বিজ্ঞাপন

একসময় অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশ মিশনে কর্মরত ছিলেন নাহিদা রহমান সুমনা। সে সময় অস্ট্রেলিয়ায় কনস্যুলারের কাজে তাঁকে প্রতি দুই সপ্তাহে একবার সিডনি যেতে হতো। সেখানকার দুটি ঘটনা এখনো ভুলতে পারেননি। ওই সময়ে কুমিল্লার তানভীর নামের এক শিক্ষার্থীর জটিল ক্যানসার ধরা পড়ে। প্রতি ১৫ দিন পরপর সিডনি থেকে কাজ শেষে ক্যানবেরায় ফেরার পথে তিনি তানভীরকে দেখতে যেতেন। অস্ট্রেলিয়ার উন্নত চিকিৎসার পরও ছেলেটিকে বাঁচানো যায়নি। বিষয়টি এখনো তাঁকে নাড়া দেয়।

অন্যটি হলো অনিয়মিত হয়ে পড়ার কারণে অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন ডিটেনশন সেন্টারে বাংলাদেশিদের কনস্যুলার সুবিধা দিতে তাঁকে যেতে হতো। কিন্তু সেখানে আটক বাংলাদেশিরা তাঁকে অনুরোধ করতেন, যেভাবেই হোক তাঁদের যেন দেশে ফেরত পাঠানো না হয়। তাঁরা ডিটেনশন সেন্টারে হলেও থাকতে চান। তবু দেশে যাবেন না। এমন এক অনিশ্চিত আর দুর্বিষহ জীবন নিয়ে কেন তাঁরা থেকে যাবেন, এটা তাঁকে অবাক করে এখনো।

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন