বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
একে একে সব বিড়ালের দৃষ্টি আমার দিকে ঘুরে গেল। আমি তখন ভয়ে কাঠ। হঠাৎ বড় বিড়ালটিও ম্যাও ম্যাও করে উঠল, ‘এত দেরি করে মিটিংয়ে এলি কেন?’

পূর্ণিমার রাত। আকাশে ইয়া বড় চাঁদ। চাঁদের আলোর কাছে টর্চের আলো নেই হয়ে গেল। তাই টর্চটা পকেটে পুরে ছাদে পা রাখলাম। দুই কদম যেতেই চোখ ছানাবড়া। বিড়াল তো এক-দুটি নয়, শ খানেক! ছাদজুড়ে বসে আছে ওরা! ভিড়ের মধ্যে একটা কাঠের বাক্সের ওপর সাদা রঙের একটা বড়সড় বিড়াল বসে আছে। ভালো করে লক্ষ করতেই বুঝলাম, বিড়ালটা আমাদের এলাকার নয়। এত বড় আর লোমশ বিড়াল আগে কখনোই আমার চোখে পড়েনি।

হঠাৎ দেখি, একটা বিড়াল আমার দিকেই চেয়ে আছে। আমি ওর দিকে তাকাতেই ম্যাও করে উঠল। অথচ আমি স্পষ্ট বুঝতে পারলাম, বিড়ালটা বলছে, ‘এতক্ষণে এলি?’

একে একে সব বিড়ালের দৃষ্টি আমার দিকে ঘুরে গেল। আমি তখন ভয়ে কাঠ। হঠাৎ বড় বিড়ালটিও ম্যাও ম্যাও করে উঠল, ‘এত দেরি করে মিটিংয়ে এলি কেন?’

ওর কথা শেষ হতে না হতেই কানে প্রচণ্ড ব্যথা টের পেলাম। দেখি, একটা বিড়াল আমার কান কামড়ে ধরেছে। হাত দুটির দিকে চোখ পড়তেই আঁতকে উঠলাম। বিশাল নখ আর লোমশ এই হাত তো আমার নয়। ও মা! একটা লেজও দেখা যাচ্ছে! কিছু না ভেবেই লেজটা ধরে একটা টান মারলাম। প্রচণ্ড ব্যথায় মাথা ঘুরে গেল। তার মানে লেজটা আমারই! ততক্ষণে দেখি, আরও দুটি বিড়াল থাবা উঁচিয়ে আমার দিকে এগিয়ে আসছে। আর থাকতে পারলাম না। উল্টো ঘুরে ছুট লাগালাম চার পায়ে। একেবারে ঘরের ভেতর ঢুকে তবে থামলাম। মাথার ঘাম মুছতে গিয়ে দেখি, আবার স্বাভাবিক হয়ে এসেছে হাত দুটি। যাক বাবা, বাঁচা গেল!

এখনো মাঝেমধ্যে আমাদের ছাদে বিড়ালদের সভা বসে। আমি কী করে যেন বুঝতে পারি। তবে গিয়ে দেখে আসার সাহস আর হয় না!

গোল্লাছুট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন