বিজ্ঞাপন

কোন বেলায় কেমন খাবেন

default-image

সকালের নাশতায় বা দুপুরের খাবারের তালিকায় কম তেল–মসলা দিয়ে রান্না করা মিশ্র সবজি বা সেদ্ধ করা সবজি রাখতে পারেন। আবার রাতে কম তেল–মসলা দিয়ে তৈরি সবজির স্যুপ, চিকেন স্যুপ বা সবজি–চিকেন স্যুপ তৈরি করে খেতে পারেন। দুপুরের খাবারের সঙ্গে বা বিকেলের নাশতায় সালাদ রাখতে হবে। শসা, পুদিনাপাতা শরীর ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে, পাশাপাশি টক দইও কার্যকর খাবার। তাই শসার সালাদে টক দই ব্যবহার করতে পারেন। রাতের খাবারের পর ‘বেড টাইম স্ন্যাকস’ হিসেবে খেতে পারেন টক দই। সকালে রুটি সবজির পরিবর্তে দই, চিড়া, কলা খেতে পারেন। গরমে খিচুড়ি, তেলে ভাজা পরোটা, পোলাও, বিরিয়ানির পরিবর্তে সাদা ভাত খাওয়া ভালো। সঙ্গে পাতলা ডাল, মাছ বা মাংসের সঙ্গে সবজি দিয়ে রান্না করা পাতলা ঝোল ও সালাদকে প্রাধান্য দিতে হবে।

গরম থেকে বাঁচতে আরও যা মেনে চলা দরকার

  • চা-কফি শরীরে পানিশূন্যতা তৈরি করতে পারে। সে জন্য গরমে অতিরিক্ত চা-কফি পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

  • অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে না যাওয়াই ভালো। বাইরে বের হলেও ছায়াযুক্ত স্থানে চলাফেরার চেষ্টা করুন। সঙ্গে রাখুন ছাতা।

  • একবারে বেশি খাবার গ্রহণ করা যাবে না। কারণ, গরমে একবারে অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করলে হাঁসফাঁস লাগতে পারে। সে জন্য অল্প অল্প করে বারবার খাবার গ্রহণ করতে হবে।

  • অস্বাস্থ্যকর পানীয়, চিনিযুক্ত জুস বা কোমল পানীয় পান করা যাবে না। বাড়িতে ফলের রস বা স্মুদি বানালে অতিরিক্ত চিনি বা কোনো সিরাপ যোগ করা থেকে বিরত থাকুন।

  • অপ্রয়োজনীয় শারীরিক পরিশ্রম করা হতে বিরত থাকুন। কর্মক্ষম থাকতে ঘরের মধ্যে হাঁটাহাঁটি করতে পারেন। যাঁরা নিয়মিত হাঁটেন, তাঁরা শুধু সময়ের পরিবর্তন করলেই চলবে অর্থাৎ যাঁরা সকালে হাঁটতেন, তাঁরা সকালে সূর্য ওঠার আগে হেঁটে নিন আর যাঁরা বিকেলে হাঁটতেন, তাঁরা সূর্যাস্তের পরে সন্ধ্যার সময় হাঁটাহাঁটি করতে পারেন।

  • আরামদায়ক ও হালকা রঙের পোশাক নির্বাচন করুন এবং দুবারের বেশি গোসল করা থেকে বিরত থাকুন।

  • গরমে বাইরে থেকে ঘরে এসে অতিরিক্ত তৃষ্ণার্ত থাকার কারণে তৎক্ষণাৎ অনেকেই প্রচণ্ড ঠান্ডা পানি, কোল্ড ড্রিংকস বা ঠান্ডা শরবত পান করে থাকেন। এগুলো একেবারেই অনুচিত, এতে ঠান্ডাজনিত সমস্যা হতে পারে।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন