পর্দায় থাকার প্রতিযোগিতায় যেন লড়তে হচ্ছে সবাইকেই
পর্দায় থাকার প্রতিযোগিতায় যেন লড়তে হচ্ছে সবাইকেই

উৎসবভিত্তিক নাটক নিয়ে অভিনয়শিল্পীদের থাকে আলাদা প্রস্তুতি ও আকাঙ্ক্ষা। সাম্প্রতিক সময়ে সেটা চোখে পড়ে ২০১৭ সালের বড় ছেলে নাটকের পর। এই নাটক দিয়েই শক্তিশালী অবস্থানে পৌঁছেছিল অপূর্ব–মেহ্‌জাবীন জুটি। সেই থেকে গত পাঁচ বছরে আরও বেশ কয়েকজন তরুণ অভিনয়শিল্পী নিজেদের সেই স্তরে তুলে এনেছেন। সম্মুখসারির এ রকম টিভি তারকাদের ভেতরে এখন টিকে থাকা ও দর্শকদের চোখের সামনে থাকার শীতল লড়াইয়ের প্রবণতা লক্ষ করা যাচ্ছে। ক্রমে সেটি প্রকাশ্যেও চলে আসছে।

default-image

কারও দাবি, ফেসবুক–ইনস্টাগ্রামে অনুসারী আর ইউটিউবে ‘ভিউ’ বেশি এমন অভিনয়শিল্পীদের নিয়ে জোট বেঁধে কাজ করছেন নির্মাতা ও অভিনয়শিল্পীরা। এ ছাড়া অনেক প্রযোজক আগেই তারকাদের শিডিউল কবজা করে নিয়েছেন। আর তারকারাও নিজেদের পছন্দের নির্মাতাদের কাজ দিচ্ছেন। কারণ, ঈদে টেলিভিশন, ইউটিউব, ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোতে প্রচুর নাটক থাকবে। সেসব নাটকের যতগুলোতে পারা যায়, ভাইরাল হতেই হবে। এতে ভবিষ্যতে চাহিদার বাজারে এগিয়ে থাকা যাবে। এতে বিভিন্ন নাটকে ঘুরেফিরে একই মুখ, বিভিন্ন চ্যানেলের কাজ করতে থাকেন একই পরিচালক।

সম্প্রতি ঈদের নাটকের পরিকল্পনা নিয়ে কথা হয় অভিনয়শিল্পী অপূর্বর সঙ্গে। ইতিমধ্যে শুটিং শুরু করেছেন তিনি। শিডিউল দেওয়াও শেষ। তিনি বলেন, ‘এবার কেউই তাড়াহুড়া করে কাজ করতে চাচ্ছেন না। সবাই সময় নিয়ে গুছিয়ে কাজ করছেন। যে জন্য এবার আমার প্রডাকশনের সংখ্যা কমে যাবে। কোয়ালিটির দিকে বেশি মনোযোগ থাকবে। এই পরিকল্পনা অন্য আর্টিস্টদের মধ্যেও দেখছি।’

বিজ্ঞাপন
default-image

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক অভিনয়শিল্পী জানান, নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা সবাই করেন। এর মধ্য দিয়েই তারা দর্শকের কাছে কতটা গ্রহণযোগ্য, সেটা বুঝে নেন। সেভাবেই নিজের কোয়ালিটি ধরে রাখেন। তিনি বলেন, ‘আজ আমার ক্যারিয়ার পড়ে গেলে কেউই কাজে ডাকবে না। সে কারণেই দর্শক যে গল্পগুলো পছন্দ করেন, সেগুলোই করছি। সিনিয়ররাও এগুলোই করছেন। অফ ট্র্যাকের গল্পে কাজ করলে সবাই বলবে, আমার ভিউ নেই। স্রোতে গা না ভাসালে, না খেয়ে থাকতে হবে।’

default-image

পরিচালক সাগর জাহান জানান, অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে প্রতিযোগিতার বিষয়টি তিনিও শুনেছেন। তবে তিনি একে ইতিবাচকভাবে দেখেন। পাশাপাশি তিনি প্রশ্ন রাখেন, কেন একজন অন্যজনকে ছাড়িয়ে যেতে চাইবেন না? এটাই তো প্রতিযোগিতাই নিয়ম। সাগর বলেন, ‘এ মুহূর্তে যাঁরা প্রতিযোগিতা করছেন, তাঁরা যদি ৬ থেকে ১০ জন নির্দিষ্ট ব্লকের নির্মাতাদের সঙ্গে কাজ করেন বা তাঁদের কথায় যদি বোঝা যায় তাঁরা সবার সঙ্গে কাজ করবেন না, তাহলে আমার প্রশ্ন আছে। আমি মনে করি গল্পকে প্রাধান্য দিয়ে তাঁরা কাজ করবেন। কারণ, অনেক নির্মাতা ভালো কাজ করতে চান। সেই সুযোগটা দিতে হবে।’

একসময় গল্পকে প্রাধান্য দিয়ে প্রযোজকেরা নাটকের জন্য শিল্পী নির্বাচন করতেন। গল্প ভেবে যথাযথ অভিনয়শিল্পীর সঙ্গে যোগাযোগ করে শুটিং শুরু করতেন। এখন কতিপয় ব্যবসায়ী শুধু তারকাদের পছন্দে প্রেম ও কমেডি গল্পের দিকে ঝুঁকছেন, গল্পে নির্মাণের সংস্কৃতি নষ্ট করে দিচ্ছেন বলে মনে করেন প্রযোজক সাজু মনতাসির। তিনি বলেন, ‘নাটকের ভিউ নিয়ে তারকারা নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা করতেই পারে। কারণ, সবাই চাইবে তার নাটকটা মানুষ দেখুক। কিন্তু ভিউ দিয়ে কে কাকে ছাড়িয়ে যাব, এই অসুস্থ প্রতিযোগিতা নিয়ন্ত্রণ করা উচিত।’

default-image

অভিনয়শিল্পী সংঘের সভাপতি শহীদুজ্জামান সেলিম মনে করেন, একজন অভিনয়শিল্পীকে দায়বদ্ধতার জায়গায় পরিষ্কার থাকতে হয়। অভিনেতা সব সময়ের, সময়কে ধরেই তাঁকে কাজ করতে হবে। এখানে নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতার কিছু নেই। তিনি বলেন, ‘গত বছর থেকে কাজের ক্ষেত্রে কিছুটা পরিবর্তন এসেছে। এসব ভিউয়ের হিসাব আর বেশি দিন টিকবে না। শিল্পীকে বাঁচিয়ে রাখে তাঁর কাজ। এই বোধোদয় সবার মধ্যে জাগতে শুরু করেছে।’

default-image

ডিরেক্টরস গিল্ডের নির্বাচন সামনে রেখে সম্প্রতি ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন অভিনেতা তৌসিফ মাহবুব। নির্বাচনে অংশ নেওয়া ছয় নির্মাতার ছবি পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, ‘অনেক ডিরেক্টর ভাই শিডিউল চান, দিতে পারি না। এই পরিচালকদের ভোট দিলে শিডিউল দেব, কথা দিচ্ছি। তবে প্রমাণ দেখাতে হবে।’ এই স্ট্যাটাস ধরে কথা হয় বেশ কয়েকজন পরিচালকের সঙ্গে। তাঁরা জানান, শুধু তৌসিফই নন, মোশাররফ করিম, চঞ্চল চৌধুরী, অপূর্ব, আফরান নিশো, মেহ্‌জাবীন, জোভানসহ বেশ কয়েকজন অভিনয়শিল্পীর শিডিউল ৯০ শতাংশ পরিচালক পান না। অনেক অভিনয়শিল্পী কোন নির্মাতার নাটকের কেমন ভিউ সেসব দেখে শিডিউল দেন। নির্মাতা সেরনিয়াবাত শাওন জানান, কোন নির্মাতার নাটকের ভিউ ৫ মিলিয়ন হলেই ধরে নেওয়া হয় সে সবার সঙ্গে কাজ করার যোগ্যতা অর্জন করেছেন। গত মাস থেকে ঈদ পর্যন্ত এই অভিনয়শিল্পীদের প্রায় কারও শিডিউল নেই। এই না থাকার পেছনে রয়েছে এক শীতল লড়াইয়ের আভাস।

default-image
বিজ্ঞাপন
টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন