default-image
সম্প্রতি ‘স্কুটি’ নামে একটি ওয়েব ফিল্মে অভিনয় করেছেন নাজিফা তুষি। একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্মে প্রচারিত হবে এটি। সিনেমা দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু হলেও নিয়মিত কাজ করেননি। করেছেন কিছু বিজ্ঞাপন ও মিউজিক ভিডিও। ব্যক্তিগত জীবন, কাজ নিয়ে কথা বললেন তুষি।

‘স্কুটি’তে অভিনয় করলেন কবে?

ডিসেম্বর মাসে। একটি স্কুটিকে ঘিরে ছবিটির গল্প। তবে মূল বিষয় নারীদের এগিয়ে যাওয়া। মূল চরিত্রটিতে অভিনয় করেছি আমি। স্কুটি চালানো শিখতে হয়েছে। এটি নির্মাণ করেছেন আরিফুর রহমান। প্রচারিত হবে একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্মে।

আপনাকে কম কাজ করতে দেখা যায় কেন?

সব কাজ করি না। একটু ভালো কাজের জন্য অপেক্ষায় থাকি। এ কারণে আস্তে–ধীরে কাজ করা হয়। তবে মাঝেমধ্যে কিছু মিউজিক ভিডিও ও বিজ্ঞাপনে কাজ করেছি। আর নাটক একদমই করি না। এ জন্য কম কাজ মনে হয়।

default-image
বিজ্ঞাপন

ইদানীং ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য অনেকগুলো কাজ করছেন...

হ্যাঁ, এই জায়গায় কাজ করে বেশ আরাম লাগছে। কারণ, ওটিটির কনটেন্টের গল্প ভালো, বাজেট ভালো, পরিচালকও ভালো। এ কারণে এখানকার কাজ ভালো হচ্ছে। ফলে স্বাচ্ছন্দ্য নিয়ে কাজ করতে পারছি। তা ছাড়া ওটিটির কনটেন্টে কাজ করে অভিনয়ের অনেক কিছু শিখতে পারছি। এর মধ্যে চরকির জন্য দুটি ওয়েব ফিল্মে কাজ করছি। একটির শুটিং শেষ হয়েছে।

নাটকে অভিনয় করেন না কেন?

একসময় গিয়াস উদ্দিন সেলিম, মোস্তফা সরয়ার ফারুকী, অমিতাভ রেজা, নূরুল আলম আতিক ভাইদের নাটক দেখে মুগ্ধ হতাম। তাঁদের কাজ দেখে অভিনয়ে আসতে চেয়েছিলাম। তাঁদের সঙ্গে কাজ করার স্বপ্ন দেখতাম। সেই সময় আরও ভালো গল্পের, ভালো মানের নাটক তৈরি হতো। কিন্তু যখন আমি লাক্স তারকা হয়ে এই অঙ্গনে কাজ করতে এলাম, তখন তাঁরা আর নাটক নির্মাণ করছেন না। কারণ, নাটকের দাম কমে গেছে, বাজেট কমে গেছে। আর ভালো বাজেট ছাড়া ভালো নাটক সম্ভব নয়। এ জন্য নাটকে মন টানে না, সিনেমার প্রতি আগ্রহ বেশি।

default-image

এই সময়ে সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে কীভাবে দেখছেন?

তরুণ সিনেমা নির্মাতারা ভালো করছেন। তাঁরা অনেক ভালো ভালো বিকল্পধারার চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন। দেশ-বিদেশে পুরস্কৃত হচ্ছেন। পাশাপাশি কিছু তরুণ নির্মাতা বাণিজ্যিক ছবিও ভালোভাবে নির্মাণ করছেন। এই নির্মাতারা ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য ওয়েব সিরিজ, ওয়েব ফিল্মও নির্মাণ করছেন। সত্যি বলতে কি, এই তরুণ নির্মাতারা চলচ্চিত্র নিয়ে পড়াশোনা করছেন। সব সময়ই বিশ্ব চলচ্চিত্রের সঙ্গে তাঁরা যোগাযোগ রাখছেন। জেনে ও বুঝে কাজ করার চেষ্টা করছেন তাঁরা।

কিন্তু আপনি সিনেমাতেও অনিয়মিত...

নিয়মিত করছি না, বলা যাবে না। ভালো কাজের জন্য আমার অপেক্ষা এটি। সিনেমায় প্রথম কাজ করেছিলাম ২০১৬ সালে, রেদওয়ান রনির ‘আইসক্রিম’ ছবিতে। এর পাঁচ বছর পর অভিনয় করলাম মেজবাউর রহমান সুমনের ‘হাওয়া’ ছবিতে। মাঝে কোনো ছবিতে কাজ করিনি। তবে করতে চাইনি এমনটি নয়। আমি তো আগেই বলেছি, ভালো কাজের অপেক্ষায় ছিলাম। মাঝের সময়টাতে অনেকগুলো সিনেমার প্রস্তাব পেয়েছি কিন্তু ব্যাটে–বলে মেলেনি। মনের বিরুদ্ধে জোর করে কোনো কাজ করতে চাইনি আমি। সিনেমার বেলাতে তেমনটিই হয়েছে।

default-image
বিজ্ঞাপন

‘হাওয়া’ ছবিতে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

দারুণ অভিজ্ঞতা। এই ছবিতে কাজের আগে প্রায় এক বছর ধরে প্রস্তুতি নিয়েছি। তিন মাস শুটিং করেছি। একদল মাঝির গভীর সমুদ্রে মাছ ধরার জার্নি নিয়ে এই ছবির গল্প। গভীর সমুদ্রেই শুটিং হয়েছে। শুটিং করতে করতে বেশ কয়েকবার ভয়ংকর পরিস্থিতির মুখোমুখিও হয়েছিলাম। গভীর সমুদ্রে শুটিং করার সময় চারদিকে পানির বিশালতা দেখে খুব ভয় লাগত। কাজটি করতে অনেক কষ্ট হয়েছে।

কবে মুক্তি পাবে ছবিটি?

এখন ছবির পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ চলছে। চলতি বছরের মাঝামাঝিতে মুক্তির কথা আছে। আমার জন্য এটি বহুল প্রতীক্ষিত কাজ। ছবিটি নিয়ে খুবই আশাবাদী আমি।

default-image

নতুন সিনেমায় কাজের খবর আছে?

একটা ছবিতে কাজের কথা মোটামুটি চূড়ান্ত হয়েছে। এখনো চুক্তি হয়নি। তবে কাজটি করব। এরই মধ্যে ছবিটির চিত্রনাট্য নিয়ে কর্মশালা করেছি। আপাতত ছবির নাম, পরিচালকের নাম বলতে চাচ্ছি না। চুক্তি হওয়ার পর সব বলা যাবে। দু-এক মাসের মধ্যে কাজটি শুরু হতে পারে।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন