default-image

মার্কিন অনলাইন প্ল্যাটফর্ম পিককের জনপ্রিয় সিরিজ ‘সেভড বাই দ্য বেল’। এর সাম্প্রতিক একটি পর্বে সেলেনা গোমেজের কিডনি প্রতিস্থাপন নিয়ে রসিকতা করা হয়েছিল। যদিও সেটাকে রসিকতা হিসেবে নেননি সেলেনা–ভক্তরা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যাপক সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষমা চেয়েছে পিকক। ওই অনুষ্ঠানে কেবল সেলেনা নয়, তাঁর সাবেক প্রেমিক জাস্টিন বিবারের সঙ্গে সম্পর্ক, আর ডেমি লোভাটোর সঙ্গে বন্ধুত্ব নিয়েও খোঁচা দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
default-image

ওই পর্বে দেখানো হয়, দুজন শিক্ষার্থীর কথোপকথন। তাঁদের একজন বলছেন, ‘জটিল এক অসুখে পড়ে জরুরিভিত্তিতে কিডনি বদলাতে হয়েছিল সেলেনাকে। সেই সময় কিডনি দিয়েছিল তাঁর সাবেক প্রেমিক জাস্টিন বিবার, নয়তো ঘনিষ্ঠ বন্ধু ডেমি লোভাটো। কেননা তাঁরাই সেলেনার সবচেয়ে কাছের মানুষ। আমার কাছে ফোন নেই বলে নিশ্চিত করতে পারছি না।’ এই পর্বটির উদ্দেশ্য ছিল, তরুণদের স্মার্টফোনের প্রয়োজনীয়তা বোঝানো। এ সময় সেলেনার সঙ্গে বিবারের প্রেম নিয়ে মজা করতে দুজন তরুণ–তরুণীর চুমু খাওয়ার দৃশ্য দেখানো হয়। এমনকি এ–ও বলা হয়, ‘সেলেনার কি কিডনি ছিল?’

default-image

এসব ভালো লাগেনি সেলেনা–ভক্তদের। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এক ভক্ত লিখেছেন, ‘বিশ্বসেরা সংগীত তারকার ব্যক্তিগত জীবন আর অসুস্থতা নিয়ে আপনারা যা করলেন, তা স্রেফ নোংরামি, এর ক্ষমা নেই।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘সেলেনাকে সম্মান করতে শিখুন। তিনি কেবলই শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার যোগ্য। তা যদি না পারেন, অন্তত অসম্মান করবেন না। এসব আমরা কিছুতেই মেনে নেব না।’

এসব দেখে টনক নড়েছে পিককের। এক বিশেষ বার্তায় তাঁরা লিখেছে, ‘আমরা আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী। কাউকে আঘাত করা আমাদের উদ্দেশ্য ছিল না। আমরা সেলেনার ম্যানেজারের সঙ্গে কথা বলেছি। এমনকি সেলেনার লুপাস রিসার্চ ফান্ডে অনুদানও দিতে চাই।’ উল্লেখ্য, লুপাস রোগে আক্রান্ত হয়ে জরুরিভিত্তিতে কিডনি বদলাতে হয়েছিল সেলেনার। আর তাঁকে কিডনি দিয়েছিলেন বন্ধু ফ্রান্সিয়া রাইসা। সূত্র: ডেডলাইন

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন