বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বড় আমগাছের মুকুল একসময় সবুজ আমের গুটির রূপ পেল। গুটি থেকে হলো গোলগাল বড় বড় আম। একসময় আম পেকে হলো সিঁদুরে লাল। কী টসটসে! সুবাসে ম-ম চারপাশ।

ছোট আমগাছ রোদে পাতা মেলে না। বড় আমগাছের ছায়ায় গুটিসুটি পড়ে থাকে। তাই খাবারও ঠিকমতো পায় না। শরীরে জোর পায় না। সে শুধু পড়ে পড়ে ঘুমায়। আর গল্পও করে না।

ওদিকে রোদ পেয়ে পেয়ে দশাসই হয়ে ওঠে বড় চারাগাছ। কিন্তু ছোট চারাগাছ ছোট আর রোগাই থেকে গেল। এমনি করে মাস গেল, বছর গেল।

একদিন বড় চারাগাছের শাখায় শাখায় দেখা দিল মুকুল। কাঁচা হলুদ রঙের মুকুল। তাতে কত যে মৌমাছি এল। প্রজাপতিরা দল বেঁধে নাচল। মাকড়সা বুনল জাল। সব ওই বড় আমগাছটাকে ঘিরে। ছোট আমগাছ সব দেখে অবাক।

বড় আমগাছের মুকুল একসময় সবুজ আমের গুটির রূপ পেল। গুটি থেকে হলো গোলগাল বড় বড় আম। একসময় আম পেকে হলো সিঁদুরে লাল। কী টসটসে! সুবাসে ম-ম চারপাশ।

ছোট আমগাছের মন আরও খারাপ। ওর মুকুল হলো না, গুটি এল না, আমও হলো না। একটাবারের জন্য মৌমাছিও এল না ওর শাখায়। বড় আমগাছের সব হলো। ওর হলো না কেন?

পড়ে পড়ে ঘুমিয়েছে বলে?

গায়ে রোদ মাখেনি বলে?

তা নয়তো কী!

বড় আমগাছ তখন বলল, ‘কী ভাবছিস অত? সব হবে! আমার ছায়া থেকে আগে সরে দাঁড়া তো! তারপর ডালপালা মেলে, গায়ে রোদ মাখ ভালো করে!’

গোল্লাছুট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন