default-image

করোনার টিকা নিলেন নাট্যজন ও সাংসদ আসাদুজ্জামান নূর। আজ মঙ্গলবার সকালে জাতীয় সংসদ ভবনে করোনার টিকা দেওয়ার বুথ থেকে এ টিকা নেন তিনি। সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে খবরটি নিশ্চিত করেছেন আসাদুজ্জামান নূর।
দেশের সবারই করোনার টিকা নেওয়া উচিত। টিকা নেওয়ার নিবন্ধন পদ্ধতিও সহজ করে দেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘শুরুতে বয়সসীমা ৫৫ বছর করা হলেও পরে প্রধানমন্ত্রী তা কমিয়ে দেন। ৪০ বছর বয়সী সবাই করোনার টিকা নেওয়ার জন্য নাম নিবন্ধন করতে পারবেন। তাই এখন আরও বেশিসংখ্যক মানুষ করোনার টিকা নিতে পারবেন। আজ টিকা নিতে গিয়ে দেখলাম সুন্দর পরিবেশ। দেশের বিভিন্ন জায়গায় যাঁরা টিকা নিচ্ছেন, তাঁদের কাছেও শুনলাম—সবাই সুন্দর পরিবেশে, নির্বিঘ্নে টিকা নিচ্ছেন। সন্তুষ্টিও প্রকাশ করছেন। একদিক দিয়ে দেখলে, আমরা তো খুব লাকি। কারণ, পৃথিবীর অনেক দেশের আগে আমাদের দেশের মানুষ করোনার টিকা পাচ্ছেন। পৃথিবীর অনেক দেশ এখনো করোনার টিকা পায়নি। আমাদের দেশে খুব দ্রুত এসেছে এবং খুব দ্রুত দেওয়াও শুরু হয়েছে। দেশের সবাইকে বলতে চাই, আপনারা টিকা নিন।’

বিজ্ঞাপন
default-image

টিকা নিয়ে কেমন লাগছে জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। কোনো ধরনের অসুবিধা বোধ করছি না। আজ টিকা দেওয়ার পর তো আমার এক ছোট ভাইকে শ্যামলীর একটি হাসপাতালে দেখতে গিয়েছিলাম। এরপর সচিবালয়ে কাজ ছিল, সেখানে গেলাম। কাজ শেষ করে বইয়ের দোকানে গিয়েছিলাম। তারপর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে গিয়েছি। বাসায় এসে ফ্রেশ হয়ে একটা জুম মিটিংও সারলাম। স্বাভাবিক দিনে যে কাজ করে থাকি, সেটাই কন্টিনিউ করছি।’
আসাদুজ্জামান নূর জানালেন, করোনার টিকা নিতে গিয়ে ডাক্তার ও নার্সের আন্তরিকতাও তাঁর ভালো লেগেছে। এর আগে গতকাল সংসদ ভবন এলাকায় টিকা নিয়েছেন সুবর্ণা মুস্তাফা। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টায় সংসদ ভবন চত্বরে করোনার টিকা নেন তিনি। সংসদ কর্মচারী ও মহিলা সাংসদদের জন্য টিকা দেওয়ার এই ব্যবস্থা প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে করা হয় বলে জানান সুবর্ণা।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন