বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তাবিজ-কবচ, ঝাড়ফুঁকের মাধ্যমে যখন তাঁরা দেখেন বাচ্চা হচ্ছে না, তখন বউকে ছেড়ে দেওয়াই সমাধান মনে করেন স্বামী। মানুষের বাড়ি বাড়ি কাজ করা কিংবা দিন এনে দিন খাওয়া নারীটি নিজের নিয়তি মেনে তাঁদের পথ বেছে নেন। ‘বাচ্চা অয় না, তাই জামাই ছাইড়া দিছে’—এই কথা বলতে কোনো রাখঢাক করতে হয় না। যত সমস্যা সব ভদ্রঘরে। বাচ্চা হচ্ছে না। পরিবারের সদস্যদের কটাক্ষ। বন্ধুমহলে সান্ত্বনার নামে আহা-উঁহু। শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বংশের প্রদীপ দেখার বিলাপ। অনেক সময় সমস্যাটি স্বামীর থাকে। দীর্ঘদিন সন্তান না হওয়ায় চিকিৎসা নিতে যাওয়ার ক্ষেত্রে দেখা যায় স্বামী প্রথমে নিজের চিকিৎসা নিতে চান না। তিনি ধরেই নেন এটা স্ত্রীর সমস্যা। সমাজবদলের সুর ধরে এখন চিকিৎসকের পরামর্শে স্বামীরা স্ত্রীদের সঙ্গে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হচ্ছেন। যখন জানতে পারেন সমস্যাটি স্ত্রীর নয়, তার নিজের, তখন সেই পুরুষটি নীরব থাকেন। কিন্তু পারিবারিকভাবে গঞ্জনা সহ্য করতে হয় নারীকেই। যখন পুরুষের শারীরিক ত্রুটি থাকে, তখন তিনি নীরব থাকেন, আর পুরুষ যখন জেনে যান সমস্যা আসলে স্ত্রীর। তখন তাঁকে পায় কে? দ্বিতীয় বিয়ের মাধ্যমে বংশের প্রদীপের খোঁজে নামেন তিনি।

আয়নার উল্টো পিঠও আছে। স্ত্রীর শারীরিক ত্রুটির কারণে সন্তানের মুখ দেখতে পারবেন না জেনেও অনেক স্বামী সেটা খুব ইতিবাচকভাবে মেনে নেন। ভালোবাসার ঘরে অভাব থাকে না প্রশান্তির। কিন্তু বাদ সাধে পরিবার, সমাজ। তেমনই অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন সাদিয়া সুলতানা (ছদ্মনাম)। সাদিয়া জানান, ‘আমার বিয়ে হয়েছে ১৭ বছর। বিয়ের চার বছরের মাথায় জানতে পারি আমি আসলে মা হতে পারব না। তারপরও দেশে, দেশের বাইরে আমরা অনেক চিকিৎসা নিয়েছি। একটা সময় বুঝতে পেরেছি আসলে চেষ্টা করে কোনো লাভ নেই। সৃষ্টিকর্তা আমাদের জন্য বরাদ্দ রাখেননি। আমার স্বামী খুব ইতিবাচক মানুষ। আমরা দুজন খুব ভালো আছি। নিজেদের কাজ নিয়ে ব্যস্ত, বাসায় পোষা বিড়াল আছে। হাঁটতে, বেড়াতে বা খুব ছোট্ট একটা বিষয়ও দুজন খুব উপভোগ করি। বিয়ের এত বছর পর এসেও। কিন্তু যখন আমরা হাসিখুশি থাকি, নিজেদের আনন্দে রাখার চেষ্টা করি, তখন আমাদের ঘরের মানুষই এমনভাবে তাকায় যে কী নির্লজ্জের মতো বেঁচে আছি আমি। নিয়তি মেনে ভালো থাকা যায়, কিন্তু অনেকেই সেটা বুঝতে পারে না।’

যেমনটা বুঝতে পারেননি নাসরিন, কলিরা। পরিবার, সমাজের মানুষের চোখের ভাষা, মুখের ভাষা ছিল কীভাবে নির্লজ্জের মতো বেঁচে থাকো? সেই ভাষার উত্তর দেন তাঁরা জীবন বিসর্জন দিয়ে। নাসরিন, কলি বুঝতে পারেননি, প্রকৃতির নিয়ম মেনে ভালো থাকা যায়। নিজেকে, নিজেদের ভালো রাখা যায়। সন্তান দত্তক নিয়ে, নিজেদের সৃষ্টিশীল কাজের মধ্যে ব্যস্ত রেখে সময় সুন্দর করে কাটানো যায়। সুন্দর জীবনযাপন, মানুষের জাজমেন্টাল স্বভাব উপেক্ষা করে চলতে পারলে ভবিষ্যতে কলিরা অকালে ঝরে পড়বেন না।

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন