বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

একটু ব্যায়াম

হালকা দ্রুত ব্যায়াম করতে পারেন। একটু হাঁটা। নয়তো নৃত্যের তালে। জগিং করলেও চলবে। বাড়বে হৃদ্‌হার, শ্বাসহার। হতে পারে শ্বাসের (ব্রিদিং) ব্যায়াম। প্রাণায়াম, কপালভাতির মতো কিছুও। শ্বাস ছাড়ুন, আবার নিন। শ্বাস কিছুক্ষণ ধরে রেখে আবার ছাড়ুন। নেবেন নাকপথে ছাড়বেন মুখপথে। বিছানা ছেড়ে দেখুন, কী চমৎকার সকাল!

আর নয় অ্যালার্ম

ভোরে উঠতে পারেন না। বাজল হঠাৎ অ্যালার্ম। ঘুম ভাঙে, কিন্তু আলসেমি লাগে। আরও কিছু সময় ঘুমের পর ক্লান্তি আসে। আবার ঘুম দেন অনেকে। না, অ্যালার্ম থাকবে দূরে। অভ্যাস হোক প্রকৃতির নিয়মে।

শীতল শাওয়ার

সকালে উজ্জীবিত হবেন। গরম পানি তা করে দেবে শিথিল। শীতল শাওয়ার বা গোসল অবশ্য আপনাকে প্রশান্তি দেবে। ২০১৬ সালের এক গবেষণা বলে, শীতল শাওয়ারে নিঃসরিত হয় নর-এপিনেফ্রিন হরমোন। নর্থ আমেরিকান জার্নাল অব মেডিকেল সায়েন্স–এর এক গবেষণাপত্রে বলা হচ্ছে, শীতল জলের স্নানে শরীরের গভীর টিস্যুর রক্তনালি হয় প্রসারিত। বাড়ে হৃদ্‌হার। রক্তের প্রবাহও বাড়ে। রক্ত চলাচল সরল হয়। সকালে জাগরণ হবে সতেজ। স্নান না করলে মুখে দিতে পারেন শীতল জলের ছিটা।

গন্ধ শক্তিদায়িনী সুবাস উজ্জীবনী

কিছু গন্ধ ও সুবাস সজাগ করে। ধোঁয়া–ওঠা চা, তাজা পেপারমিন্ট, লেমন সেন্ট, এলাচি, রোজমেরি ও কমলার সুবাস মনকে চনমনে করে। এসব সুবাস নিজেকে উজ্জীবিত হতে সাহায্য করে।

প্রাতরাশ

ছোট তবে স্বাস্থ্যকর প্রাতরাশের ভাবনা হোক এমন। আর তাতে প্রোটিন অবশ্যই যেন থাকে। দিনে অনেকক্ষণ সজাগ আর পেট ভরাট রাখার জন্য আটার রুটি, পরিজ, সিরিল, সবজি, ডিম, টুকরো ফল ইত্যাদি খেতে পারেন।

সুনিদ্রার সু–অভ্যাস

৭-৯ ঘণ্টা নিশ্চিন্তে ঘুমাতে হবে। ঘুমান গাঢ় অন্ধকার ঘরে, মানে গুহার মতো। আলো নেই, শব্দ নেই, নেই কম্পিউটার, টিভি, মোবাইল বা রেডিয়াম ঘড়ি। সঙ্গী থাকলে বিশ্রম্ভালাপ কিছুক্ষণ। এরপর আনন্দে ঘুম। অকারণ কৌতূহলে স্বপ্ন দেখা হতে পারে, হোক না। একসময় ঘুমাবেন, একই সময় উঠবেন। হবেন ভোরের পাখি, নিশিপ্যাঁচা নয়।

এরপর সকাল। রাঙা সকাল। ভোরের বাতাস যেন ছুঁয়ে যায় মুখ। চুল হয় এলোমেলো। মনে মনে প্রমোদ ঢালুন, মনের ভেতর একান্তে। কিছু একান্ত সময় থাক না সকালে নিজের জন্য। সুপ্রভাত। নবজাগরণে শুভ সকাল।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন