default-image

উত্তরার একটি শুটিং বাড়িতে চলছিল হাওয়াই মিঠাই নামে একটি নাটকের শুটিং। গত বৃহস্পতিবার সকালে মেকআপ রুমে ঢুকে অভিনেতা ফারুক আহমেদ দেখেন, সবার মুখে ডিরেক্টরস গিল্ড নির্বাচন নিয়ে আলাপ। আগামী শুক্রবার টিভি নাটক নির্মাতাদের সংগঠন ডিরেক্টরস গিল্ডের নির্বাচন। শুধু মেকআপ রুম নয়, শুটিং পাড়ার সর্বত্র এখন চলছে সেই নির্বাচন নিয়ে আলাপ। কারা প্রার্থী হয়েছেন, কে জিতলে নাটকের উন্নতি হবে—এসব নিয়েই চলছে জল্পনা-কল্পনা।

default-image

একক ও ধারাবাহিক মিলে দেশে প্রতিদিন ৩০টির বেশি নাটকের শুটিং হয়। অবসরে সেসব শুটিং ইউনিটে জমে ওঠে আড্ডা। নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী, প্রযোজক ও কলাকুশলীদের সেই আড্ডায় সাধারণ আলোচনা ছাপিয়ে এখন সেখানকার প্রধান আলোচনার বিষয় নির্বাচন।

অভিনেতা ফারুক আহমেদ বলেন, ‘আমাদের নাটকের মান দিন দিন কমে যাচ্ছে। ডিরেক্টরস গিল্ডের নেতারা কতটা পরিবর্তন আনতে পারবেন, আমরা তা নিয়ে আলোচনা করছি। আবার কোন প্রার্থীকে ভোট দিলে নাটকের অঙ্গন বদলাবে, সেসব নিয়েও কথাবার্তা চলছে।’

বিজ্ঞাপন

অভিনেত্রী মনিরা মিঠু বলেন, ‘নির্বাচনে এবার সাজ সাজ রব নেই। এমনিতেই সবাইকে দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হচ্ছে। তারপরও নির্বাচন ঘিরে প্রতিদিনই কিছু না কিছু আলাপ-আলোচনা হয়। এই যেমন আজকের আলোচনার বিষয় ছিল, কে জিতবেন। দেখলাম, সবাই বলাবলি করছেন যে স্বাবলম্বী নির্মাতা, যাঁর নিজের অনেক কাজ আছে, তাঁকে নেতা হিসেবে দরকার। তাহলে তিনি যেমন সংগঠনকে সময় দিতে পারবেন, তেমনি নির্মাতাকে কাজও দিতে পারবেন।’

default-image

গত নির্বাচনে সহসভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন নির্মাতা সকাল আহমেদ। এবার ব্যক্তিগত কারণে তিনি নির্বাচন করছেন না। বৃহস্পতিবার শুটিং ইউনিটের আলোচনার বিষয় প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে আমাদের ইউনিটে শহীদুজ্জামান সেলিম ভাই, এফ এস নাঈম, মৌসুমী হামিদ, অর্ষাসহ অনেকেই আছেন। তাঁদের সঙ্গে আগে নাটক নিয়ে কথা হতো। এখন আলোচনার একমাত্র বিষয় নির্বাচন। কারা বিজয়ী হতে পারেন, তাঁদের নিয়েও আলোচনা করছি।’ বেশ কয়েকজন অভিনেতা জানালেন, কেবল ভোট দিতে যাওয়াই নয়, পছন্দের প্রার্থীর জন্য ভোট চাইছেন তাঁরা। প্রার্থী নিয়ে চলছে তর্ক-বিতর্কও। তবে সেসব মধুর বিতর্ক।

গাজীপুরের পুবাইলে প্রায় ১৫টি শুটিং বাড়ি। সেখানে শুটিং করছেন মোশাররফ করিম, জাহিদ হাসান, তানিয়া আহমেদ, রওনক হাসান, নাদিয়া আহমেদ, আ খ ম হাসান, শামীমা তুষ্টি প্রমুখ।

default-image

এ শুটিং বাড়িগুলো পাশাপাশি। তাই অভিনয়শিল্পীদের পরস্পরের দেখা হয়। বিল বিলাই শুটিং বাড়ি থেকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক অভিনয়শিল্পী বলেন, ‘এখন করোনা চলছে। তারপরও নির্বাচন ঘিরে আমাদের মধ্যে একটা উৎসবের আনন্দ কাজ করছে। এটি নির্মাতাদের নির্বাচন হলেও অনেক অভিনয়শিল্পীই এ নির্বাচনের জন্য ফ্যাক্ট। কারণ, তাঁরা পছন্দের নির্মাতাদের জন্য প্রার্থীদের কাছে ভোট চাইছেনও। অনেকেই তাঁদের অনুরোধ রাখবেন। তবে আমি মনে করি, প্রভাবিত না হয়ে যাঁরা যোগ্য, তাঁদেরই ভোট দেওয়া উচিত। তাহলেই আমাদের নাটক এগিয়ে যাবে।’

default-image

ঠাকুরগাঁওয়ে শুটিং করছেন অভিনেতা সজল। তিনি জানালেন, পরিচিত প্রার্থীদের অনেকেই ফোনে তাঁদের জন্য ভোট চাইতে সজলকে অনুরোধ করছেন। তিনি বলেন, ‘আমার পরিচিত বেশ কয়েকজন নির্মাতা আছেন। তাঁদের বলছি, যাঁরা যোগ্য, যাঁরা নির্বাচিত হলে নাটকের মঙ্গল হবে, তাঁদের ভোট দিন।’

বিজ্ঞাপন
টেলিভিশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন