বলিউড

বলিউড

কঙ্গনার বিতর্কিত সাত

বিজ্ঞাপন
default-image

কঙ্গনা মানে ‘ঝড়’। কঙ্গনা মানেই ‘বিতর্ক’। পরিচালক করণ জোহর থেকে রাজনীতিবিদ উদ্ধব ঠাকরে—যে কারোর ঘুম কেড়ে নিতে এক কঙ্গনাই যথেষ্ট। এত দিন তাঁর নিশানায় ছিলেন বলিউড তারকারা। এবার দুঁদে রাজনীতিবিদদের রীতিমতো ঘাম ছুটিয়ে দিয়েছেন এই বলিউড নায়িকা। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকে নানান বিতর্কিত মন্তব্য করে আবার আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে কঙ্গনা। কঙ্গনা রনৌতের আলোচিত ও বিতর্কিত সাত মন্তব্য তুলে ধরা হলো এই প্রতিবেদনে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

১. করণ নেপোটিজমের প্রতীক

বলিউডে প্রথম ‘স্বজনপোষণ’ নিয়ে ঝড় তুলেছিলেন কঙ্গনা। এই বলিউড নায়িকা ২০১৭ সালে পরিচালক করণ জোহরের অনুষ্ঠান ‘কফি উইথ করণ’-এ এসে তাঁকেই রীতিমতো কোণঠাসা করেছিলেন। করণ বলিউডের ‘স্বজনপোষণ’ নীতির ধারক–বাহক বলে কঙ্গনা অভিযোগ করেন। এমনকি করণকে ‘মুভি মাফিয়া’ বলেও আক্রমণ করেছিলেন এই অভিনেত্রী। কঙ্গনা বলেছিলেন, ‘আমাকে নিয়ে কখনো যদি বায়োপিক হয়, তখন আপনি (করণ জোহর) বলিউডের সেই মানুষটি হবেন, যাঁর বহিরাগত পছন্দই নয়। যিনি নেপোটিজমকে আরও বিস্তৃত করেছেন। যিনি একজন মুভি মাফিয়া।’ এমনকি ভারত সরকারের কাছে করণের ‘পদ্মশ্রী’ সম্মান ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন কঙ্গনা।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

২. কুকুরের মতো ব্যবহার

একসময় নাকি বলিউড থেকে কুকুরের মতো ব্যবহার পেয়েছেন—এমন অভিযোগ করেছিলেন কঙ্গনা। এক সাক্ষাৎকারে এই বলিউড নায়িকাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে বলিউডে প্রতিষ্ঠিত হতে তাঁকে কতটা কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। এর জবাবে কঙ্গনা বলেছিলেন, ‘আমি যখন ক্যারিয়ার শুরু করেছিলাম, তখন আমার সঙ্গে কুকুরের মতো ব্যবহার করা হতো। ইন্ডাস্ট্রির মানুষ এমন ব্যবহার করত, যেন কোনো কথা বলার অধিকারই আমার নেই। এই ইন্ডাস্ট্রিতে আমার কোনো প্রয়োজনই নেই। আমি ইংরেজিতে কথা বলতে পারতাম না বলে আমাকে নিয়ে হাসি–তামাশা করা হতো।’

৩. পানীয়র মধ্যে মাদক

নিজের জীবনের অন্ধকার দিকগুলো প্রকাশ্যে আনতে কুণ্ঠাবোধ করেন না কঙ্গনা। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সঙ্গে মাদকের গভীর যোগসাজশ প্রকাশ্যে আসার পরই এক বিস্ফোরক টুইট করেন এই বিটাউন–কন্যা। কঙ্গনা টুইট করে বলেন, ‘আমি তখন নাবালিকা ছিলাম। আমার মেন্টর এতটাই ভয়ংকর হয়ে উঠেছিলেন যে উনি আমার পানীয়ের মধ্যে ড্রাগ মিশিয়ে দিতেন, যাতে আমি পুলিশের কাছে যেতে না পারি। সফলতা পাওয়ার পর বলিউডের নামজাদা ফিল্মি পার্টিতে যাওয়ার প্রবেশাধিকার পাই আমি। আর তখনই আমার পরিচয় হয় বলিউডের জৌলুশের আড়ালে লুকিয়ে থাকা মাদক, মাফিয়ার মতো ভয়ানক দুনিয়ার সঙ্গে।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

৪. আলিয়া কাঠপুতুল

বিটাউন তারকাদের নানা ধরনের জ্বালাময়ী মন্তব্য দিয়ে ঝলসাতেই থাকেন কঙ্গনা। আলিয়া ভাটকে একবার তীব্র আক্রমণ করেছিলেন তিনি। আলিয়ার দোষ ছিল যে কঙ্গনা অভিনীত মণিকর্ণিকা: দ্য কুইন অব ঝাঁসি ছবিটি নিয়ে তিনি কোনো প্রতিক্রিয়া দেননি। আর তাতেই বেজায় চটে যান কঙ্গনা। তিনি আলিয়ার উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘আলিয়ার নিজস্ব কোনো আওয়াজ নেই। করণ জোহরের কাঠপুতুল হয়েই ও থাকতে চায়। আমি ওকে সফল বলে মনে করি না।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

৫. তাপসী-স্বরা বি গ্রেড

শুধু তারকাদের সন্তানেরা নয়। ইন্ডাস্ট্রির বহিরাগত অভিনেতারাও রেহাই পাননি কঙ্গনার কথা থেকে। তাপসী পান্নু এবং স্বরা ভাস্করকে বি গ্রেডের নায়িকা বলে কটাক্ষ করেছিলেন তিনি। কঙ্গনা বলেছিলেন, ‘তাপসী পান্নু আর স্বরা ভাস্করের মতো বহিরাগতরা বলবে যে শুধু কঙ্গনারই করণ জোহরকে নিয়ে সমস্যা আছে। আমরা তো করণ জোহরকে পছন্দ করি। আপনারা যদি করণকে পছন্দই করেন, তাহলে আপনারা এখনো বি গ্রেড অভিনেত্রী কেন? আলিয়া আর অনন্যার থেকে আপনারা ভালো অভিনেত্রী হলেও ভালো কাজ পাচ্ছেন না কেন? এটাই তো প্রমাণ করে বলিউডে নেপোটিজমের প্রভাব কতটা প্রবল।’

৬. মাদক পরীক্ষা হোক

মাদক কেলেঙ্কারি নিয়ে কঙ্গনা চাঁচাছোলা মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘রণবীর সিং, রণবীর কাপুর, ভিকি কৌশল, আয়ান মুখার্জিকে আমি আবেদন করছি, যেন তারা ড্রাগ টেস্ট করিয়ে নেয়। জোর গুঞ্জন যে তারা সবাই কোকেন নেয়। এদের প্রত্যেকের টেস্ট ঠিক এলে কিছু মানুষকে এরা প্রেরণা দিতে সক্ষম হবে।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

৭. মুম্বাই 'পিওকে'

এই মুহূর্তে কঙ্গনার সঙ্গে মহারাষ্ট্র সরকারের বিবাদ চরমে। এই বিবাদ আরও তেতে ওঠে কঙ্গনার এক তীব্র মন্তব্যে। আর এই মন্তব্যের জেরে নেট দুনিয়া উত্তাল হয়ে ওঠে। কঙ্গনা বলেছিলেন যে মুম্বাই পুলিশের সুরক্ষা তিনি চান না। কারণ, মুভি মাফিয়ার থেকে মুম্বাই পুলিশকে এই বলিউড নায়িকা বেশি ভয় পান। আর তার জবাবে শিবসেনার সঞ্জয় রাউত বলেন, ‘কঙ্গনার মুম্বাইতে আসার প্রয়োজন নেই।’ আর এরপরই সেই বিতর্কিত মন্তব্যটি করেন কঙ্গনা। তিনি জবাবে বলেন, ‘মুম্বাইকে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের মতো কেন লাগছে?’ তাতেই লঙ্কাকাণ্ড বেঁধে যায়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন