বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লেমনা চন্দের জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকায়। পড়াশোনার শুরু ম্যাপললিফ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে। ২০০১ সালে চলে যান কানাডা। সেখানকার ইউনিভার্সিটি অব টরন্টো থেকে ‘ইন্টিগ্রেটিভ বায়োলজি অ্যান্ড হেলথ স্টাডিজ’ বিষয়ে স্নাতক করেছেন। এরপর আইন বিষয়ে পড়তে চলে যান যুক্তরাজ্য। ইউনিভার্সিটি অব সাসেক্স থেকে ২০১২ সালে এলএলবি ডিগ্রি লাভ করেন। ২০১৭ সালে লিংকন’স ইন থেকে অর্জন করেন বার-অ্যাট-ল ডিগ্রি।

‘আওয়ার কজ’ থেকে পরিচালিত হচ্ছে নানা ধরনের উদ্যোগ। এগুলো বাস্তবায়ন করছেন সংস্থার পরিচালনা পর্ষদ। মাঠপর্যায়ে আছে স্বেচ্ছাসেবকেরা। নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করার জন্য ২০১৬ সালে তিনি পেয়েছেন জাতিসংঘের ‘চ্যাম্পিয়নস ফর চেঞ্জ’ পুরস্কার। তা ছাড়া যুক্তরাজ্যে সংখ্যালঘু নারীদের ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করে পরপর দুবার হয়েছেন ‘এথনিক মাইনরিটি ফিউচার লিডার’।

বিদেশের মাটিতে একজন বাংলাদেশি হিসেবে কিছু অর্জন করতে কেমন লাগে জানতে চাইলে লেমনা বলেন, ‘নিজ দেশকে প্রতিনিধিত্ব করে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কাজ করার মতো গর্বের আর কিছু নেই। বাংলাদেশি হয়ে আমি সব সময়ই গর্ববোধ করি।’

যুক্তরাজ্যে ব্যাংকিং ও বিনিয়োগবিষয়ক আইন নিয়ে কাজ করে থাকেন লেমনা। এ ছাড়া তিনি ‘কমনওয়েলথ বিজনেস উইমেনস নেটওয়ার্ক লিমিটেড’-এর একজন উপদেষ্টা এবং জাতিসংঘের ‘উইমেন্স অ্যাডভাইজারি কাউন্সিল’-এর নির্বাহী কমিটির সদস্য। যুক্তরাজ্য এবং বাংলাদেশে এক হাজারের বেশি যুবককে নানা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া যৌনকর্মী, ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সঙ্গেও কাজ করে থাকেন।

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন