বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ছেলেদের সঙ্গে খেলাটা নিশ্চয় আন্তর্জাতিক মঞ্চে বাড়তি সুবিধা দিয়েছে?

শাহেদা আক্তার: হ্যাঁ। এটা সত্যি যে শুরুতে ছেলেদের সঙ্গে খেলে আসার কারণে তখন থেকেই আমার স্কিলে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। যদিও ওই সময় ছেলে আর মেয়েদের খেলায় শারীরিক পার্থক্যটা খুব বেশি দেখা যায় না। ছেলেদের সঙ্গে খেলাটা আমাকে ভালো ফুটবলার হতে সাহায্য করেছে। আমার অল্প কিছুদিনের ফুটবল ক্যারিয়ারে ওই সময়ের অভিজ্ঞতাই সবচেয়ে আনন্দের, সবচেয়ে মজার।

তখনকার কোন স্মৃতিটা বেশি মনে পড়ে?

শাহেদা আক্তার: আসলে শুরুর দিকে আমাকে ছেলেরা খেলতে নিতে চাইত না। সবাই আমার দিকে কেমন করে তাকাত। কিন্তু যখন ছেলেদের সঙ্গে সমানতালে ফুটবল খেলতে শুরু করি, তখন ছেলেরাও বুঝতে পারে আমিও ভালো খেলি। এর পর থেকেই ছেলেরা আমাকে দলে নিতে শুরু করে।

অনূর্ধ্ব-১৫ সাফের জন্য ডাক পেলেন কবে?

শাহেদা আক্তার: আমি প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলি ২০১৮ সালে বিকেএসপির হয়ে। সেটা ছিল দিল্লিতে সুব্রত মুখার্জি কাপ। ওই টুর্নামেন্টে প্রথম ম্যাচেই ৪০ সেকেন্ডে গোল করেছিলাম। এটা দেখে অনেকে অবাক হয়েছিল। তখন থেকেই ভাবতাম, কবে জাতীয় বয়সভিত্তিক দলে খেলব। এরপর যুব গেমসে ভালো খেলার পুরস্কার পেলাম। ২০১৮ সালে ভুটানে অনূর্ধ্ব-১৫ সাফে সুযোগ পেয়েছিলাম। সেমিফাইনালে ভুটানের বিপক্ষে জয়ের ম্যাচে গোল করেছিলাম। আসলে তখন থেকেই বাফুফের ক্যাম্পে আছি। মারিয়া (মান্দা) আপু, সানজিদা (খাতুন) আপুদের সঙ্গে ক্যাম্পে থাকতে খুব ভালো লাগে।

default-image

এলাকার সবাই তো আপনাকে কক্সবাজারের মেসি বলে। আপনার প্রিয় খেলোয়াড় কি লিওনেল মেসি?

শাহেদা আক্তার: আমি বল পেলে এক দৌড়ে বক্সের মধ্যে ঢোকার চেষ্টা করি, এ জন্য সবাই আমার খেলা দেখে মেসি বলে ডাকে। কিন্তু আমার প্রিয় খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

খেলতে গিয়ে পরিবার থেকে কি কখনো কোনো বাধা এসেছে?

শাহেদা আক্তার: এ ক্ষেত্রে নিজেকে সৌভাগ্যবতী মনে করি। কারণ, মা-বাবা ও এলাকার মানুষ কোনোদিন নেতিবাচক কিছু বলেনি।

আপনার পরিবারে কে কী করেন?

শাহেদা আক্তার: আমার বাবা জালাল আহমেদ আগে দিনমজুরের কাজ করতেন, এখন কিছু করেন না। মা গৃহিণী, নাম শামসুন্নাহার। আমরা তিন বোন, এক ভাই। আমি মেজ।

default-image

ফুটবল আপনাকে কতটা বদলে দিয়েছে?

শাহেদা আক্তার: ফুটবল খেলে আমার জীবনটাই বদলে গেছে। এখন অনেক মানুষ আমাকে চেনে। এবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক অভিনন্দন পাচ্ছি। আগে একসময় উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কাজ করতেন আমার ভাই। টানাটানির সংসার ছিল আমাদের। ফুটবল খেলে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে টাকা পেয়েছি, বাড়িতে এখন বিল্ডিং উঠেছে। গত অক্টোবরে আমরা মাটির ঘর ছেড়ে সে ঘরে উঠেছি।

ফুটবল নিয়ে কী স্বপ্ন দেখেন?

শাহেদা আক্তার: এখনো জাতীয় দলে খেলা হয়নি। আমি এরপর জাতীয় দলে খেলতে চাই। জাতীয় দলের হয়েও াবে গোলের পর গোল করতে চাই।

নারীমঞ্চ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন