default-image

‘মনসামঙ্গল কাব্য’ থেকে ‘মহাভারত’ প্রতিটিতেই আছে রাগের উপস্থিতি। রেগে গিয়ে কেউ করল যুদ্ধ ঘোষণা, কেউ করল পূজা–অর্চনা। মহাপুরুষ থেকে সাধারণ মানুষ সবারই রেগে গিয়ে নানা কাণ্ড ঘটানোর কথা শোনা যায়। রাগ মূলত মানুষের আশাভঙ্গ, নিষ্ফলতা, ব্যর্থতার প্রতিক্রিয়া। রাগ যেহেতু একধরনের শক্তিশালী নেতিবাচক আবেগ, তাই সেটা কমানো জরুরি।

মনোবিজ্ঞানী আলবার্ট বান্দুরা মনে করেন, ব্যক্তির অনিয়ন্ত্রিত রাগ মূলত তিনি পরিবেশ থেকেই শেখেন। এই একই প্রসঙ্গে মনের বন্ধু ও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকোসোশ্যাল কাউন্সেলর কাজী রুমানা হক বলেন, ‘আপনি দেখলেন পরিবারের কাউকে রেগে গিয়ে গালাগালি করতে, জিনিস ভেঙ্গে ফেলতে বা চিৎকার করতে। তখন এটাই আপনার কাছে রাগের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে স্বাভাবিক মনে হবে। রাগ একধরনের আবেগ, যার বহিঃপ্রকাশ স্বরূপ নানা ধরনের কাজ আমরা করে থাকি। ঠিক যেমন দুঃখ পেলে আমরা কান্নাকাটি করি। তাই সব ক্ষেত্রে রাগ জেনেটিক বিষয় নয়, কিছু ক্ষেত্রে মানুষ দেখে শেখে।’

যেহেতু রাগ কোনো ভালো প্রতিক্রিয়া নয়, তাই মনের ওপর নিয়ন্ত্রণ এনে রাগ কমিয়ে ফেলাই বুদ্ধিমানের কাজ। রাগ কমাতে কাজী রুমানা হক দিয়েছেন কিছু পরামর্শ—

ঝটপট রাগ কমাতে করণীয়

  • রাগ কমানো সবচেয়ে কার্যকর উপায় হলো উল্টো করে ১ থেকে ১০ পর্যন্ত গোনা। এতে রাগ অনেকটাই কমে যায়।

  • যার কারণে আপনি রেগে গেছেন, তার সঙ্গে কথা বা তর্কে না গিয়ে কিছুক্ষণ চুপচাপ থাকুন। রাগ কমে যাবে।

  • হঠাৎ রাগ হলে একবার চিন্তা করুন যে আপনার রেগে যাওয়াটার কারণ যুক্তিসংগত কি না।

  • কী কারণে রাগ হচ্ছে, সেটা বোঝার চেষ্টা করুন। রাগের পেছনের কারণ ধরতে পারলে অনেক সময় রাগ কমে যায়।

  • দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় মানুষ বেশি রাগ প্রকাশ করে। তাই রাগের সময় দাঁড়িয়ে থাকলে দ্রুত বসে পড়ুন। বসে থাকা অবস্থায় রাগ হলে শুয়ে পড়ুন। অর্থাৎ আপনি যে অবস্থায় থেকে রাগ করছেন, সেটা পরিবর্তন করুন। এতে আপনার রাগ কমতে পারে।

  • রেগে গেলে এক গ্লাস পানিও পান করতে পারেন। এতে আপনার মানসিক অবস্থার পরিবর্তন হবে এবং আপনার রাগ কিছুটা কমবে।

  • অল্প সময়ে রাগ কমাতে আপনি বারবার নিঃশ্বাস নিতে পারেন।

  • কথা বলার সময় খেয়াল রাখবেন, আপনি ‘আমি’ জাতীয় শব্দ ব্যবহার করতে।

  • রেগে গেলে চেষ্টা করবেন নিজের মানসিক অবস্থার পরিবর্তন করতে। সেটা হতে পারে গান শুনে, ছবি এঁকে, রান্না করে বা নিজের পছন্দের অন্য কোনো কাজ করে।

বিজ্ঞাপন
default-image

স্থায়ীভাবে রাগ কমাতে করণীয়

  • চেষ্টা করুন প্রতিদিন যোগব্যায়াম বা মেডিটেশন করতে। ফলে আমাদের সহ্যক্ষমতা অনেক বেড়ে যায়।

  • সময়কে মেনে নিতে শিখুন। সব মানুষ এক না, বিষয়টি মেনে নেওয়া জরুরি। নিজের গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোর মাধ্যমেও স্থায়ীভাবে রাগ কমাতে পারেন।

  • সর্বদা ইতিবাচক ভাবনা, ইতিবাচক কথা বলা এবং ইতিবাচক মনোভাব অনুশীলন করার মাধ্যমে রাগ কমাতে পারেন।

  • বর্তমানকে প্রাধান্য দেওয়া জরুরি। ‘অতীতে কী করেছিলাম, এখন কী হবে, ভবিষ্যতে কী করবো,’ এসব না ভেবে বর্তমান নিয়ে থাকা জরুরি। এতে মানসিক চাপ কমে যায়, সেই সঙ্গে রাগও কমে আসে।

  • মানুষকে ক্ষমা করতে শেখা জরুরি। রাগের ক্ষেত্রে ক্ষমা এক মহৎ গুণ।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন