বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ ধরনের পোস্ট দেন রুনা খান, জিয়াউল ফারুক অপূর্ব, শবনম ফারিয়া প্রমুখ তারকা। কারও জরুরি রক্ত প্রয়োজন, কেউ হারিয়ে গেছেন, করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সতর্কতা, প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ নানা ধরনের সচেতনতামূলক পোস্ট দেন তাঁরা।

মাদক, নারী হয়রানি, সামাজিক অবক্ষয়ের মতো বিষয়ে সচেতনতামূলক নাটকে অভিনয় করেন অপূর্ব। দায়বদ্ধতা থেকে পর্দায় বাইরে ব্যক্তিগত জীবনেও সামাজিক কাজগুলো করেন এই শিল্পী। ভক্তদের সতর্ক করতে নিয়মিত সচেতনতামূলক নানা রকম পোস্ট করেন তিনি। এ ধরনের কাজের উৎসাহ কোত্থেকে পেলেন? অপূর্ব বলেন, ‘কেউ বিপদে পড়েছেন দেখলেই আগে বিষয়টির সত্যতা জানার চেষ্টা করি। নিশ্চিত হয়ে পরে আমার ফেসবুক পেজে পোস্ট করি। বন্ধু-স্বজন, ভক্ত অনেকেই আমার ফেসবুকে যুক্ত। সে জন্য পোস্টগুলো কাজ করে। এসব কাজ করতে ভক্তরাও অনেক সময় অনুরোধ করেন। মানবিক জায়গা থেকে মাঝেমধ্যে কাজগুলো করতে ভালো লাগে।’

default-image

প্রয়োজন ছাড়া ফেসবুক তেমন ব্যবহার করেন না অভিনেত্রী রুনা খান। যতটা সময় কাটান, চেষ্টা করেন ভালো কিছু করতে। এই অভিনেত্রীকে প্রায়ই দেখা যায়, জরুরি রক্ত বা স্বাস্থ্য সমস্যার আহ্বানগুলো ছড়িয়ে দেন। ভক্তদের অনুরোধ করেন, যেন সবাই সাধ্যমতো সাহায্যে এগিয়ে আসেন। রুনা বলেন, ‘কিছু মানুষ আমাকে চেনেন। ফেসবুকে তিন লাখের মতো মানুষ আমাকে অনুসরণ করেন। এর মধ্যে তিনজনও যদি উপকৃত হন, এটাই আমার কাছে অনেক বড়। মানুষের মধ্যে পজিটিভ ভাবনা, দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করতে চাই।’

একবার এক রোগীর ৪০ ব্যাগ রক্তের দরকার হয়। দুই ঘণ্টার মধ্যে রক্ত না পেলে রোগী মারা যেতে পারেন। এ রকম এক রোগীর জন্য এক ভক্ত শবনম ফারিয়াকে একটি পোস্ট দিতে অনুরোধ করেন। ফারিয়া সাড়া দেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে রক্ত জোগাড় হয়। সেদিন দারুণ মানসিক শান্তি পেয়েছিলেন ফারিয়া। সেদিনের পর থেকে নিয়মিত জরুরি রক্তের প্রয়োজনে ফেসবুকে পোস্ট দেন এই অভিনেত্রী। ফারিয়া বলেন, ‘আমার ডায়াবেটিস আছে। এ জন্য আমার রক্ত কেউ নিতে চান না। রক্ত দিতে না পারাটা আমার জন্য কষ্টের। এ জন্য চেষ্টা করি নিয়মিত মানুষকে ব্লাড জোগাড় করে দিতে। এমন নয় যে এ কাজে আমার ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় দিতে হয়। আমি শুধু মাধ্যম হিসেবে দাতা ও গ্রহীতাকে সংযোগ করিয়ে দিই।’

default-image

দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। তারকাখ্যাতিকে ইতিবাচক সামাজিক শক্তি করে তুলতে তৎপর তিনি। মানবাধিকার, ন্যায়বিচার, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, প্রাণ–প্রকৃতির ক্ষতিতে সরব হয়ে ওঠেন তিনি। কমনওয়েলথের উদ্যোগে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে আওয়াজ তুলেছেন পারিবারিক সহিংসতার বিরুদ্ধে। মহামারিতে পথের কুকুরদের খাইয়েছেন, নেমেছিলেন তাদের জীবন রক্ষার আইনি লড়াইয়েও। জয়া আহসান বলেন, ‘এসবের জন্য গর্বের কিছু নেই। মানুষ হিসেবে এগুলো আমার কর্তব্য।’

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন