বছর ঘুরলেই গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে আসে নিত্যনতুন মডেলের গাড়ি। বছরের শেষের দিকে থাকে নানা রকম মোটর শো। এই প্রদর্শনীগুলোয় নিত্যনতুন প্রযুক্তিসমৃদ্ধ গাড়ির পাশাপাশি ভবিষ্যৎ গাড়ি কেমন হতে পারে, তার ধারণাও দেওয়া হয়। দেশের বাজারেও এসেছে বেশ কয়েকটি নতুন গাড়ি। সদ্য আসা ব্যক্তিগত গাড়িগুলো সম্পর্কে জানতে গ্রাহকেরাও ভিড় জমাচ্ছেন গাড়ির দোকানে।

>

২০১৯ সালে অটোমোবাইলস বাজারে আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যের বিলাসবহুল গাড়ি এবং সামর্থ্যের মধ্যে ব্র্যান্ড নিউ হাইব্রিড গাড়ি আসছে। জ্বালানিসাশ্রয়ী গাড়ির প্রতি ঝুঁকছে নতুন প্রজন্ম। নতুন তিনটি গাড়ি নিয়ে এই প্রতিবেদন। 

default-image

অডি এ৮ এল
অটোমোবাইল জগতে বিলাসবহুল গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে জার্মানির অডি অন্যতম। দেশের বাজারে অডি গাড়ি আমদানি করে প্রোগ্রেস মোটরস ইমপোর্টার্স লিমিটেড বাংলাদেশ। বছরের শুরুতে প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে এসেছে নতুন মডেলের একটি গাড়ি—অডি এ৮ এল। গাড়ি চালানো ছাড়া পেছনের সিটে বসেই নেওয়া যাবে এই গাড়ির পুরো নিয়ন্ত্রণ। দ্বিতীয় সারির মধ্যখানের আসনে রয়েছে একটি টাচস্ক্রিন ট্যাবলেট। এই যন্ত্রটির মাধ্যমে শীতে গাড়ির আসনকে উষ্ণ রাখা, আসন সামনে–পেছনে বা উঁচু–নিচু করার ব্যবস্থা, সিট ম্যাসাজ, ভাইব্রেশন, সানরুফ, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র, জানালার পর্দা, এন্টারটেইনমেন্ট স্ক্রিন, টিভি, রেডিও, ব্লুটুথ, ওয়াই–ফাই নিয়ন্ত্রণ, গাড়ির ভেতরের আলো পরিবর্তন করা বা ইন্টেরিয়রে বৈচিত্র্য আনার কাজটি সহজেই করা যায়। পেছনের আসনের যাত্রীদের জন্য রয়েছে দুটি বড় পর্দার স্মার্ট টিভি। সিমকার্ডের মাধ্যমে পুরো গাড়িটিতে ইন্টারনেট সেবা নেওয়া যাবে। গাড়িটিতে এসি ভেন্ট আড়াল করার অপশন রয়েছে। দূরের ভ্রমণে পা সোজা করে বসার জন্য পাদানি রয়েছে। চালকের জন্য রয়েছে ভার্চ্যুয়াল স্পিডোমিটার। গাড়ির গতি, গিয়ার পজিশন এবং অন্যান্য তথ্যের পাশাপাশি এতে গুগল ম্যাপও দেখা যাবে। রয়েছে দুটি সানরুফ।

অওডি এ৮ এলে ৪০০টির বেশি কাজ ইচ্ছেমতো সাজিয়ে নিয়ে করা যায়। চালকের জন্য ৪১টি সহায়ক সিস্টেম রয়েছে। কণ্ঠস্বরের মাধ্যমে গাড়িকে নির্দেশ দেওয়া যায়। ৩০০০ সিসির এই গাড়িটি ০-১০০ গতি তুলতে সময় নেয় মাত্র ৫.৪ সেকেন্ড। ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৫০ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারে। গাড়িটির দামও বেশ চড়া। ৩ কোটি ৬৪ লাখ ৬০ হাজার টাকার স্পিড মেশিনটি নিরাপত্তা এবং আরামদায়কের দিক থেকে এই বছর নেতৃত্ব দেবে বলেই গাড়িবিশেষজ্ঞরা মতামত দিয়েছেন। 

default-image


সুজুকি সিয়াজ হাইব্রিড
মধ্যবিত্তের সামর্থ্যের মধ্যে এই প্রথম উত্তরা মোটরস দেশের বাজারে আনতে যাচ্ছে নতুন (ব্র্যান্ড নিউ) সুজুকি হাইব্রিড গাড়ি। ২০১৯ মডেলের এই গাড়িটিতে স্মার্ট হাইব্রিড প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। ১৫০০ সিসির এই গাড়িটি দেখতেও প্রিমিয়াম। ক্রুইস কন্ট্রোল, পার্কিং সেন্সর, এলইডি প্রজেক্টর অটো হেডল্যাম্পস, ৫১০ লিটার বুট স্পেস, ভয়েস কমান্ড, পুশ বাটন স্টার্ট এবং গুগল ম্যাপসমৃদ্ধ এই গাড়িটি ফেব্রুয়ারি থেকে দেশের বাজারে পাওয়া যাবে। ২৫ লাখ টাকার মধ্যে গাড়িটি পাওয়া যাবে।

উত্তরা মোটরস লিমিটেডের উপপ্রধান বিক্রয় কর্মকর্তা মো. গোলাম মোস্তাফা বললেন, ‘দেশে গাড়ির চাহিদা বাড়ছে। পরিবেশ সংরক্ষণে হাইব্রিড গাড়ির বিকল্প নেই। সুজুকি সিয়াজে উন্নতমানের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। জাপান ও ফিনল্যান্ডের দুটি বিখ্যাত ব্যাটারি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমরা কাজ করছি। এই গাড়িতে মিলবে সর্বোচ্চ বিক্রয়োত্তর সেবা।’ 

default-image


মিতসুবিশি এক্সপেন্ডার
১৫০০ সিসির হ্যাচবেক গাড়িগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্সের নতুন একটি গাড়ি এনেছে র‌্যাংগস লিমিটেড। জাপানের মিতসুবিশির এই গাড়িতে ৭টি আসন রয়েছে। মিতসুবিশি এক্সপেন্ডারে ২০৫ মিলিমিটার গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স থাকার ফলে যাত্রী বোঝাই অবস্থায়ও গাড়িটি যেকোনো উঁচু গতিরোধক সহজে টপকে যেতে পারবে। প্রতিটি আসনে মোবাইল ফোন চার্জ দেওয়ার সুবিধা। দুই এসির এই গাড়ি ইন্দোনেশিয়ায় তৈরি। এতে ২০০ লিটার পর্যন্ত ছোটখাটো জিনিস বহন করা যাবে। ৫.২ মিটার টার্নিং রেডিয়াসে ৭ আসনের গাড়ি হলেও সহজে ঘোরানো যাবে। এতে ১ বছর সার্ভিসিং মেইনটেন্যান্স ও ৩ বছর ওয়ারেন্টি রয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0