বিজ্ঞাপন

দেয়ালটায় স্বস্তি

দেয়ালের রংটা হোক কোমল, স্নিগ্ধ। অফ হোয়াইট, ধূসর, হালকা নীল, নিউট্রাল রং বেছে নেওয়া যায়। চোখে লাগে, এমন রং দেয়ালে না থাকলেই ভালো। ঘরে কাজের জায়গার অংশের দেয়ালটাকে আলাদা করে নেওয়ার জন্য সেখানটায় আলাদা কাগজ লাগিয়ে নিতে পারেন। কিন্তু খেয়াল রাখুন, যাতে দেয়ালটা খুব বেশি ঝকমকে না হয় কিংবা কাজের সময় দৃষ্টি আর মনোযোগ এলোমেলো করে দেওয়ার মতো না হয়। দেয়ালের তাকে কাগজপত্র সব গুছিয়ে রাখলে প্রয়োজনের সময় সহজেই খুঁজে পাবেন। এই তাক হতে পারে একটু ভিন্ন ধাঁচের। সেখানেও রাখতে পারেন কিছু শোপিস।

আলোর উজ্জ্বলতায়

নির্বিঘ্নে কাজ করতে চাই পর্যাপ্ত আলো। কিন্তু সে আলো যাতে চোখে চাপ না ফেলে, সেটাও খেয়াল রাখুন। দিনের উজ্জ্বল আলোয় কাজ করতে পারলে তা নিঃসন্দেহে দারুণ। বাড়তি আলোর প্রয়োজন হলে টেবিল ল্যাম্প রাখতে পারেন। কিংবা দেয়ালের তাকের নিচের দিকে সংযোগ করে নিতে পারেন আলোর উৎসটি। আলোর উৎস যেদিকেই হোক, আপনার চোখে যেন সেই আলো সরাসরি না পড়ে। আলোর উৎসটা চোখের চেয়ে খানিকটা নিচের উচ্চতায় রাখা হলে চোখে স্নিগ্ধ আলো পাবেন। স্নিগ্ধ আলোয় দারুণ এক কর্মপরিবেশে কাজ করতে পারবেন নিজের সবটুকু দিয়ে।

পরিবেশ হোক নিরিবিলি

বাড়িতে অফিস করার ক্ষেত্রে পরিবেশ হওয়া চাই নিরিবিলি। আপনি হয়তো কোনো জুম মিটিং করছেন, হঠাৎ পেছন দিয়ে কেউ কথা বলতে বলতে এঘর–ওঘর করল। সেটা আপনার জন্য বিব্রতকর হতে পরে। তাই মনোযোগ দিয়ে কাজ করার জন্য আপনার জায়গাটুকু আবদ্ধ করে নিতে পারলে সুবিধা হবে।

প্র অধুনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন