বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নারী কেন পুরুষের আড়ালে থাকবে

default-image

মেহজাদ গালিব, প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা

চলচ্চিত্রে নারী চরিত্রের উপস্থিতি মেহজাদ গালিবের ভাবনার একটি বিষয়। বেশির ভাগ সিনেমার গল্পে নারী চরিত্রগুলোকে পুরুষ চরিত্রের আড়ালে রাখা হয়। নারীদের আলাদা কোনো চরিত্র নয়; বরং নায়কের মা, নায়কের স্ত্রী বা বান্ধবী চরিত্রেই বেশি দেখানো হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় নারীরা যুদ্ধ করেছেন। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অনেক সিনেমা হয়েছে। হাতে গোনা দু-একটি চলচ্চিত্র বাদে সেই সব সিনেমায় নারীদের প্রত্যক্ষ অবদানের বিষয়টি উপেক্ষিত। এমন ভাবনা থেকে নারী চরিত্রকে প্রাধান্য দিয়ে মেহজাদ তৈরি করতে চান প্রামাণ্যচিত্র। বর্তমানে তিনি নির্মাণ করছেন প্রামাণ্যচিত্র রেবেকা। বাংলাদেশের প্রথম নারী চিত্রনির্মাতা রেবেকাকে নিয়ে তাঁর এই প্রামাণ্যচিত্র। এটির জন্য তিনি সরকারি অনুদানও পেয়েছেন। মেহজাদ গালিব বলেন, ‘রেবেকার প্রকৃত নাম মনজন আরা বেগম। তিনি বাংলাদেশের প্রথম নারী পরিচালক। নারী পরিচালক হিসেবে আমরা যারা কাজ করতে চাই, তাদের কাছে রেবেকা একটি অনুপ্রেরণার নাম। আমি মনে করি নারী নির্মাতাদের পথিকৃৎ হিসেবে তাঁর জীবনসংগ্রাম, চলচ্চিত্র নির্মাণ ও সেই সময় চলচ্চিত্র অঙ্গনে তাঁর অবদান নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা জরুরি। এই তথ্যচিত্রে আমি রেবেকার ব্যক্তিগত জীবন, চলচ্চিত্রজীবন এবং তাঁর শিল্পসত্তাকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।’

হাতে হাত রেখে চলতে হবে

default-image

ফারহানা ফারা, আলোকচিত্রী

ছবি তোলার মধ্যেই নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার পথ খুঁজে পেয়েছেন ফারহানা ফারা। শৈশবে সব সময় সবার কাছে শুনতে হতো ‘কালি’ শব্দটি। নিজেকে নিয়ে তাই সারাক্ষণ হীনম্মন্যতায় ভুগতেন ফারহানা। চারপাশের মানুষ এমন আচরণ করত যে কালো মেয়ের আর বেঁচে থাকার দরকার কী? নিজেকে টেনেটুনে একটি জায়গায় নিয়ে আসার পর হলো বিবাহবিচ্ছেদ। এই বিচ্ছেদের কারণও গায়ের রং!

সবার মুখের কথায়, নিজ জীবনের পরিণতিতে নিজেকে ঘৃণা করতে শুরু করলেন। বার কয়েক চেষ্টা করলেন আত্মহত্যার। এরই মধ্যে ছবি তোলা শেখার ইচ্ছা হলো। শুরু করলেন পড়াশোনা। ফারা বলেন, ‘ছবি তুলতে গিয়ে দেখলাম মনের নেতিবাচক ভাবনাগুলো যেন নেই। ছবি তুলতে ভালো লাগত। আমার তখন আর মরে যেতে ইচ্ছা করত না। মনে হতো বেঁচে থাকা কী সুন্দর! আমার ছবির প্রধান বিষয় নারী। কারণ, জীবনের একটা বড় সময় অবমাননার মধ্য দিয়েই গিয়েছি আমি। তাই চেয়েছি নারীর কষ্ট, তাদের আনন্দ, তাদের মনের গহিন কোণটা আমার ছবিতে ফুটে উঠুক।’

ফারহানা ফারা মনে করেন, নারীরাই পারে নারীদের হাত ধরতে। এভাবে হাত ধরেই পরস্পরকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন