৫ বছরে আলোচিত ১৫

স্বামীর কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে ধর্ষণের ১৫টি ঘটনা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, প্রতিটির ধরন এক। দল বেঁধে প্রথমে দম্পতির সঙ্গে তর্কাতর্কি করে বা চাঁদা দাবি করে ‘ঝামেলা’ পাকায় হোতারা। অসহায় স্বামী-স্ত্রীকে সেই ফাঁদে ফেলে পরিস্থিতি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ধর্ষণের সুযোগ তৈরি করে। ২০১৭ থেকে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত প্রথম আলো পত্রিকায় প্রকাশিত ধর্ষণের সংবাদ বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, স্বামীর কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে বা স্বামীকে আটকে রেখে ধর্ষণ ও দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১৫টি। মা-বাবাকে বেঁধে রেখে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১টি। শিশু ছোট বোনের সামনে বড় বোনকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১টি। সন্তানদের জিম্মি করে মাকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৫টি। এর মধ্যে এক মা আবার অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। এ ছাড়া পরিবারের লোক, স্বজন, বন্ধু, প্রতিবেশী, পূর্বপরিচিত, স্বামী ও স্বামীর সহায়তায় স্বামীর বন্ধুদের ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৪৭ জন নারী ও শিশু।

নয়টি পত্রিকায় প্রকাশিত খবর ও নিজস্ব তথ্য যাচাই করে বেসরকারি সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) জানিয়েছে, ২০১৭ সালে ৮১৮, ২০১৮ সালে ৭৩২, ২০১৯ সালে ১ হাজার ৪১৩, ২০২০ সালে ১ হাজার ৬২৭ এবং ২০২১ সালে ১ হাজার ৩২১টি ধর্ষণের সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তথ্য অনুসারে, ২০২০ সালে শুধু রাজধানীতেই ধর্ষণ, দলবদ্ধ ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর হত্যার মামলা হয়েছে ৬৫৪টি। আর ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত মামলা হয়েছে ৬৫২টি।

তিন মামলার খোঁজখবর

উল্লিখিত তিনটি মামলার পরবর্তী অবস্থা জানতে খোঁজ নিয়েছে প্রথম আলো। বরগুনার মামলাটির বিষয়ে জানতে বেতাগী থানায় যোগাযোগ করা হলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম বলেন, ঘটনার সময় তিনি থানার দায়িত্বে ছিলেন না। ওই ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(৩) ধারায় দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে ছয়জনকে আসামি করে মামলা হয়। মামলাটি সম্পর্কে আরেকটু জানতে মামলাটির তৎকালীন তদন্তকারী কর্মকর্তা পিরোজপুরের ইন্দুরকানি থানার ওসি হুমায়ুন কবিরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় ধর্ষণচেষ্টা উল্লেখ করে তিনি অভিযোগপত্র দিয়েছিলেন। ‘শিক্ষকের পরিধেয় বস্ত্রে যে সেমেন (বীর্য) পাওয়া গেছে, তা আসামিদের সঙ্গে মেলেনি।’ তাঁর স্বামীর সঙ্গে মিলেছে কি না, তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ঘটনার পরদিনই শিক্ষকের স্বামী ভারতে চলে যান। পরে শুনেছি ভারত থেকে তিনি বিদেশ চলে গেছেন। তাঁরটা মেলানো সম্ভব হয়নি।’ অভিযোগপত্রে কতজনকে আসামি করা হয়েছিল, তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘২০১৭ সালের ঘটনা। এত কিছু মনে নেই।’

বানারীপাড়ার ঘটনায় মামলার পরপর সুমন মোল্লাকে গ্রেপ্তার করা হয়। বানারীপাড়া থানার ওসি হেলাল উদ্দিন বলেন, মামলাটি এখন বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। আসামি সুমন মোল্লা জামিনে মুক্ত আছেন।

ঘোড়াশালের ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগে দুজনকে আটক করা হয়। ভৈরব রেলওয়ে থানার ওসি ফেরদৌস আহমেদ বিশ্বাস বলেন, এখন পর্যন্ত দুজনই গ্রেপ্তার আছেন। আরেকজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আসামিদের ডিএনএ সংগ্রহের জন্য আদালতে আবেদন করা হয়েছে।

প্রতিকারের উপায় কী

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মেখলা সরকার বলেন, ‘ঘটনাগুলো থেকে বোঝা যায়, স্বামী সঙ্গে থাকলেই যে মেয়েটি নিরাপদ থাকতে পারবেন, তা নয়। এ ধরনের ক্ষেত্রে বখাটেরা দল বেঁধে স্বামী-স্ত্রীর সঙ্গে ঝামেলা বাধানোর মতো পরিস্থিতি তৈরি করে। না বুঝেই তাদের পাতা ফাঁদে পা দেন ভুক্তভোগীরা। এ ধরনের পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার মতো সতর্কতা ও দক্ষতা অর্জন করতে হবে।’ তাঁর মতে, ধর্ষকদের মধ্যে ব্যক্তিত্বের সমস্যা আছে। অনেকে নেশা করে বলে তাদের বিবেচনাবোধও কমে যায়। নারীর ওপর ক্ষমতা দেখিয়ে তারা নিজেদের গ্যাংয়ে বাহবা নেয়। মানসিক বিষয় এখানে গুরুত্বপূর্ণ। তাই স্কুল থেকে যৌনশিক্ষার ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। যৌনতার মধ্যে যে সৌন্দর্য আছে, সম্পর্কের প্রতি যে দায়িত্বশীল হতে হয়, কিশোর বয়স থেকে সেটা তাদের শেখানো জরুরি।

স্বামী বা পরিবারের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনাকে পরিপূর্ণ, পরিকল্পিত ও সংঘটিত অপরাধ বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান খন্দকার ফারজানা রহমান। তিনি বলেন, ‘কোনো মেয়ে একা হলে, অভিভাবকহীন থাকলেই তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে প্রচলিত যে ধারণা ছিল, তা পাল্টে দিচ্ছে এসব ঘটনা। রাজনৈতিক ছত্রচ্ছায়াসহ বিভিন্ন কারণে ওই অপরাধীরা এখন অনেক বেশি সংগঠিত ও শক্তিশালী। কোনো দম্পতির ক্ষেত্রে স্বামীর শারীরিক অবস্থা, অনেক ক্ষেত্রে আর্থিক অবস্থা যাচাই করে তারা ধর্ষণের পরিকল্পনা করে। বিচারহীনতার সংস্কৃতি দূর করে এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কার্যক্রম জোরদারের মাধ্যমে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করে এসব ঘটনা প্রতিকার করতে হবে।

প্রতিকারের উপায় আসলে আমরা সবাই জানি, কিন্তু সেগুলোকে সত্যিকারভাবে কার্যকর করতে উদ্যোগী হবে কে?

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন