বদলে যাচ্ছে গল্প, এবার আলো ও ছায়ার বড়বেলা

বিজ্ঞাপন
default-image

জি বাংলার ফেসবুক পেজে ১২ নভেম্বর একটি ছবি পোস্ট করা হয়। তাতে দেখা গেছে, ক্যামেরা থেকে নিজেদের মুখ আড়াল করে আছেন দুজন অভিনয়শিল্পী। সেখানে জানিয়ে দেওয়া হয়, ‘আলো’ আর ‘ছায়া’র চরিত্রে অভিনয় করছেন তাঁরা। পোস্টটি দর্শকের মধ্যে কৌতূহল তৈরি করে। সেই পোস্টের নিচে অনেক দর্শকই মন্তব্য করেছেন, সম্ভবত ‘আলো’র ভূমিকায় আসছেন ‘জয়ী’ সিরিয়ালের নায়িকা দেবাদৃতা বসু আর ‘ছায়া’র ভূমিকায় ‘ভজগোবিন্দ’ ও ‘বিজয়িনী’ সিরিয়ালের স্বস্তিকা দত্ত। আবার অনেকেই লিখেছেন, ‘ছায়া’র ভূমিকায় হয়তো অন্য কাউকে দেখা যাবে।

শুরুতে ‘আলোছায়া’ সিরিয়ালে ‘আলো’ চরিত্রে অভিনয় করেছে হিয়া দে আর ‘ছায়া’র চরিত্রে স্মৃতি সিং। হিয়া দে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী আর দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী স্মৃতি সিং। গোড়াতেই সিরিয়ালটি আরবান টিআরপি তালিকার সেরা দশে জায়গা করে নেয়। এবার বদলে যাচ্ছে গল্প। বদলে যাচ্ছে ‘আলো’ আর ‘ছায়া’র চরিত্রের অভিনয়শিল্পী। জানা গেছে, এবার এই দুটি চরিত্রে অভিনয় করবেন যথাক্রমে দেবাদৃতা বসু ও ঐন্দ্রিলা বসু।

‘আলো হচ্ছে একটা স্বপ্ন, একটা আদর্শ চরিত্র। আজ এমন চরিত্র খুঁজলে হয়তো লাখে একজন পাওয়া যাবে। যে নির্মল শৈশবটা হারিয়ে গেছে, আলো সেই শৈশব। আর ছায়া কিন্তু মোটেই ভিলেন নয়। প্রযুক্তির অগ্রগতির এই যুগে সে ইউটিউব দেখে, বিভিন্ন অ্যাপ নিয়ে ব্যস্ত থাকে।’ আলো আর ছায়া—এই দুটি চরিত্র নিয়ে গোড়াতে এভাবেই বলেছিলেন প্রযোজক সুশান্ত দে। জি বাংলায় গত ২ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে ‘আলোছায়া’ সিরিয়াল।

default-image

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে প্রযোজক সুশান্ত দে জানিয়েছেন, এবার ‘ছায়া’র ছায়া থেকে ‘আলো’র বের হওয়া গল্পে গুরুত্ব পাবে। এবার থাকছে তাদের বড়বেলা। এত দিন ‘আলোছায়া’ সিরিয়ালের প্রধান আকর্ষণ ছিল হিয়া দে আর স্মৃতি সিং। কিন্তু গল্পের প্রয়োজনেই এবার চরিত্র দুটির অভিনয়শিল্পী বদলে যাচ্ছে। ২৫ নভেম্বর থেকে দর্শক ‘আলো’ আর ‘ছায়া’র চরিত্রে দেবাদৃতা বসু ও ঐন্দ্রিলা বসুকে দেখতে পাবেন।

এরই মধ্যে ‘আলোছায়া’ সিরিয়ালের নতুন প্রমো এসেছে। তাতে দেখা গেছে, এবার এই সিরিয়ালে যুক্ত হচ্ছেন অর্ণব। এর আগ তিনি সান বাংলার ‘আশালতা’ সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন।

‘আলোছায়া’ সিরিয়ালের গল্পের শুরুটা ছিল, মা-বাবার আদরের মেয়ে আলো। ১০ বছরের মেয়েটি ভাবে, বড় হয়ে বিজ্ঞানী হবে। ক্যানসারের ওষুধ আবিষ্কার করবে। হঠাৎ সবকিছু পাল্টে যায়। মা-বাবাকে একসঙ্গে হারায়। এরপর তার ঠাঁই হয় অনাথ আশ্রমে। খবর পেয়ে খালা মৈত্রেয়ী আলোকে নিজের কাছে নিয়ে যান। শ্রীরামপুরের অধিকারীবাড়ির বউ মৈত্রেয়ী। সেখানে গিয়ে কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হয় আলোকে। খালাতো বোন ছায়াকে নিয়ে যত জটিলতা। পড়াশোনা করতে চায় না। স্কুলে যায়, কিন্তু স্কুলে পড়া তৈরি করে না। তার দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় আলো। ছায়ার হয়ে তার সব কাজ করে দেয় আলো। ব্যাপারটা বুঝতে পারে আলোর খালু। তিনি নিজের মেয়েকে নিয়ে ভাববেন, নাকি আলোকে ছায়া থেকে রক্ষা করবেন?

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন