শরিফুল রাজ
শরিফুল রাজছবি: ফেসুবক থেকে

‘এবারের জন্মদিনের সেরা উপহারটা পেয়েছি’, বললেন অভিনেতা শরিফুল রাজ। তাঁর জন্মদিনের শিডিউলে পড়ে গেছে ‘হাওয়া’ ছবির ডাবিংয়ের কাজ। এটিই কাজপাগল এই অভিনেতা কাছে সেরা পাওয়া। জানালেন দিনটি নিয়ে আগে তাঁর আগ্রহ না থাকলেও তারকা হওয়ার পরে দিন দিন তাঁর জন্মদিন নিয়ে ভক্তদের আগ্রহ তিনি উপভোগ করছেন। আজ সন্ধ্যায় তিনি ভক্তদের সঙ্গে আড্ডা দেবেন।
জন্মদিন নিয়ে কোনো কালে আগ্রহ ছিল না রাজের। দিনটি নিয়ে তাঁর তেমন কোনো মজার ঘটনাও নেই। রাজ জানালেন, কেক কাটতে হবে, পার্টি হবে, সে রকম কোনো ফ্যামিলি থেকে তিনি আসেননি। তাঁর পরিবারটা সাধারণ। তিনিও বড় হয়েছেন মধ্যবিত্ত পরিবারে। ইচ্ছা থাকলেও বিভিন্ন কারণে তিনি দিনটি বন্ধুদের সঙ্গে পালন করতে চাননি। এখন তাঁর জন্মদিনে ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের আগ্রহ তাঁর ভালো লাগে।

default-image

তারকা হওয়ার পরে জন্মদিন কেমন কাটে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখন খুব মজা লাগে। রাত ১২টা থেকে প্রচুর মানুষ ফোন, এসএমএস দিচ্ছে। অনেকেই দেখা করতে চাচ্ছে। যেটা হয়তো আজ থেকে পাঁচ বছর আগেও ছিল না। এখন মানুষ আমার কাজ নিয়ে কথা বলছে, এটাই আমার বড় পাওয়া।’

বিজ্ঞাপন

সিলেট থেকে ২০০৯ সালে পড়াশোনার জন্য ঢাকায় আসেন শরিফুল রাজ। শহরটা প্রথম দর্শনেই মুগ্ধ করে রাজকে। কিন্তু আর্থিক সংকট তাঁকে এক বছরও টিকতে দেয়নি এই শহরে। নারায়ণগঞ্জে মামার কাছে চলে যান। পরে আবার চলে আসেন ঢাকায়। সে সময় ঢাকায় জীবন ধারণ করতে আর চলতে বিজ্ঞাপনচিত্রে বাড়তি শিল্পী হিসেবে কাজ শুরু করেন। এই সময়ের মধ্যে দু-এক জায়গায় চাকরি ধরা এবং ছাড়াও হয়েছে। কিন্তু ধীরে ধীরে মডেলিংয়ের জগৎ ঘিরে আগ্রহ বাড়তে থাকে রাজের। পরে মডেলিং দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করেন এই নায়ক।

default-image


২০১৫ সালে তাঁর ক্যারিয়ার বদলে যায়। এই সময় তিনি রেদওয়ান রনির পরিচালনায় ‘আইসক্রিম’ ছবিতে অভিনয় করেন। দর্শক তাঁর চরিত্রটি পছন্দ করেন। তারপর থেকেই চেয়েছিলেন মডেলিং আর করবেন না। শুধু চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় করবেন। কিন্তু পছন্দমতো গল্পের চলচ্চিত্র না পাওয়ায় দীর্ঘ সময় তিনি কাজ থেকে দূরে থাকেন। এই সময় আর্থিক সংকটে পড়ে যান এই নায়ক। বাধ্য হয়ে আবার

মডেলিংয়ে ফেরেন শরিফুল রাজ। তিনি জানালেন, তাঁর পুরো পরিবারই সিনেমাপ্রেমী। সুযোগ পেলেই এখনো ‘রূপবান’ কিংবা ‘বেদের মেয়ে জোস্‌না’ ছবি দেখতে বসে যান রাজের মা। তাই সিনেমার ঝোঁক পরিবার থেকেই পেয়েছেন তিনি।

default-image

এখন সিনেমাই একমাত্র লক্ষ্য তাঁর। সিনেমা নিয়েই তাঁর স্বপ্ন, ধ্যান–জ্ঞান। রাত ১২টায় সবার আগে এক মেয়ে ভক্ত তাঁকে ফোন করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সকাল থেকে ভক্ত, সহকর্মীরা তাঁকে ফোন করেছেন। আজ সন্ধ্যায় ভক্তদের সঙ্গে আড্ডা দেবেন বলে জানালেন তিনি। কথা বলার সময় এই নায়ক ‘হাওয়া’ ছবির ডাবিংয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, ‘এমন একটা দিনে “হাওয়া” ছবির ডাবিং থাকায় আমি খুবই খুশি। এটা আমার পছন্দের একটি কাজ। জন্মদিনে হাওয়া আমার সেরা উপহার।’
রাজের হাতে রয়েছে বেশ কটি সিনেমা এবং ওয়েব ফিল্মের কাজ। জানালেন, করোনায় থেমে আছে নির্মাতা মেজবাউর রহমান সুমনের ‘হাওয়া’, রায়হান রাফির ‘পরান’।

default-image
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0