default-image

অভিনয়শিল্পী আজিজুল হাকিমের শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে। আর বিকেলে তাঁকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) থেকে কেবিনে নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে খবরটি নিশ্চিত করেছেন তাঁর স্ত্রী নাট্যকার ও পরিচালক জিনাত হাকিম।

জিনাত হাকিম জানালেন, হাসপাতালের চিকিৎসকেরা বিশেষভাবে আজিজুল হাকিমের দেখাশোনা করছেন। তাঁর শরীরের অবস্থা আগের তুলনায় এখন অনেক ভালো। অবস্থার উন্নতি দেখে চিকিৎসকেরা তাঁকে আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করেছেন।

default-image

অসুস্থ আজিজুল হাকিমের পাশে যাঁরা দাঁড়িয়েছেন, খোঁজখবর নিচ্ছেন, তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছেন আজিজুল হাকিমের স্ত্রী। বিশেষ করে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, মেয়র আতিকুল ইসলাম, নাট্যজন আসাদুজ্জামান নূর, সুবর্ণা মুস্তাফা থেকে শুরু করে অভিনয় শিল্পীসংঘের দায়িত্বশীল সবাই প্রতিনিয়ত খোঁজখবর নিচ্ছেন। জিনাত হাকিম বললেন, ‘মানুষ এভাবে একজন শিল্পীকে ভালোবাসতে পারে, তা আমি নিজ চোখে দেখলাম। তথ্যমন্ত্রী আমাদের পরামর্শ দিয়েছেন আজিজুল হাকিম যেন সুস্থ হলেও আরও সাত দিন বেশি সময় হাসপাতালে থেকে সেবা নেন। এতে সঠিক স্বাস্থ্যসেবাটা পাবেন।

বিজ্ঞাপন

এর আগে ১০ নভেম্বর নমুনা পরীক্ষায় আজিজুল হাকিমের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী জিনাত হাকিম ও ছেলে মুহাইমিন রেদোয়ান হাকিমেরও পজিটিভ ফল আসে। চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁরা বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। ১২ নভেম্বর আজিজুল হাকিমের অবস্থার অবনতি ঘটলে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। নেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টে। আজ থেকে তিনি কেবিনে চিকিৎসাসেবা নিচ্ছেন।

default-image

প্রায় ৪০ বছর ধরে টিভি নাটকে অভিনয় করছেন আজিজুল হাকিম। এর আগে তিনি আরণ্যক নাট্যদলে কাজ করেছেন। আজিজুল হাকিম ১৯৮১ সালে বিটিভিতে তালিকাভুক্ত হন। ‘এখানে নোঙর’ নাটকে ছোট একটি চরিত্র দিয়ে টিভি নাটকে অভিনয় শুরু করেছিলেন তিনি। এরপর বিটিভির জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ‘কোন কাননের ফুল’-এ অভিনয় করেন অলি চরিত্রে। তাঁর বিপরীতে ছিলেন শমী কায়সার। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘“কোন কাননের ফুল” আমার অভিনয়জীবন বদলে দেয়। নাটকটি আমার জীবনে সুখের স্মৃতি হয়ে আছে।’

মঞ্চে তিনি ‘ওরা কদম আলী’, ‘ইবলিস’, ‘গিনিপিগ’, ‘আগুনমুখা’, ‘খেলা খেলা’, ‘মানুষ’সহ বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেছেন বছরের পর বছর। ‘পদ্মা নদীর মাঝি’র মতো আলোচিত সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। একসময় বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত শিল্পী ছিলেন তিনি।

default-image

লকডাউনের পর গত জুন মাস থেকে সীমিত পরিসরে ঘরের বাইরে বের হতে শুরু করেছিলেন হাকিম দম্পতি। তখন থেকেই খুব সাবধানে চলাফেরা করতেন তাঁরা। কীভাবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেন, তা এখনো বুঝে উঠতে পারছেন না এই দম্পতি। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় চলমান সব নাটকের শুটিং বাদ দিতে হয়েছে আজিজুল হাকিমকে। একটি নাটকের কাজে ঢাকার বাইরে যাওয়ার কথা থাকলেও সেই শুটিংও বাতিল করেছেন জিনাত হাকিম।

default-image
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0