ফেব্রুয়ারি থেকে আগস্ট—এই ছয় মাসে কোথাও সশরীরে দেখা মেলেনি চিত্রনায়িকা শবনম বুবলীর
ফেব্রুয়ারি থেকে আগস্ট—এই ছয় মাসে কোথাও সশরীরে দেখা মেলেনি চিত্রনায়িকা শবনম বুবলীরকবির হোসেন
default-image

ফেব্রুয়ারি থেকে আগস্ট—এই ছয় মাসে কোথাও সশরীরে দেখা মেলেনি চিত্রনায়িকা শবনম বুবলীর। করোনাকাল শুরুর আগে থেকেই এই অভিনেত্রী লোকচক্ষুর আড়ালে চলে যান। এ নিয়ে শুরু হয় ফিসফাস, গুঞ্জন, বিতর্ক। ‘বুবলী অন্তঃসত্ত্বা’—লোকমুখে এমনটাও শোনা যায়। তবে এসবের কোনো সত্যতা এখনো মেলেনি। আবার সবার সামনেও আসেননি এই নায়িকা।

‘বুবলী কোথায় আছেন, কেমন আছেন?’—এই প্রশ্নের সঠিক জবাব তাঁর চলচ্চিত্রের সহশিল্পী, পরিচালক, ভক্ত কারও কাছেই নেই। বুবলী সর্বশেষ বীর ক্যাসিনো নামের দুটি ছবির শুটিং করছিলেন। দুটি ছবির শুটিং শেষ করে লোকচক্ষুর আড়ালে চলে যান এই নায়িকা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বুবলী অভিনীত এক ছবির পরিচালক বলেন, ‘যা রটে তা কিছুটা হলেও ঘটে। সবই গুজব নাকি সত্যি, সময়ই বলে দেবে।’

বিজ্ঞাপন
default-image

কোথায় আছেন, কেমন আছেন বুবলী

গত ১২ ফেব্রুয়ারি ঢাকার বনানীর এক রেস্তোরাঁয় ক্যাসিনো ছবির গানের শুটিংয়ে শেষবার অংশ নিয়েছিলেন শবনম বুবলী। এরপর থেকে কেউ বলছেন তিনি কানাডায় আছেন, কেউ বলেন যুক্তরাষ্ট্রে, আবার কেউবা বলছেন ঢাকাতেই অবস্থান করছেন বুবলী। তবে শেষ দিনের শুটিংয়ের সময় এই প্রতিবেদককে বুবলী নিজেই বলেছিলেন, চলচ্চিত্র বিষয়ে পড়াশোনা করতে যুক্তরাষ্ট্রে যাবেন তিনি।

গত ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে বুবলীকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রচারিত হয়। তাতে এক চলচ্চিত্র প্রযোজকসহ বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে বুবলীর অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার তথ্যটি প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করা হয়। সেই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘২৫ হাজার ডলার দিয়ে সন্তান জন্মের জন্য বুবলীকে দেশের বাইরে পাঠিয়েছেন চিত্রনায়ক শাকিব খান।’ প্রতিবেদনটি প্রচারের পরপরই বুবলী দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীর সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপ কলের মাধ্যমে যোগাযোগ করে জানান, অন্তঃসত্ত্বা হওয়া ও শাকিব খানের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের বিষয়টি গুজব। তিনি দেশেই আছেন বলে দাবি করেন। মাস দুয়েক আগে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সংগীত পরিচালক এই প্রতিবেদককে জানান বুবলী কানাডায় অবস্থান করছেন। তবে এখনও এই কথার সত্যতা পাওয়া যায়নি।

আছেন তবে ভার্চ্যুয়ালি

করোনাকালে নাটক, চলচ্চিত্র ও সংগীতাঙ্গনের তারকাদের অনেককেই ভার্চ্যুয়াল জগতে বেশ সরব। এ সময়ে সমসাময়িক তারকারা অংশ নিয়েছেন করোনাভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতার প্রচারে এবং বিভিন্ন দাতব্য কার্যক্রমে। তারকারা এই পরিস্থিতিতে বাড়িতে বসেই দিয়েছেন ভিডিও সাক্ষাৎকার, অংশ নিয়েছেন ফটোশুটে, বানিয়েছেন সৃজনশীল ভিডিও কনটেন্ট। কিন্তু কোনোকিছুতেই নেই বুবলী। বুবলীর ফোন নম্বরটি সচল আছে। ফেসবুকেও মাঝেমধ্যে তাঁর পোস্ট দেখা যায়। তবে মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপে তাঁর মন্তব্যের জন্য একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে বুবলী নিরুত্তর ছিলেন। কোনো খুদে বার্তায়ও সাড়া দেননি। এমনকি বুবলীর বড় বোনও কোনো সংবাদকর্মী বা বুবলীর সহকর্মীদের ফোনকলে সাড়া দেন না।

default-image
বিজ্ঞাপন

সহকর্মীরা যা বলছেন

বুবলী অভিনীত সর্বশেষ ছবি ক্যাসিনো। এ ছবিতে বুবলীর নায়ক নিরব। ১২ ফেব্রুয়ারি নিরবের সঙ্গে শেষ দেখা ও কথা হয় এই চিত্রনায়িকার। শেষ দিন বুবলীর সঙ্গে কী কথা হয়েছিল নিরবের? নিরব বলেন, ‘মধ্যরাতে শুটিং শেষ হয়। সবার কাছ থেকে বিদায় নেওয়ার আগে বুবলী আমাকে জানান তিনি কয়েক দিনের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র যাবেন। ফিরেই ক্যাসিনো ছবির প্রচারে অংশ নেবেন। এরপর আর কোনো যোগাযোগ হয়নি।’ একই কথা বলেছেন ক্যাসিনো ছবির পরিচালক সৈকত নাসির, ‘ছবির শুটিংয়ের শেষ দিন আমি বুবলীকে বলেছিলাম, দুই ঈদের মধ্যে ছবি মুক্তি দেওয়া হবে। বুবলী আমাকে বলেছিলেন, “যেখানে যেভাবেই থাকি না কেন, ছবির প্রচারণায় থাকব, চিন্তা করবেন না।”এরপর তো করোনার কারণে ছবি মুক্তি দেওয়া গেল না। পরে বুবলীও যোগাযোগ করেননি, আমিও না। এখন কোথায় আছেন, তা–ও জানি না।’

default-image

বীরসহ অনেক ছবিতে বুবলীর সহশিল্পী ছিলেন মিশা সওদাগর। তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতিও। মিশা জানান, বুবলীর সঙ্গে তাঁর শেষ দেখা গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে, বীর ছবির সেটে। এরপর বুবলীর সঙ্গে দেখা বা কথা হয়নি। মিশা বলেন, ‘কোনো শিল্পীর বিপদের খবর জানতে পারলে অবশ্যই সমিতি তা দেখবে বা কোনো শিল্পীর বিরুদ্ধে কারোর অভিযোগ থাকলে সমিতি ওই শিল্পীর সঙ্গে যোগাযোগ করবে। কিন্তু বুবলীর বেলায় তেমনটি ঘটেনি। সুতরাং তাঁর সঙ্গে যোগাযোগের দরকার হয়নি।’

এদিকে আড়ালে যাওয়ার পর থেকে চলচ্চিত্রাঙ্গনের কারোর সঙ্গে যোগাযোগের খবর না থাকলেও শাকিব খান বলেছেন ভিন্ন কথা। গত ১৯ এপ্রিল প্রথম আলোকেদেওয়া সাক্ষাৎকারে শাকিব খান বলেছিলেন, ‘বুবলীর সঙ্গে কেন কথা হবে না? ফোনে কথা হয়। তিনি আমার সহশিল্পী। আমার সঙ্গে ১১টি ছবিতে নায়িকা হিসেবে অভিনয় করেছেন বুবলী। কথা না বলার কী আছে!’

default-image

বর্তমানে বুবলী কোথাও আছেন, কেমন আছেন, তা এখনো রহস্য। অনেক ভক্তই উদ্বিগ্ন করোনাকালে তাঁদের প্রিয় নায়িকার সুস্থতা নিয়ে। দর্শক আশায় বুক বাঁধছেন হয়তো আড়াল থেকে আলোয় আসবেন শবনম বুবলী। কোনটি সত্য, তা সশরীরে সবার সামনে এসে নিজ মুখে বুবলী কবে নাগাদ বলবেন—তা রহস্যই বটে।

প্রসঙ্গত, এর আগে এভাবেই দীর্ঘ সময়ের জন্য অন্তরালে ছিলেন চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস। পরে ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে পুত্র আব্রাম খানকে নিয়ে জনসমক্ষে আসেন অপু। আব্রামের বাবা শাকিব খান।

default-image
বিজ্ঞাপন
প্র আনন্দ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন