default-image

দিন দিন নাটকের বাজেট কমছে, সেটা জানা কথা। সেই বাজেট এবার বাড়িয়ে দিল করোনাভাইরাস। চলমান মহামারির আগে নির্মাতারা যে বাজেটে শুটিং করেছেন, এখনকার শুটিংয়ের জন্য আগের সেই বাজেটের প্রায় ২৫ শতাংশ বেশি টাকা গুনতে হচ্ছে। ‘চাঁদের হাট’ ধারাবাহিকের নির্মাতা জানান, করোনার হাত থেকে বাঁচতে নাটকটির শুটিং শেষ করতে মাস্কই কিনতে হয়েছে প্রায় ৪৫ বাক্স। এ ছাড়া পানি, গ্লাস, স্যানিটাইজার, লেবু, পরিবহন মিলিয়েই এই খরচ বেড়েছে।

গত মার্চের প্রথম দিকে ‘চাঁদের হাট’ ধারাবাহিক নাটকের শুটিং শুরু হয়। তারপর করোনা দেখা দেওয়ায় বন্ধ হয়ে যায় শুটিং। চারবার চেষ্টা করেও গত চার মাসে শুটিং করতে পারেননি নির্মাতা। অবশেষে ৬ আগস্ট শুরু হয় নাটকটির শুটিং। দীর্ঘ চার মাস পর শুটিংয়ে ফিরেই বাজেট নিয়ে শঙ্কায় পড়তে হয় নির্মাতাকে। নির্মাতা অনিরুদ্ধ রাসেল জানান, প্রতিদিন ১৫ বক্স মাস্ক লাগছে। সবার জন্য আলাদা পানির বোতল, ওয়ানটাইম গ্লাস লাগছে। দূরত্ব বজার রাখতে গাড়ির সংখ্যা বাড়াতে হয়েছে। এদিকে এই শুটিংয়ের দলে ছিলেন অর্ধশতাধিক শিল্পী ও কলাকুশলী। এই নির্মাতা বলেন, ‘করোনা মাথায় রেখেই বাড়তি খরচ করতে হচ্ছে। পুবাইলে শুটিং করছি। এখানে খুব গরম। সবাই এত ঘামছে যে দিনে একেকজনের চার-পাঁচটা করে মাস্ক লাগছে। সবার জন্য আলাদা পানির বোতল কিনতে হয়েছে। স্যানিটাইজার আর প্রতিদিন কয়েক শ করে লেবু তো আছেই। যে কারণে প্রতি পর্বে আমাদের ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা অতিরিক্ত খরচ করতে হয়েছে।’ তবে খরচ বাড়লেও দীর্ঘ বিরতির পর নাটকের শুটিং শুরু করতে পেরেই খুশি নির্মাতা। কারণ, একসঙ্গে আট–নয়জন তারকার শিডিউল মেলানো খুবই কষ্টকর। যে জন্য তারকারা দুই মাস আগে থেকেই শিডিউল দিয়েছেন।

‘চাঁদের হাট’ শুটিংয়ে ঈদের পাঁচ দিন পর থেকে শুটিং শুরু হওয়ার কারণে নাটকের সব অভিনেতা দূরত্ব বজায় রেখে একসঙ্গে ঈদ–পরবর্তী আড্ডায় মজেছিলেন। তাঁদের কুশল বিনিময়ও ছিল দূর থেকে হাতের ইশারায়। এই আড্ডার মধ্যমণি ছিলেন ডা. এজাজ ও সালাহউদ্দিন লাভলু। মূলত তাঁরা সবার কাছেই প্রিয়। আড্ডায় স্থান পেয়েছিল ঈদে কে কী খেয়েছেন, কী কী নাটক দেখেছেন। ঈদের ভালো লাগা নাটকগুলো নিয়েও আলোচনা হয়। করোনাকালীন অনেকের স্বাস্থ্য বেড়ে যাওয়া নিয়েও শুটিংয়ের ফাঁকে মজার আড্ডা হয়েছে।

default-image

এই ধারাবাহিক খুব শিগগির একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত হওয়ার কথা। ডা. এজাজ ও সালাহউদ্দিন লাভলু ছাড়া এখানে আরও অভিনয় করেছেন নাদিয়া আহমেদ, রুনা খান, সাজু খাদেম, নাবিলা ইসলাম, বৃষ্টি, রাশেদ মামুন প্রমুখ। দুই বন্ধুর দ্বন্দ্ব নিয়েই নাটকের গল্প এগিয়েছে। নাটকটি লিখেছেন শফিকুর রহমান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0