বসন্ত বাতাসে মনের মধ্যে আনন্দ আসে, সবকিছু ভালো লাগার দিন আসে। মডেল: ওশিন ও রাব্বি
বসন্ত বাতাসে মনের মধ্যে আনন্দ আসে, সবকিছু ভালো লাগার দিন আসে। মডেল: ওশিন ও রাব্বিছবি: অধুনা

বসন্তে দোলা প্রাণের গভীরে অন্তরে। প্রাণরসে।

কিছু যেন বাতাসে, কেবল ছিটকে আসা পরাগরেণু নয়, বসন্ত–অবসর, বসন্তছুটি, বসন্তে বিয়ে আর বসন্তে ঘর থেকে বাহির, পলাশে রাঙা হওয়া। সবার রঙে রং মেশানো। কিন্তু করোনাকালে সে সুযোগ কই?

আজি বসন্ত জাগ্রত দ্বারে তবু দ্বার আধফাঁক খুলে দেখি যখন ফাগুন লেগেছে মনে মনে। বিজ্ঞানী, অধ্যাপক মাইকেল স্মলেন্সকি টেক্সাস হিউস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বডি ক্লক গাইড টু বেটার হেলথ–এর সহ–লেখক। আমাদের জীবনযাপনের অনেক কিছুর ওপর প্রভাব পড়ে ঋতুবৈচিত্র্য আর দৈনন্দিন দেহছন্দ বা সিরকা ডিয়ান রিদমের। এ হলো জীবনছন্দ। আর আমাদের দেহ আর প্রাণরস আন্দোলিত হয় সময়ের সঙ্গে।

ঋতুর পরিবর্তন। শীতের কুয়াশা আর অন্ধকার থেকে বসন্তের আলোর ভুবন। শীতের জড়তা কাটে। যে মেলানিনের উৎসার বেড়েছিল, তা তখন থিতু হয়ে আসে। ঘুমচক্র আর মেজাজ বদলে মন–মেজাজ ভালো হওয়ার দিন আসে।

কত দিনের আলো তাই মনের মধ্যে আনন্দ আসে, সবকিছু ভালো লাগার দিন আসে। কিন্তু এ সময় কি শর্করা খাবার আগ্রহ বাড়ে আর ওজন বাড়ে শরীরে।

আর এ সময় থাকে ভালোবাসা দিবস। তাই হরমোনের দোলা শরীরে। প্রেম হরমোন অক্সিটোসিন। ভালোবাসার ছোঁয়া পেলে এই হরমোন উৎসারিত হয়। মগজের এক গভীর অন্দর হাইপ থ্যালামাস থেকে নিঃসরণ ঘটে এর।

এই হরমোনের একাধিক কাজ। ভালোবাসার উদ্দীপনে নয় শুধু, সন্তান প্রসব আর স্তন্যপানের সঙ্গেও এটি জড়িত।

২০১২ সালে গবেষকেরা দেখেন রোমান্টিক সম্পর্কের প্রথম পাঠ শুরু হলে রোমান্টিক যুগলের শরীরে নিঃসৃত বেগে হয় এই অক্সিটোসিন। আর ভালোবাসার সব স্তরে এর প্রভাব থাকেই।

কেবল কি তাই! আমাদের আবেগ, সামাজিক আচরণ আর বুদ্ধিবৃত্তিকে প্রভাবিত করে এই হরমোন। ‘তোমার সঙ্গে দেখা না হলে ভালোবাসার দেশটা দেখা হতো না’, এমন গানের সময় অক্সিটোসিনের নিঃসরণের সময়।

এই হরমোনের প্রভাবে মনে আসে বিশ্বাস দুশ্চিন্তা উপশম, আর শিথিলতা। আর মন ভালো হওয়ার ফুরফুরে বাতাস। এভাবে কাটুক এবারের বসন্ত। ঘরে ঘরে। মনে মনে ফাগুন কল্পনা করে। ভবিষ্যতে আমরা আসব দ্বিগুণ হয়ে বসন্ত উৎসবে। বসন্তে ফুল গাঁথবে যখন জয়ের মালা।

শুভ বসন্ত।

বিজ্ঞাপন
প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন