default-image

পারিবারিক একটি ছবির সূত্র ধরে নতুন এক যুদ্ধে জড়িয়ে যান মারজান বেগম। ১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসে একটি অপারেশনে গিয়ে শহীদ হয়েছিলেন তাঁর চাচা সার্জেন্ট মহি আলম চৌধুরী। কিন্তু সেই ঘটনার খবর সহযোদ্ধারা ছাড়া দীর্ঘদিন জানতেন না কেউ, এমনকি পরিবারও। শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাঁর স্বীকৃতি আদায় করতে সংগ্রাম শুরু হয় মারজান বেগমের।

‘দুইটি যুদ্ধের একটি গল্প’ ডকু-ড্রামায় উঠে এসেছে এ সংগ্রামের গল্প। নেপথ্যে নাট্যাংশের মতো উঠে এসেছে মহি আলমের ঘটনা। ডকু-ড্রামাটিতে মহি আলম চৌধুরীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন রিয়াদ রায়হান, মারজান চৌধুরীর চরিত্রে অহনা মিথুন। এ ছাড়া অন্যান্য চরিত্রে মির্জা শাকিব, সাইদুর রহমান, জয়শ্রী মজুমদার ও চট্টগ্রামের নান্দিমুখ থিয়েটারের একদল নাট্যকর্মী।

বিজ্ঞাপন
default-image

মহি আলম চৌধুরী ১৯৩৬ সালে বরিশালের ঐতিহ্যবাহী উলানিয়া চৌধুরী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। এ পরিবারেই জন্মেছেন প্রখ্যাত সাংবাদিক আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী, কবি আসাদ চৌধুরী ও আতিকুল হক চৌধুরী। মহি আলমের মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি আদায়ের কাহিনি তথ্যচিত্রে তুলে আনা হয়েছে। ১৯৭১ সালের ১৭ নভেম্বর বাঁশখালী উপজেলার সাধনপুর বোর্ড অফিস রাজাকার ক্যাম্পে অপারেশনের সময় শহীদ হন সার্জেন্ট মহি আলম চৌধুরী। তাঁর সমাধি খুঁজে পাওয়া যায়নি। একক প্রচেষ্টায় সেসব খুঁজে বের করেন মারজান বেগম। এসব ঘটনা নিয়ে ডকু-ড্রামা ‘দুইটি যুদ্ধের একটি গল্প’-এর চিত্রনাট্য রচনা করেছেন ফাহমিদুর রহমান, পরিচালনা করেছেন ফুয়াদ চৌধুরী।

আজ রাত ১১টায় দীপ্ত টিভিতে দেখানো হবে এটি।

টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন