঅ্যাপ করে পাঠাচ্ছেন ০১৭ ১১৮১ ৭৭৪৯ বা ০১৮ ১৯২৬ ২০৯৮ নম্বরে। এ নিয়ে বিস্তারিত জানা যাবে info@bengalfoundation. org ঠিকানায় ই–মেইল করে বা বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের ফেসবুক পেজে

default-image

অনুষ্ঠানের ১০ম পর্বের শিল্পী কবিতা রায়ের জন্ম দিনাজপুর জেলার খানসামা থানার ভাবকী গ্রামে। বিনয় চন্দ্র রায় তাঁর প্রথম গুরু। পরে ললিত চন্দ্র রায়ের কাছে গানের তালিম নেন কবিতা। বিভাগীয় পর্যায়ে লোকসংগীত প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন মঞ্চে সংগীত পরিবেশন করে সুনাম অর্জন করেছেন তিনি। স্বামী সঞ্জয় মণ্ডলের আন্তরিক আগ্রহ তাঁর সংগীতচর্চার পথে প্রেরণা জুগিয়েছে। আরেক শিল্পী মো. শাহীনুর ইসলামের জন্ম টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার রসুলপুর গ্রামে। শৈশবে বাবা আবদুল হক মাস্টারের কাছে গানের হাতেখড়ি। ১৯৯০ সালে ময়মনসিংহ শিল্পকলা একাডেমিতে আনুষ্ঠানিকভাবে গান শেখা শুরু করেন তিনি। সংগীতচর্চার ধারাবাহিকতায় লোকসংগীতের বহু গুণীজনের সান্নিধ্য পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ইন্দ্রোমহন রাজবংশী, মুস্তাফা জামান আব্বাসী, নার্গিস চৌধুরী, জোসেফ কমল রড্রিক্স অন্যতম। ‘ছায়ানট সংগীত বিদ্যায়তন’ থেকে তিনি লোকসংগীতের কোর্স সাফল্যের সঙ্গে সম্পন্ন করেছেন। তিনি বেতার, টেলিভিশনসহ নানা মঞ্চে গান পরিবেশন করেছেন। ২০১৮ সালে মঞ্চ নাটকের আবহ সংগীত পরিচালনার স্বীকৃতি স্বরূপ বেঙ্গল স্টার অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেন। স্থানীয় নাট্যদলের সঙ্গে মঞ্চকর্মী হিসেবে যুক্ত রয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন