বিজ্ঞাপন

উত্তর: কাবিননামা বা নিকাহনামা বিয়ের একমাত্র লিখিত প্রামাণ্য দলিল। সুতরাং, বিয়েসংক্রান্ত যেকোনো সমস্যায় এর প্রয়োজন হয়। বিয়েবিষয়ক প্রতারণার সবচেয়ে বেশি শিকার হন নারীরা। রেজিস্ট্রেশন না করায় অনেক ক্ষেত্রে বিয়েটি অস্বীকার করা হয়। সন্তানের পিতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। স্ত্রী ও সন্তানকে ভরণপোষণ দেওয়া বন্ধ করে দিলে, স্ত্রীর বিনা অনুমতিতে আরেকটি বিয়ে করলে বা স্ত্রীকে তালাক দিয়ে দেনমোহর থেকে বঞ্চিত করলে বা প্রতারণা করে বিবাহিত থাকা অবস্থায় আর কাউকে বিয়ে করলে স্ত্রীর জন্য বিয়েটি আদালতে প্রমাণ করা অত্যন্ত কষ্টসাপেক্ষ। এসব ক্ষেত্রে স্ত্রী আদালতে কোনো নালিশ করতে চাইলে প্রথমেই বিয়ের প্রমাণ হিসেবে রেজিস্ট্রিকৃত নিকাহনামা আদালতে জমা দিতে হয়।

অন্যদিকে, কেউ নিজের বিয়ে ইচ্ছামতো অস্বীকার করলে বা সন্তানের পিতৃপরিচয় অস্বীকার করতে চাইলে বা সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করতে চাইলে বিয়ে রেজিস্ট্রি হয়ে থাকলে তা করা সম্ভব হয় না।

আপনি তাঁকে বিয়ে রেজিস্ট্রি করার জন্য অনুরোধ করতে পারেন। তবে রেজিস্ট্রেশনের অভাবে বিয়ে প্রমাণ করা অনেক ঝামেলার হলেও আপনার এই বিয়ে বৈধ হবে।

মুসলিম বিবাহ ও বিবাহবিচ্ছেদ (নিবন্ধন) আইন, ১৯৭৪-এর বিধানমতে প্রতিটি বিয়ে নিবন্ধন করা বাধ্যতামূলক এবং এই উদ্দেশ্যে সরকার ম্যারেজ রেজিস্ট্রার নিয়োগ দেবে। প্রত্যেক নিকাহ রেজিস্ট্রার সরকারের নির্ধারিত পদ্ধতিতে প্রতিটি বিয়ে এবং তালাকের পৃথক নিবন্ধন বজায় রাখবেন। আমাদের দেশে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, একজন নিকাহ রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে বিয়ে রেজিস্ট্রি না করে অনেকেই যেমন কোনো মাওলানা বা হুজুরের মাধ্যমে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পাদন করে থাকেন।

আইনে বলা আছে, মাওলানা বা হুজুরের মাধ্যমে, অর্থাৎ ধর্মীয় বিধান মেনে বিয়ে করা হলেও সে ক্ষেত্রে বর বিয়ে যেদিন হবে, সেদিন থেকে পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট নিকাহ রেজিস্ট্রারের কাছে গিয়ে বিয়ের রেজিস্ট্রেশন করবেন। কিন্তু আমরা অনেক ঘটনা দেখতে পাই, যেখানে পরে বিয়েটি আর নিকাহ রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে রেজিস্ট্রি করা হয় না। বিয়ে রেজিস্ট্রেশন করার দায়িত্ব স্বামীর ওপর বর্তায়। তাই স্বামী বিয়ে রেজিস্ট্রি না করলে বা তাঁর দায়িত্ব পালন না করলে দুই বছর পর্যন্ত মেয়াদের বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা তিন হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা বা উভয় শাস্তি হতে পারে।

বিয়ে রেজিস্ট্রি না করলে বিয়েটি অবৈধ হয়ে যাবে না। তবে বৈধ বিয়ের ক্ষেত্রে আপনি ও আপনার ছেলে আপনার স্বামীর সম্পত্তিতে উত্তরাধিকার হিসেবে পরিপূর্ণ অধিকার লাভ করবেন।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন