বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রথমবারেই দেখা করা

পরিচয়পর্বের জন্য প্রথম যে তারিখ ঠিক হবে, সেটা কোনোভাবেই আপনার পক্ষ থেকে পরিবর্তন করা যাবে না। আপনি যতই ব্যস্ত থাকেন না কেন, সময় ও তারিখ ঠিক রাখা জরুরি। এটা পরিচয়পর্বের অন্যতম বিনয়। কারণ, এর মাধ্যমে আপনি নতুন পরিবারকে কতটা গুরুত্ব দিচ্ছেন, সেটা বোঝা যায়।

স্বাভাবিক থাকুন

প্রথম দেখায় একটু ভয় থাকতে পারে। তবে তা যেন অস্বাভাবিক না হয়। কথা বলার সময় ঘাবড়ে গেলে তা আপনার বিপরীতে চলে যাবে, বরং পরিবারের সদস্যদের সমন্ধে আগেভাগে সঙ্গীর কাছ থেকে ধারণা নিয়ে রাখুন। এতে কথা বলার সময় আপনি সেগুলো রেফারেন্স হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। এতে সদস্যদের মধ্যে আপনার সমন্ধে একটি ইতিবাচক ধারণা তৈরি হবে। আবার পরিবারের সদস্যরা দ্রুত আপনাকে আপন করে নেবেন।

থাকুন হাস্যোজ্জ্বল

প্রথমবার দেখা হলেও থাকতে হবে হাসিখুশি। কেউ কিছু জিজ্ঞাসা করলে উত্তর দিন আগ্রহভরে। যেন মনে না হয় আপনি কথা বলতে চাইছেন না বা আগ্রহী না। বরং হাসিমুখে উত্তর দিতে পারেন। হয়তো এমন একটি কথা বলল যেটা আপনার পছন্দ না–ও হতে পারে। সেটা আপনি সহজ স্বাভাবিকভাবে গুছিয়ে বোঝাতে পারেন। কিন্তু চট করে রাগ প্রকাশ না করাই ভালো।

আপ্যায়নে এগিয়ে আসা

বাড়িতে হোক বা রেস্তোরাঁয় প্রথম দেখার সময় খাবারের আয়োজন থাকবে নিশ্চয়ই। খাবার টেবিলে এলেই সেটা আগে নিজের প্লেটে নেওয়া যাবে না। অন্যদের প্রথমে নেওয়ার অনুরোধ করতে হবে। খাবার ফরমাশের আগে নিতে হবে তাঁদের পরামর্শ। আপনার পছন্দ জিজ্ঞেস করলে তবেই বলুন। ছেলে বা মেয়ে সবার জন্যই এই পর্ব পার করা জরুরি। যদি পরিচয়পর্ব বাসায় হয়, তাহলে নিজে কোনো একটি পদ রান্না করতে পারেন। সাধারণত ছেলেরা বিষয়টা এড়িয়ে যেতে চান। কিন্তু একবার ভেবে দেখুন, আপনার হবু বউয়ের মা–বাবার সামনে আপনি যদি একটি ডিশ তৈরি করে এনে রাখেন, সেটা আপনার পয়েন্ট বাড়িয়ে দেবে।

ফোন রাখুন নীরব

কথা বলার সময় ফোন ব্যবহার অভদ্রতা। খুব জরুরি ফোন হলে তাঁদের অনুমতি নিয়ে তবেই দূরে গিয়ে কথা বলুন। ফোন এই সময়ে সাইলেন্ট রাখা ভালো। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যখন কথা বলছেন, খেয়াল রাখুন বারবার ফোন দিচ্ছেন কি না। সচেতনভাবে বিষয়টি এড়িয়ে চলুন।

সঠিকভাবে বিদায় নিন

পরিচয়পর্বের শেষে এসে যেন তরি ডুবে না যায়। এত সময় দেখা করে, কথা বলার পর বিদায়ের পর্বটিও যেন ঠিকমতো হয়, খেয়াল রাখুন। চলে আসার আগে সবার সঙ্গে দেখা করে ও বলে আসা ভদ্রতা। পাশাপাশি দেখা করার জন্য ধন্যবাদ তো অবশ্যই দিতে হবে। বিদায়পর্বে সবাই কীভাবে বাড়ি পৌঁছাবে, সেটাও জেনে নিতে পারেন। সঙ্গে গাড়ি থাকলে তাঁদের নামিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব করতে পারেন, তবে সেটাও মার্জিতভাবে। যেন গাড়ি আছে বলে অহমিকা প্রকাশ না পায়।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন