বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

এই ঘটনা দেশের নাগরিক হিসেবে কাম্য নয়। এভাবে ঘটনাগুলো বেড়ে গেলে মানুষ বিচার চাওয়া ছেড়ে দেবে উল্লেখ করে তিনি আরও লিখেছেন, ‘ধীরে ধীরে এই সংখ্যা আরও বাড়বে। বিচারহীনতা আর বিচারের দীর্ঘসূত্রতায় আস্থা হারিয়ে এই তিন পরিবারের মতো আরও অনেক অনেক মৃতের পরিবার বিচার চাওয়া ছেড়ে দেবে। আমি সরকারে থাকলে মোটেও কিন্তু স্বস্তিতে থাকতাম না। সাবধান হয়ে যেতাম। কারণ, সঠিক বিচার না পাওয়ার আশঙ্কায় বিচার না চাওয়ার এই পুঞ্জীভূত অসহায়ত্ব একদিন নিজের হাতে বিচার তুলে নেওয়ার আগ্রাসী সম্ভাবনাকেই ত্বরান্বিত করে। অসহায় মানুষের পিঠ যখন দেয়ালে ঠেকে যায়, তখন সামনে পাহাড় দিয়েও তাদের ঠেকিয়ে রাখা যায় না।

default-image

আশফাক নিপুণ লিখেছেন, রাষ্ট্রকে এই তিন নৃশংস হত্যার সঠিক (কুরাজনৈতিক না) বিচার করতে হবে অবিলম্বে, স্ব-উদ্যোগে। অবস্থা এখন এতটাই করুণ যে আক্রান্ত ব্যক্তি বিচারের কাছে নয়, বরং বিচারকেই আক্রান্ত ব্যক্তির কাছে এগিয়ে যেতে হবে। নাহলে যে বিচারের বাণী কাঁদে নিভৃতে, তার কান্নাকাটি বন্ধ করে ফাঁসি খাওয়াই ভালো।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন