বিজ্ঞাপন
default-image

ছোট পর্দার পরিচিত মুখ ফারুক আহমেদ। এখনো অনেকে তাঁকে  হুমায়ূন আহমেদের শিল্পী বলে ডাকেন। তার কারণ, হুমায়ূন আহমেদ যে কজন অভিনেতাকে খুব স্নেহ করতেন, তাঁদের মধ্যে ফারুক আহমেদ অন্যতম। তবে একটা ব্যাপারে এখনো ফারুক আহমেদের আফসোসের শেষ নেই, ‘মৃত্যুর সময় হুমায়ূন আহমেদের পাশে থাকতে পারিনি। ওই সময় যাঁরা স্যারের পাশে ছিলেন, তাঁদের কাছ থেকে বিভিন্ন সময় শুনেছি কোথায় স্যারকে শেষ গোসল করানো হয়। কোথায় কাফনের কাপড় পরানো হয়, কোথায় তাঁর প্রথম জানাজা হয়। কেবলই মনে হতো, আহা! মৃত্যুর সময় যদি স্যারের পাশে থাকতে পারতাম।’

default-image

২০১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পর সেই আফসোস তাঁর কিছুটা কমেছিল। সেবার এক আত্মীয়ের বাসায় ওঠেন। রাতেই জানতে পারেন পাশের মসজিদ আল মামুরে হুমায়ূন আহমেদের গোসল ও জানাজা হয়েছিল। সকালে উঠেই চলে যান সেই মসজিদে। ফারুক আহমেদ বলেন, ‘মসজিদের ইমাম সাহেব গোসল আর জানাজার জায়গা দেখালেন। আমার শরীর তখন কাঁপছিল। মনে একধরনের কষ্ট ভর করছিল। মনে হচ্ছিল স্যারের লাশ সেখানেই আছে। আমি স্যারকে দেখছি। তাঁর শরীরে সাদা কাপড় পরানো হচ্ছে। স্যারের শেষ দিনগুলোর কথা মনে পড়লে এই দিনের কথা আমি কখনোই ভুলতে পারি না।’

হুমায়ূন আহমেদের লেখা ‘অচিন বৃক্ষ’ নাটকে প্রথম অভিনয় করেন ফারুক আহমেদ। তারপর থেকে হুমায়ূন আহমেদের অনেক নাটকে কাজ করেছেন এই অভিনেতা।

default-image
টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন