default-image

পাঁচ দিন হলো ফোনে পাওয়া যাচ্ছে না অভিনেত্রী মিম মানতাসাকে। একের পর এক পাঠানো হয়েছে খুদে বার্তা। কোনো সাড়া নেই তাঁর। এই অভিনেত্রীকে নানাভাবে খুঁজে হয়রান নির্মাতা, প্রযোজক ও শুটিং ইউনিট। এ অবস্থায় শিডিউল নিয়ে জটিলতায় পড়েছে ‘১০০ তে একশো’ নাটকের শুটিং ইউনিট। মিমের পরিবার, আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ব্যর্থ হয়েছেন তাঁরা। সম্প্রতি বিয়ে করেছেন এই অভিনেত্রী। তারপর থেকেই তিনি লাপাত্তা।

বিজ্ঞাপন
default-image

১৮ মার্চ থেকে মিমের ৪ দিনের শিডিউল নিয়েছিলেন পরিচালক আবু হায়াত মাহমুদ। তিনি জানান, নাটকটিতে মিমের সহশিল্পী হিসেবে আছেন জাহিদ হাসান, সালাহউদ্দিন লাভলু, তানিয়া আহমেদসহ বেশ কয়েকজন অভিনয়শিল্পী। ধারাবাহিক নাটকটির শুটিং হবে পুবাইলের একটি শুটিং বাড়িতে। শুটিংয়ের সবকিছু প্রস্তুত। কিন্তু মিমের খোঁজ না পাওয়ায় শুটিং নিয়ে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। আবু হায়াত মাহমুদ বলেন, ‘গত মাসেই মিমের শিডিউল নিয়ে রাখা ছিল। খুদে বার্তায় দ্বিতীয়বার তাঁদের পক্ষ থেকে শিডিউল নিশ্চিত করা হয়। শিডিউল নিয়ে সবকিছু ঠিকঠাক ছিল। সম্প্রতি শুনলাম তিনি বিয়ে করেছেন। শুভকামনা জানাতে ফোন করি, কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি। ভেবেছিলাম বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা নিয়ে ব্যস্ত আছেন। এদিকে আমার শুটিংয়ের দিন এগিয়ে আসছে। শিডিউল নিয়ে কথা বলতে গত পাঁচ দিন তাঁকে ফোন করছি, তিনি ফোন ধরেননি।’ শুধু তিনিই নন, নাটকের প্রযোজক, সহকারী পরিচালক থেকে শুরু করে অনেকেই সাবেক এই লাক্স সুন্দরীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। উপায় না দেখে তাঁরা মিমের বিকল্প কাউকে নাটকে নেওয়ার কথা ভাবছেন।

default-image

ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ততা বাড়ছে তারকাদের। এমন পরিস্থিতিতে শিডিউল ফেঁসে গেলে ঈদের আগে অনেক অভিনয়শিল্পীর কোনো শিডিউল পাওয়া যাবে না। কিছু শিল্পীর শিডিউল পাওয়া গেলেও সবার শুটিংয়ের তারিখ একসঙ্গে মেলানো সম্ভব নয়। শুটিং না হলে বন্ধ হয়ে যেতে পারে নাটকটির প্রচার। মিম কোথায় আছেন, শুটিং করবেন কি না, তা জানতে নাটকের প্রযোজক সাজু মুনতাসির ক্লান্ত আর হতাশ হয়ে পড়েছেন। তিনি মিমের ঘনিষ্ঠ একজনের কাছ থেকে তিনি জানতে পেরেছেন, মিম ধুমধাম করে বিয়ে করেছেন। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘মিমের এই আচরণে আমরা হতবাক। তিনি বিয়ে করেছেন, এটা খুশির খবর। কিন্তু চাইলেই একটা ফোন করে জানাতে পারেন যে শুটিং করবেন কি না। আমরা এতগুলো মানুষ তাঁকে দিনের পর দিন ফোন করছি, অথচ তিনি কারও ফোন ধরছেন না। কিছু জানাচ্ছেনও না।’ ‘১০০ তে একশো’ নাটকে মিমকে বিদেশি এক তরুণীর চরিত্রে দেখানো হবে। এ রকম চরিত্রের জন্য হুট করে কাউকে খুঁজে পাওয়া কষ্টকর। তবে প্রযোজক চেষ্টা করছেন বিকল্প কাউকে খুঁজে বের করতে। আরও এক দিন অপেক্ষা করে মিমকে পাওয়া না গেলে নতুন কাউকে দিয়ে কাজটি করাবেন। তিনি বলেন, ‘একটি চরিত্র চাইলেই নাটক থেকে বাদ দেওয়া যায় না। কারণ, গল্পের ধারাবাহিকতা রাখতে হয়। আমরা কোনো ঝুঁকি নিতে চাই না। মিমকে না পেলেও আমাদের শুটিং সময়মতোই শেষ করতে হবে।’

বিজ্ঞাপন
default-image

সাড়া দিচ্ছেন না কেন, জানতে যোগাযোগ করা হয় মডেল ও অভিনেত্রী মিমের সঙ্গে। যথারীতি তিনি ফোন ধরেননি, খুদে বার্তারও জবাব দেননি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিমের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানায়, শ্বশুরবাড়ি থেকে হয়তো চায় না যে মিম অভিনয় চালিয়ে যাক। ‘১০০-তে একশো’ নাটকটি লিখেছেন মুনতাহা বৃত্তা। এটি যৌথভাবে পরিচালনা করছেন আবু হায়াত মাহমুদ ও সাইদুর রহমান। রোববার থেকে বুধবার মাছরাঙা টিভিতে দেখানো হয় এটি। এখানে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন সাজু খাদেম, রুনা খান, ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর, আরফান, অ্যালেন শুভ্র, তারিক স্বপন প্রমুখ।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন