default-image

প্রতিযোগিতাটা অ্যাপ তৈরির। পুরস্কারের অঙ্কটাও বড়। সারা দেশের তরুণদের জন্য ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হয় এ প্রতিযোগিতা। ফলাফল ঘোষণা ও পুরস্কার বিতরণ করা হলো গত ২৭ ডিসেম্বর।
‘ইএটিএল-প্রথম আলো অ্যাপস প্রতিযোগিতা ২০১৫’ নামের এ প্রতিযোগিতা তৃতীয়বারের মতো এবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এথিকস অ্যাডভান্সড টেকনোলজি লিমিটেড (ইএটিএল) এবং প্রথম আলো আয়োজিত এ প্রতিযোগিতার এবারের অংশীদার ছিল আইসিটি বিভাগ, গ্রামীণফোন, চ্যানেল আই ও এবিসি রেডিও। ধারণাপত্র জমা নেওয়া থেকে শুরু হয়ে বিচারকদের

default-image

সামনে উপস্থাপন, প্রস্তুতিমূলক কর্মশালা, দ্বিতীয় পর্যায়ের বিচারকাজ এবং সবশেষে ১৬টি সেরা অ্যাপের মধ্যে তৃতীয় দফা বিচারে নির্ধারিত হয় সেরা ১০ অ্যাপ। চূড়ান্ত পর্বে বিজয়ী শীর্ষ তিন অ্যাপের মধ্যে সেরা অ্যাপটি এবার গেম, তাও আবার রিকশা চালানোর খেলা। দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছে নিরাপত্তা ও ভ্রমণবিষয়ক অ্যাপ। প্রতিযোগিতায় প্রথম পুরস্কার ছিল ১০ লাখ টাকা। দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার পাঁচ ও দুই লাখ টাকা। ধারণা বা আইডিয়ার জন্য একটি অ্যাপ পেয়েছে এক লাখ টাকা পুরস্কার। এছাড়া শীর্ষ দশে থাকা প্রতিটি অ্যাপের নির্মাতারাই পেয়েছেন একটি করে স্মার্টফোন। পুরস্কারপ্রাপ্ত অ্যাপগুলো পাওয়া যাবে www.eatlapps.com ঠিকানার ওয়েবসাইটে।
প্রতিযোগিতা নিয়ে ইএটিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ মুবিন খান বলেন, ‘এবারই প্রথম একটি গেম অ্যাপ সেরা হয়েছে। ধারণাপত্র তৈরি করা থেকে শুরু করে অ্যাপ নির্মাণের ক্ষেত্রে আগের চেয়ে মান উন্নয়নের দারুণ কাজ করেছে শিক্ষার্থীরা। বিশ্ব মাতাতে পারে—এমন অ্যাপস তৈরি না হওয়া পর্যন্ত আমরা এ প্রতিযোগিতা চালিয়ে যেতে চাই।’
প্রতিযোগিতার বিচারক দলের সমন্বয়ক রাজেশ পালিত জানালেন এর আগের দুই বছরের চেয়ে এবার গেমস অ্যাপ এসেছে, যা সত্যিই ভালো। পাশাপাশি অনেক ভালো কনটেন্ট-ভিত্তিক অ্যাপও এবার এসেছে। চলতি বছরের সেরা ১৬টির মধ্যে ছিল শিক্ষা বিষয়ে দুটি, গেমস নিয়ে সাতটি, স্বাস্থ্যভিত্তিক তিনটি এবং কৃষি, ব্যবসায়, ভ্রমণ-বিষয়ক ও টুলস নিয়ে একটি করে অ্যাপ।
সেরা তিন অ্যাপ সম্পর্কে জানা যাক এবার।

default-image

রিকশা রেসিং
বিভিন্ন ধরনের জনপ্রিয় রেসিং গেম থাকলেও রিকশা রেসিং তেমন পরিচিত নয়। এ গেমই তৈরি করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘অ্যাসগার্ডিয়ান’ দলের সদস্য ফেরদৌস বিন আলী, রিয়াদ জোনায়েদ, অনিরুদ্ধ পৃথুল ও পরিচয় মণ্ডল। অনিরুদ্ধ পৃথুল বললেন, ‘আমাদের দেশে এখনো গেম তেমনভাবে তৈরি হয়নি। তবে স্মার্টফোনের গেমের একটি বড় বাজার আছে। সে বিষয়টি মাথায় রেখেই আমরা রিকশা রেসিং গেমটি তৈরি করেছি।’ ঢাকার রাস্তায় রিকশা চালানোর অভিজ্ঞতা দেবে গেমটি, যোগ করলেন ফেরদৌস বিন আলী। রিয়াদ জোনায়েদ ও পরিচয় মণ্ডল জানান, কেউ যদি ঢাকায় রিকশা করে ঘুরতে চান বা প্রতিযোগিতায় যুক্ত হতে চান, তাঁদের জন্য গেমটি দারুণ হতে পারে। হাতিরঝিল, মানিক মিয়া অ্যাভিনিউ, শাহবাগসহ ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় চলাচলের সুযোগ পাবেন গেমটি খেলে। এ দলের সদস্যরা স্বপ্ন দেখেন গেমস খাতে আরও বড় কিছু করতে। দেশের তৈরি গেম যাতে সারা বিশ্বে চমক সৃষ্টি করতে পারে, সে লক্ষ্যেই কাজ করে যেতে চান তাঁরা।

default-image


সেফটি এনসিওর্ড

বিপদের সময় দ্রুত প্রয়োজনীয় তথ্য জানানোর সুবিধা নিয়ে সেফটি এনসিওর্ড (নিশ্চিত সুরক্ষা) নামের অ্যাপটি তৈরি করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ভাইকিংস রিইনকারনেটেড’ দলের সদস্য মো. আল-জিহাদ ও সাদ আহমেদ।

অ্যাপটি মূলত বিপদে আশপাশে বা পরিচিত মানুষকে বিপদের বার্তা দ্রুততম সময়ে পৌঁছানোর কাজটি করবে বলে জানান মো. আল-জিহাদ। তিনি বলেন, ‘অনেক সময়ই আমাদের বিপদের তথ্য দ্রুত কাছের মানুষকে জানানোর প্রয়োজন পড়ে। কাজটি যত দ্রুত জানানো যায়, অনেক ক্ষেত্রেই ততটা বিপদ থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব হয়।

 আর এ কাজই যাতে ফোন বা এসএমএসের মাধ্যমে কাছের মানুষের কাছে পাঠানো যায়, সেটি করা যাবে এ অ্যাপের সাহায্যে। সাদ আহমেদ জানান, এ অ্যাপে এছ নিজের ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য ও চিিকৎসার তথ্য সংরক্ষণের সুবিধা।

কখন কোন ওষুধ খেতে হবে সেটাও বলে দেবে এই অ্যাপ। এছাড়া এক ক্লিকে এসএমএস, এক ক্লিকে কল করার সুবিধা রয়েছে এতে। সময় অনুযায়ী এসএমএস, লোকেশন ট্র্যাকার, ব্যক্তিগত তথ্যের ডেটাবেইস তৈরি করা ইত্যাদি সুবিধা দেবে এই অ্যাপ।

default-image

এক্সপ্লোরিং বাংলাদেশ
বাংলাদেশকে সারা বিশ্বে তুলে ধরার ক্ষেত্রে দেশের দারুণ সব ভ্রমণের তথ্য অনলাইনে তুলে ধরা জরুরি। আর সে কাজকেই সহজ করবে আমাদের এক্সপ্লোরিং বাংলাদেশ (বাংলাদেশ অন্বেষা) অ্যাপ।

এতে দেশের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানের নানা ধরনের তথ্য রয়েছে বলে জানান অ্যাপটির নির্মাতা ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির ‘ঝড়’ দলের সদস্য মোহসি মাসনাদ। এ দলের অন্য সদস্যরা হলেন মো. নাফিজ হাসান খান, মো. শিহাবুজ্জামান ও শিহাব হাসান। অ্যাপটিতে বিভিন্ন স্থানের হোটেলের তথ্য, ভওই স্থানের বর্ণনা ইত্যাদি ছবিসহ পাওয়া যাবে, যাতে করে সহজেই অ্যাপটি দেখেই আগ্রহী যে-কেউ ওই স্থানে ভ্রমণ করতে পারেন বললেন নাফিজ হাসান খান।

 মো. সিহাবুজ্জামান ও সিহাব হাসান জানান, অ্যাপটির সাহায্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সেরা সব দর্শনীয় স্থানের বিস্তারিত, গুগল ম্যাপের সহায়তায় বিভিন্ন স্থানের পথনির্দেশনা, নিজের মতো করে পরিকল্পনা এবং নোটিফিকেশনের ব্যবস্থা, হোটেল ও যোগাযোগব্যবস্থার বিস্তারিত, ট্রাভেল ব্লগ ইত্যাদি সুবিধা পাওয়া যাবে।

বিজ্ঞাপন
ফিচার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন