বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মিশ্র রাগে গজল আঙ্গিকে সুজিত মোস্তফা গেয়েছেন ‘যদি কিছু কথা বলা যায়’। গানটির ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করে কত্থক নৃত্যশিল্পী মুনমুন আহমেদ লেখেন, ‘কদিন আগে সেন্ট মার্টিন বেড়াতে গিয়েছিলাম, সঙ্গে ক্যামেরা নিয়েছিলাম। সুজিতকে বাধ্য করলাম আমার ক্যামেরায় গান গাইতে, বেচারা বাধ্য হয়ে রোদে পুড়ে আমার ক্যামেরায় শুট করল। কোনো দিন গানের ভিডিও এডিটিং করিনি। এই প্রথম সুজিতের গান এডিট করলাম।’

মোস্তফা আনোয়ার স্বপনের কথা, সুজিত মোস্তফার সুরে ‘যদি কিছু কথা বলা যায়’ শিরোনামে গানটির সংগীত পরিচালনা করেন বিনোদ রায়। ভিডিওর দৃশ্য পরিকল্পনা, ধারণ, সম্পাদনা ও সার্বিক তত্ত্বাবধান করেছেন নৃত্যশিল্পী মুনমুন আহমেদ। সুজিত মোস্তফা জানান, মোস্তফা আনোয়ার স্বপন মূলত পদার্থবিজ্ঞানী। পর্তুগালে পিএইচডি করছেন। সুজিত মোস্তফা বলেন, ‘তাঁর লেখা গান আমার খুব পছন্দ। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের অনুষ্ঠান মুজিব চিরন্তনে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে করা একটি নৃত্যালেখ্যের চিত্রনাট্য করেছিলেন তিনি। মুনমুন আহমেদের কোরিওগ্রাফিতে সেটার সংগীত পরিচালনা করেছিলাম আমি।’

সুজিত মোস্তফা জানান, গত বছরের শরতে পাঁচটি গান নিয়ে প্রকাশিত হয়েছিল একটি জুক বক্স। জি সিরিজের চ্যানেলে ‘শরৎ শিশির’ নামে প্রকাশিত ওই গানের অ্যালবামের কোনো মিউজিক ভিডিও করা হয়নি। একসঙ্গে এতগুলো গান প্রকাশিত হওয়ায় সেটি মানুষের কাছে ততটা পৌঁছায়নি। কিঞ্চিৎ আক্ষেপ করে সুজিত মোস্তফা বলেন, ‘মানুষ এখন বড় পরিসরে কিছু না দিলে, নাটকের ভেতরে না দিলে দেখে না, শোনে না।’

সেন্ট মার্টিনে আরও দুটি গানের ভিডিও করেছেন মুনমুন আহমেদ। নজরুলের ‘দাও শৌর্য, দাও ধৈর্য’ ও মৌলিক গজল ‘ব্যথায় পুড়িয়ে যদি চলেই যাবে’। শিগগির গান দুটির সংগীতচিত্র প্রকাশিত হবে। মুনমুন আহমেদ বলেন, ‘ক্যামেরা নিয়ে গিয়েছিলাম। মনে হলো ভিডিও করে ফেলি। কাজ তো নানা সময়ে করছিই। এটা আরেকটা কাজ হিসেবে জমিয়ে রাখা যাবে।’

সম্প্রতি রবীন্দ্র সৃজনকলা বিশ্ববিদ্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাতে গিয়েছিলেন নৃত্যশিল্পী মুনমুন আহমেদ। তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়টি নৃত্যকলা বিভাগ খোলার কথা ভাবছে। এটা আমাদের নৃত্যশিল্পীদের জন্য খুব আনন্দের একটা বিষয়। প্র্যাকটিক্যালি অনেকেই নাচ শিখছে। আমার বিশ্বাস, একাডেমিক পড়াশোনা করতে পারলে, সেটা আরও ভালো ফল বয়ে আনবে।’

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন