বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কোন খাবারে কীভাবে মেদ জমে

অনেকেই বলেন, শুধু তো শাক আর সবজি খাচ্ছি, কিন্তু ওজন তো কমছে না। শাকসবজি ঠিক কীভাবে খাচ্ছেন আর কী কী শাকসবজি খাদ্যতালিকায় রাখছেন, এসবের ওপরও নির্ভর করে মেদ জমার প্রবণতা। দেখে নিন কোন সবজি বিপদ বাড়াচ্ছে আপনার শরীরে।

খাদ্যতালিকা থেকে শুধু আলু বাদ দিলেই হবে না, আলুর তৈরি ফিঙ্গার চিপসও অবশ্যই বাদ দিতে হবে। ভেজিটেবল চপ বা অন্য কোনো সবজির তেলেভাজা কিংবা চপ খাওয়া যাবে না। কারণ, সবজির সঙ্গে যে তেল ও ময়দার ট্রান্সফ্যাট শরীরে ঢোকে, তাতে খুব তাড়াতাড়ি মেদ বাড়ে। তাই এসব অভ্যাস বাদ দেওয়া জরুরি। মেদ জমা কমাতে খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিন ফুলকপি ও বাঁধাকপি। এই দুই সবজিতেই মেদ বাড়ানোর উপাদান মজুত আছে। ডায়েটের সময় অনেকেই ফুলকপি আর বাঁধাকপির নানা পদ খেয়ে থাকেন। এ অভ্যাসে কিন্তু ওজন কমা কঠিন হবে।

রেস্তোরাঁয় গিয়ে সবাই যখন গরু-খাসি খাচ্ছে কবজি ডুবিয়ে, আপনি ফরমাশ করলেন সালাদ। কারণ, আপনার ধারণা সালাদ খেলে দ্রুত ওজন কমবে। সালাদ খাওয়া স্বাস্থ্যকর। কিন্তু প্যাকেটজাত সালাদের ড্রেসিংয়ে থাকা ট্রান্সফ্যাট ও অতিরিক্ত লবণ উল্টো শরীরের ক্ষতি করে। তাই সালাদ খেলে বাড়িতে কাটা সালাদে আস্থা রাখুন। আলু তো শুরুতেই বাদ দিয়েছেন, এবার গাজর, বিট—এসব সবজিও যথাসম্ভব কম খান। এসব সবজির শর্করা ওজন বাড়ায়।

ভুট্টার গ্লাইসেমিক ইনডেক্স খুব উচ্চ। সুইট কর্নের শর্করাও ওজন বাড়ায়। তাই ভুট্টাও এড়িয়ে চলুন। আলু ছাড়াও যেকোনো সবজির চিপসই খুব ক্ষতিকর। রোদে শুকিয়ে, লবণ দিয়ে চিপস তৈরি হয়। তাই এতেই খাবারের পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়ে যায়। চিপসে থাকা লবণ শরীরে পানি জমাতে সাহায্য করে। এ কারণে ওজন বাড়ে। তাই এড়িয়ে চলতে হবে যেকোনো সবজির চিপসও। ওজন কমাতে চাইলে কচু খাওয়াও ঠিক নয়। একইভাবে ওল, মুখিকচু—এসব খাবারও বাদ রাখতে চেষ্টা করুন।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন