মানবিক গল্প দর্শকমন কেড়েছে

বিজ্ঞাপন
default-image

এবারের ঈদে প্রচারিত কিছু নাটকের গল্পে বৈচিত্র্য আনার চেষ্টা করেছেন পরিচালকেরা। মানবিক গল্প তুলে ধরে নাটক বানানোর চেষ্টা করেছেন তাঁরা। এসব মানবিক গল্প দর্শকের মন কেড়েছে। অভিনয়শিল্পীদের অনেকেও নিজেকে দায়মুক্ত করার চেষ্টায় ছিলেন।

বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল ও ইউটিউব প্ল্যাটফর্মে গত ঈদে শতাধিক নাটক ও টেলিছবি প্রচারিত হয়েছে। আলোচনায় এসেছে হাতে গোনা কয়েকটি নাটক। ঈদে প্রশংসিত নাটকের সবকটিই করোনা মহামারির আগে শুটিং করা। ঈদের পর থেকে যেসব নাটক নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশি আলোচনা হচ্ছে, তার মধ্যে ভিকটিম, বোধ, কেন, শহর ছেড়ে পরানপুর, গিরগিটি, টু লেট, ভুল এই শহরের মধ্যবিত্তদেরই ছিল, মা উল্লেখযোগ্য।

default-image

সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে আশফাক নিপুণের ‘ইতি, মা’ নাটকটি নিয়ে। দর্শকের পাশাপাশি বিনোদন অঙ্গনের অনেকেই এই নাটকের গল্প, সংলাপ, নির্মাণ ও অভিনয়ের প্রশংসা করেছেন। নাটকটিতে যেমন এক নতুন আফরান নিশোকে পাওয়া গেছে, তেমনি দীর্ঘদিন পর দর্শকমন জয় করেছেন ঈশিতা। মায়ের চরিত্রে শিল্পী সরকার অপু আর ভাইয়ের চরিত্রে আবির মির্জার অভিনয়ও উল্লেখ করার মতো।

কয়েক বছর ধরে নাটকে অভিনয়শিল্পী নির্বাচনের ক্ষেত্রে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনুসারীর সংখ্যাকে প্রাধান্য দেওয়া হতো বেশি। এ নিয়ে এজেন্সি, টেলিভিশন এবং প্রযোজক–পরিচালকের মধ্যে একটা শীতল দ্বন্দ্ব লেগে থাকত। অথচ গত ঈদে প্রচারিত নাটকের মধ্যে এখন পর্যন্ত যে দুজন অভিনয়শিল্পীকে নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা, সেই অপি করিম ও ঈশিতার ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে নেই লাখ লাখ অনুসারী। তবে দর্শকের হৃদয়ে তাঁরা ঠিকই জায়গা করে নিয়েছেন।

default-image

মোশাররফ করিম অভিনীত বোধ নাটকে যেন বর্তমান সময়ের প্রতিচ্ছবি তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন পরিচালক রাফাত মজুমদার। মোশাররফ করিমের অভিনয়ে এই নাটকে এক চেয়ারম্যানের লোভী ও স্বৈরাচারী মনোভাবের চিত্র ফুটে ওঠে। সমসাময়িক গল্পের এই নাটকে রুনা খান, আশীষ খন্দকারের অভিনয়ও চোখে পড়ার মতো। ভিকটিম নাটকে অপি করিমের অভিনয় দেখে ভক্তরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মন্তব্য করেছেন এভাবে— জাত অভিনয়শিল্পীরা কোনোদিনও অভিনয় ভুলে যান না, যার প্রমাণ অপি করিম। অভিনয়শিল্পীও যে নিজেকে ভেঙেচুরে নতুনভাবে দর্শকের কাছে উপস্থাপন করতে পারেন, তা–ই দেখিয়েছেন নিশো। কেন টেলিছবিতে মুঠোফোনহীন আশির দশকের চট্টগ্রাম শহরের এক সত্যিকারের প্রেমের গল্প তুলে ধরা হয়েছে। গীতিকবি আসিফ ইকবালের লেখা এই টেলিছবির পরিচালক মাহমুদুর রহমান। রাইমা চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেহ্জাবীন ও ঈশিতা এবং আবির চরিত্রে তৌসিফ ও আফরান নিশো।

default-image

মিজানুর আরিয়ানের শহর ছেড়ে পরানপুর একটি অন্য রকম নাটক মনে হয়েছে। নুসরাত ইমরোজ তিশা, ইয়াশ রোহান ও তাসনিয়া ফারিন—সবার অভিনয় ছিল সহজাত। প্রেশার কুকার নাটকে খুব সুন্দর করে বর্তমান সময়ের বাস্তব একটি সমস্যার চিত্রায়ণ এবং সমাধান দিয়েছেন শাফায়েত মনসুর। নির্মাণশৈলীর পাশাপাশি ইরফান ও অপর্ণার অভিনয় এবং সম্পাদনার কাজও ভালো হয়েছে।

ভিন্নধর্মী গল্পের নাটক ও টেলিছবির জন্য দর্শকেরা বরাবরই মুখিয়ে থাকেন। অভিনয়শিল্পী, পরিচালক ও প্রযোজকদের অনেকে এসব নাটক নিজেদের ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করে তা জানানও দিয়েছেন। এমনকি নাটকগুলোর ইউটিউব মন্তব্যের ঘরে ঢুঁ দিলেও তা বোঝা যায়। কিছু মন্তব্যের ভাষ্য এমন— কাউকে অনুকরণ কিংবা অনুসরণ নয়, চারপাশে অসংখ্য অসাধারণ গল্প আছে। এসব গল্প নিয়ে আমাদের পরিচালক, প্রযোজক ও অভিনয়শিল্পীরা ভাবলে নাটকের প্রতি দর্শকের আগ্রহ আবার ফিরে আসবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন