default-image

ব্যবহৃত চশমার ফ্রেম সংগ্রহ করছেন তাঁরা। ব্যবহৃত এই চশমার ফ্রেমগুলো দরিদ্র মানুষকে দেওয়া হবে। তাঁরা তাঁদের প্রয়োজনমতো ফ্রেমে কাচ বসিয়ে নেবেন। এতে খরচটা অনেকটাই কমানো যাবে।

এ ধরনের ব্যতিক্রম উদ্যোগ নিয়েছেন বাইকার ও যাব বহুদূরের প্রতিষ্ঠাতা ও টিম লিডার আতিকা রোমা। এতে সার্বিক সহযোগিতা দিচ্ছেন বেসরকারি সংস্থা উইমেন ইন ডিজিটালের সিইও আছিয়া নীলা। চশমার ফ্রেম পাঠানোর ঠিকানা: উইমেন ইন ডিজিটাল (৪র্থ তলা) ওয়াই/১৩-এ, নূরজাহান রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭।

বিজ্ঞাপন

আতিকা রোমা এ উদ্যোগের নাম দিয়েছেন ‘চশমা ব্যাংক’। চশমা ব্যাংকে ব্যবহৃত চশমা দেওয়ার পর তা বিভিন্ন চক্ষু হাসপাতাল, বিশেষ করে দাতব্য সেবা সংস্থাকে দেওয়া হবে। সেখানে আসা দরিদ্র রোগীরা এ ফ্রেমে নতুন কাচ লাগিয়ে নেবেন। ফেসবুকে ‘চশমা ব্যাংক’ বলে একটি গ্রুপ ও পেজ খোলার পর অনেকেই বিষয়টিতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন, অনেকে তাঁদের ব্যবহার করা কিন্তু আবার ব্যবহারের উপযোগী—সে ধরনের ফ্রেমগুলো পাঠানো শুরু করেছেন।

আতিকা রোমা বললেন, ‘কিছুদিন আগে চোখের চিকিৎসকের ওয়েটিং রুমে বসে আছি। একটু দূরে বৃদ্ধ দম্পতি বসা। তাঁরা চিকিৎসক দেখিয়েছেন, কিন্তু যে ড্রপ আর চশমা কিনতে বলেছেন, তা কেনার মতো টাকা তাঁদের কাছে নেই। লন্ডনে বসবাসরত এক বন্ধুর পাঠানো টাকা টাকা থেকে ওই দম্পতিকে সব কিনে দিলাম। ছোটবেলায় মাকেও দেখেছিলাম ব্যবহৃত চশমার ফ্রেম সংগ্রহ করে রংপুরের লায়ন্স ক্লাবের দাতব্য চক্ষু হাসপাতালে দিয়েছিলেন। মা মারা গেছেন। মায়ের ওই কাজের কথা মনে হওয়ার পর সম্প্রতি চশমা ব্যাংকের উদ্যোগ নিই।’

বিজ্ঞাপন
নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন