বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কী হতে পারে এর প্রভাবে

এমনিতে নির্দোষ এই সমস্যা। কিন্তু শয্যাসঙ্গীর ঘুম নষ্ট করতে পারে। আর জীবনসঙ্গী খুব মানিয়ে চলা মানুষ না হলে তা থেকে দাম্পত্য কলহ বা অন্য শয্যায় যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটা বিচিত্র না। আর রাতে ঘুম ভালো না হলে পর্যাপ্ত বিশ্রাম না হলে দিনে থাকবে ঘুমে ঢুলু ঢুলু চোখ। তবে একটা বিপদ আছে, যিনি ঘুমের সময় এমন কথা বলেন, তিনি কিন্তু তা জানেন না। অনেক সময় অনেক গোপন আর ব্যক্তিগত কথা বলা হয়ে যায় তারই অজান্তে। এতে শয্যাসঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্কের হতে পারে অবনতি। এমন ঘুমে কথার সঙ্গে যুক্ত হতে পারে আরও কিছু সমস্যা—ঘুমের মধ্যে হাঁটা, দাঁত কিড়মিড় আর দুঃস্বপ্ন। এমন সমস্যা হলে সারাতে সমর্থ মনোরোগ চিকিৎসকের দর্শন অবশ্য।

কখন দেখাবেন চিকিৎসক

  • পূর্ণবয়স্ক কেউ, যার আগে এমন ঘুমিয়ে কথা বলার ইতিহাস নেই, হঠাৎ করে ঘুমের মধ্যে কথা বলা শুরু করলেন, তিনি চিকিৎসক দেখাতে পারেন।

  • নিদ্রাকথনের সঙ্গে ভয়ংকরভাবে হাত-পা সঞ্চালন আর ঘুমের মধ্যে পূর্বঘটনার মঞ্চায়ন দেখা দিলে।

  • ঘুমিয়ে কথা বলার কারণে শয্যাসঙ্গী বিপর্যস্ত হয়ে গেলে, বিরক্ত হলে।

সমস্যা বুঝে চিকিৎসক দিতে পারেন ওষুধ। কিন্তু সমস্যার প্রকৃতিভেদে তাতে সমাধান না–ও হতে পারে। আজকাল আচরণের জন্য থেরাপি বা কগ্নিটিভ বিহেভিয়ার থেরাপির মাধ্যমে সমাধান করা যায়। আর অনেকে যে ঘুমের মধ্যে হো হো করে হাসেন, সেই বেলা? সে আরেক দিন হবে।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন