বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বামীর অসুস্থতা বেড়েই চলে। শহরে আসার পর দীপনাও বেকার হয়ে পড়েন। ননদের জমিতে ঘর তুলে থাকছেন। গ্রামের জমি থেকে কিছু ফসল পান। ননদেরা ষষ্ঠ শ্রেণিপড়ুয়া ছেলের পড়ার খরচ দেন। কিন্তু দীপনা জানেন না, এভাবে কত দিন চলতে পারবেন।

করোনাভাইরাস বিস্তারের শুরুর দিকে দীপনা অনলাইনে খাবার বিক্রি শুরু করেন। ‘দীপনার চুমো গরাম’ নামে একটি ফেসবুক পেজ আছে। এখন পাহাড়ি খাবার ও শস্য বিক্রি করা শুরু করেছেন। যখন যা সামনে পান, তা–ই বিক্রি করেন। পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাড়া ঢাকা থেকেও কেউ কেউ পণ্যের অর্ডার দেন।

এ ব্যবসায় লাভ তেমন হয় না জানিয়ে দীপনা বলেন, ‘ব্যবসায় খুব বেশি সময় দিতে পারি না। অসুস্থ স্বামী, সংসার, দুই বাচ্চা নিয়ে সামলানো কঠিন। এ ছাড়া সাহায্যের জন্য যে একজনকে রাখব, সে সামর্থ্যও আমার নেই।’

দীপনা জানালেন, সম্প্রতি চিকিৎসকের কাছে গেলে চিকিৎসক জানিয়েছেন, তাঁর স্বামীর লিভারে টিউমার ধরা পড়েছে। এর চিকিৎসার জন্যও অনেক টাকা লাগবে। তিনি বলেন, ‘সংসার টিকিয়ে রাখা, নিজের ব্যবসা ও স্বামীর চিকিৎসার জন্য কেউ যদি একটু পাশে দাঁড়াতেন।’

দীপনাকে সাহায্য করতে চাইলে—

দীপু চাকমা

সঞ্চয়ী হিসাব নং-১১৯৯০

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড

খাগড়াছড়ি শাখা।

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন