সম্প্রতি ‘পঞ্চভুজ’ নামের একটি সিনেমার ট্রলার উন্মোচনে আসেন অভিষেকের স্ত্রী সংযুক্তা চট্টোপাধ্যায় ও মেয়ে সাইনা চট্টোপাধ্যায়। তাঁদের দেখে বোঝা যাচ্ছিল এখনো ৫৭ বছরের স্বামী ও বাবাকে হারানোর শোক বয়ে চলছেন। শুধু তারাই নন, সবার মধ্যেই অকালপ্রয়াত অভিনেতার মৃত্যু নাড়িয়ে দিয়েছিল। ট্রেলার অনুষ্ঠানের পর সংযুক্তা ভারতীয় গণমাধ্যম এই সময়কে বলেন, ‘আগে থেকেই অভিষেক কিছুটা অসুস্থ ছিলেন। সেদিন সে শুটিং করতে চায়নি। সে দিন তাঁকে জোর করে সেটে নিয়ে যাওয়া হয়। নীল পোশাকের ওই পারফরম্যান্সটা আমাদের শেষ পারফরম্যান্স নয়। পরে সেদিন আমাদের বর–কনে সাজানো হয়। শুটিংয়ের একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।’

অভিষেক সর্বশেষ স্মার্ট জোড়ির শুটিংয়ে অংশ নেন। এটাই ছিল জীবনের শেষ শুটিং। এর আগের দিন খড়কুটোর শুটিং করতে গিয়ে এ অভিনেতা অসুস্থ হয়ে পড়েন। এই সময়ে তাঁর দরকার ছিল বিশ্রাম। সংযুক্তা বলেন, ‘প্রথম অসুস্থ হওয়ার পর চিকিৎসক দেখানো হয়। তখন কিছুটা ভালোই ছিল। পরদিন ‘স্মার্ট জোড়ি’র শুটিং ইউনিট থেকে গাড়ি পাঠানো হয়। ওখানে গিয়ে বলেছিলাম, ও আজ শুটিং করতে পারবে না। তারপরেও আমাকে মানিয়ে ওকে জোর করে শুটিংয়ে আনা হয়েছিল।’

অনুষ্ঠান নির্মাতাদের ঘিরে সংযুক্তার এমন মন্তব্য বিস্ফোরকই বটে। তবে চ্যানেল ও শুটিং ইউনিটগুলো অভিষেকের মৃত্যুর পরে জানায়, তাঁরা অভিষেকের অসুস্থতার কথা বুঝতে পেরেছিলেন। এই অভিনেতাকে হাসপাতালে যাওয়ার সব ব্যবস্থাও করেছিলেন। এভাবে অভিষেককে হারাবেন—এটা তারাও বুঝতে পারেননি। তাঁরাও গভীর শোক প্রকাশ করেন।