default-image

ঊর্মি বণিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। চট্টগ্রামের হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি নিয়েছেন। গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে হাতে তৈরি গয়না বানানো শুরু করেন তিনি। এ বছর করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে বিদ্যালয় বন্ধ হয়ে গেলে গয়না তৈরিতে একটু বেশিই সময় দিলেন। এতে শিক্ষকতার পাশাপাশি ঘরে বসে মাসে বাড়তি প্রায় ১৫ হাজার টাকা আয় করছেন ঊর্মি।

ঊর্মি গান গাইতেও পারেন। উচ্চবিদ্যালয়ে পড়ার সময় জেলা পর্যায়ে রবীন্দ্রসংগীতে প্রথম স্থানও অর্জন করেছেন। কয়েক বছর ধরে জাতীয় পর্যায়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার কোদালা ইউনিয়নে বাড়ি ঊর্মির। তবে স্বামী, এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে ঊর্মি এখন থাকেন চন্দ্রঘোনার লিচুবাগান এলাকায়। স্বামী পরিতোষ ধর ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। সংসার সামলে চাকরি, গয়না তৈরি ও গানে সময় দেন। আর এ জন্য অনুপ্রেরণা পান তাঁর মায়ের কাছ থেকে।

শখের বশেই গয়না তৈরি শুরু। ঊর্মি বলেন, ‘গয়না কথা নামে একটি ফেসবুক পেজ খুলেছি। নিজের ফেসুবক আইডি ও পেজের মাধ্যমে এই গয়না দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি হচ্ছে। গয়না বানিয়ে সেগুলোর ছবি তুলে ফেসবুকে দিই। ক্রেতারা সেখানে তাঁদের চাহিদা জানান।’ রাঙ্গুনিয়া উপজেলার মধ্যে হলে গয়না নিজে পণ্য পৌঁছে দেন কিংবা বাড়িতে এসে ক্রেতা নিয়ে যান।

ঊর্মি একজন উদ্যোক্তা হতে চান। তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতে ব্যবসার পরিধি বাড়ানোর ইচ্ছা রয়েছে।’ নির্দিষ্ট একটি জায়গা পেলে ও লোকবল নিয়োগ দিয়ে বেশি পরিমাণ গয়না বানিয়ে সরবরাহ করতে চান ঊর্মি বণিক।

মন্তব্য করুন