আপনার রাশি

মেষ ২১ মার্চ-২০ এপ্রিল। ভর # ৬

প্রায় প্রত্যেক লেখকই কোনো এক পাঠকগোষ্ঠীকে মাথায় রেখে তাঁর বই ইত্যাদি লিখে থাকেন। আমার টার্গেটেড পাঠক ৭০-৭৫ ভাগই তাঁরা, বয়সে যাঁরা তরুণ। যা-ই হোক, চলতি সময়ে এসেছে গোমড়া এবং হাস্যমুখী কিং কিং তং তং, অর্থাৎ কিশোর-কিশোরী-তরুণ-তরুণীদের জন্য রোমান্স ঘটার এক মোক্ষমকাল। নিজের রোমান্টিক সম্ভাবনার কথা শুনে অন্তত আমি তো কাউকে অখুশি হতে দেখিনি। তাই আমি আমার জইতিশীয় নাম্বার-থ্রি চক্ষুর দৃষ্টি দ্বারা দেখতে পাচ্ছি, বালকের দল দন্ত বিকাশ, এবং বালিকাগণ স্মিত হাসি মেরে নিজেদের দামি আয়নাগুলোর দাম উশুল করে নিচ্ছেন। অক্কে ইয়াং লেডিজ অ্যান্ড জেন্টলম্যান, আমার বিকাশ নং জানতে চেয়ে মেসেজ পাঠাতে শুরু করে দিন

বৃষ ২১ এপ্রিল-২১ মে। ভর # ১

বৃষ নাং পুং, অর্থাৎ নারী-পুরুষ, বিশেষত রুচি ও ফ্যাশনের শীর্ষ আসনটি দখল করে রাখেন। চলতি সাত দিনের মধ্যে এ নিয়ে আপনাকে ঘিরে একটি জোশাত্মক ঘটনা ঘটবে। এতে আপনার বন্ধু, অনুরাগী, অনুসারী, ভক্ত ইত্যাদি বেড়ে যাবে। আপনার যেকোনো ধরনের বৃদ্ধিই হবে আমাদের আনন্দ বৃদ্ধির কারণ।

মিথুন ২২ মে-২১ জুন। ভর # ৬

শর্তপ্রযুক্ত অবস্থায় আগে উপরের সিনিয়র বোনভাইদের খোপ দুটি পড়ে আসুন। না পড়লেন তো এ সপ্তাহের রাশিফলটা আর পেলেন না। আরে বোকা, ওখানে তো সাপ্তাহিক মিথুনকে জড়িয়ে অনেক কথা বলা হয়েছে!

বিজ্ঞাপন

কর্কট ২২ জুন-২২ জুলাই। ভর # ২

চারুকলা অনুষদ তো আগে ছিল একটা ইনস্টিটিউট। সেখানে ভর্তি হয় রোগা লম্বা একটি ১৫ বছরের কিশোর। সে এতটাই লাজুক এবং ভিতু যে কোনো নারী সহপাঠীর দিকে তাকাতে পারত না। কাজেই বলা বাহুল্য পুরোটা ছাত্রজীবন তো বটেই, কর্মজীবনের মধ্যভাগে গিয়ে, ২৮ বছর বয়সে প্রথম সে উন্মাদ হয়ে ধন্য হলো। প্রিয় কর্কট, ওই ব্যক্তির নাম আপনার জানবার দরকার নেই। সে কর্কটও নয়। তবে চলতি সপ্তাহে আপনি হয়তো গেয়ে উঠবেন, এ কী সোনার আলোয় জীবন ভরিয়ে দিলে, ওগো বন্ধু, ইত্যাদি।

সিংহ ২৩ জুলাই-২৩ আগস্ট। ভর # ১

তরুণ বয়সী সিংহ এবং সিংহী তো এমনিতেই দুর্দান্ত। তবে তরুণ সিংহ নরনারী ঝগড়াঝাঁটি একেবারেই পছন্দ না করলেও অনেক সময় বাধ্য হয়েই হয়তো করে বসেন। তখন আশপাশের লোকজনের ত্রাহি অবস্থা দেখা দেয়। আমি জানি, সিংহের গর্জন ৫ মাইল দূর থেকেও পরিষ্কার শোনা যায়। ওটা শুনেই নাকি বহু জুনিয়র জানোয়ারের হার্ট ফেল ঘটে। সো ডিয়ার সিংহ, মানুষের জন্য একটু দয়ামায়া রাখতে মর্জি হয়। আপনার দয়ালু অন্তর সম্পর্কে আমি নিজেই আমার লেখা ভাগ্য জানার উপায় বইটিতে বিস্তারিত লিখেছি। হাওএভার, চলতি সাতটি দিন, মেরে ভাইস-বোনস, জারা সামহালকে চালনা।

কন্যা ২৪ আগস্ট-২৩ সেপ্টেম্বর। ভর # ২

সুদর্শন গ্রিক দেবতাদের পাথরের ভাস্কর্যগুলো যেমন মানুষের চোখ আটকে দেয়, তেমনই এক তরুণ কন্যা পুরুষকে দেখতাম একসময়। তার দৈহিক ও মানসিক সৌন্দর্য ছিল সমান। তবে এতটাই লাজুক ছিলেন তিনি যে, প্রেম করতে পেরেছিলেন ৪০ বছর বয়সের কাছাকাছি গিয়ে। দেখুন, সব কন্যা নারী এবং পুরুষই কমবেশি রোমান্টিক মনের মানুষ। তবে নিজের ভালোবাসার স্বার্থে অন্য কারও ক্ষতি করতে এরা অক্ষম। কষ্ট হলে এরা হয়তোবা শোনেন পিন্টু ভট্টাচার্যের সেই গানটি, ‘আমার দুখের রজনী আমারই থাক’। এ গানটি আপনার জন্য প্রযোজ্য না–ও হতে পারে। তবু মনে এল বলে বললাম। যেকোনো মানুষের আসল সৌন্দর্য ছড়িয়ে পড়ে তাঁর হাসিতে। ইংল্যান্ডের রানি বলেছেন, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। কিন্তু আমি নিজে বরাবরই বলি, হাসিমুখের জয় সর্বত্র। জয় হোক আপনার!

তুলা ২৪ সেপ্টেম্বর-২৩ অক্টোবর। ভর # ২

ইন দ্য ইয়ার টু থাউজেন্ড তিন কিংবা চার, আমার কাছে আসে মফস্বলের একটি হ্যানসাম অ্যান্ড ওভারস্মার্ট কিশোর। তার পরনে জিনস, টি–শার্ট ও সাদা কেডস। আমি মুগ্ধ। বসবার আগেই বলল, ছার, আমি কটন রাশির জাতক। অল্প কিছু হাত দেখতে আমিও শিখসিলাম। ‘ভাইগ্য’ক্রমে বেশির ভাগ ভুইলা গেসি। বলল, তার মূল সমস্যা দুইজন। একজন তার বাবা, আর অন্যজন তার জিএফ। ওটা আমি বুঝি না বলতেই বেরিয়ে এল পানের রসে রঞ্জিত ওর বড় বড় দাঁতগুলো। একগাল শব্দহীন হেসে বলল, আমনে আমার সঙ্গে জউক (জোকস) করলেন ছার।... যাহোক, আমার কথাবার্তায় সন্তুষ্টি জানিয়েই যে মিস্টার কটন সেদিন বিদায় নিয়েছিলেন, এত বছর পর ওইটুকু আমার মনে আছে। ...দ্য নিউ কটন রাশি। চলতি সাত দিন সংখ্যাধিক তুলা প্রধানত আনন্দের মধ্য দিয়ে সময় কাটাবেন। জয় হোক!

বৃশ্চিক ২৪ অক্টোবর-২২ নভেম্বর। ভর # ২

আপনার পোয়া এখন ১২! মানেটা বুঝেও না বোঝার ভান করবেন না ডিয়ার বৃশ্চিক। কিছু না হোক, এ সপ্তাহে আপনার পার্স অ্যান্ড পকেটে বাইরে থেকে এসে ঢুকবে, মানি অর্থাৎ টাকা-বৃষ্টির ছাট। খেয়াল রাখবেন, তলায় ফুটো যেন না থাকে। পকেটের ডায়রিয়া সামলানো যায় না, এমন নয়। তবে তা অনেক কষ্টের পর। কাজেই টাকা কামালেও মাথাটা রাখবেন একদম ডিপ ফ্রিজের ভিতরে। আর, আমার বিকাশ নাম্বারটা চেয়ে নেবেন আমার কাছ থেকে।

ধনু ২৩ নভেম্বর-২১ ডিসেম্বর। ভর # ৯

ধনুর ভিতরে থাকে দুটি বিপরীতমুখী মন। একটা বাইরে ছোটাছুটি করে, অন্যটা ডুব মেরে লুকিয়ে থাকে তার নিজের বুকের গভীরে। চলতি সপ্তাহে সব বয়সী ধনু নারী ও পুরুষের দুটি সিম চালু থাকবে প্রায় একই সঙ্গে। এই যুগপৎ সক্রিয়তা বরং তার চিন্তাকে আরও শক্তিশালী করবে। তবে, আন্দাজ করছি চলতি সপ্তাহে তার শুনতে ইচ্ছে হবে মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়ের সেই অবিস্মরণীয় গানটি, যদি আমাকে দ্যাখো তুমি উদাসী, ফিরে যেয়ো না, তুমি বিরহে ঢেকো না তোমার আঁখি...(ধুর, হুদাই ভাবি যে আমি একখান সাংঘাতিক গীতিকার হইসি! এই রকম একটা গান তো আমি জীবনেও লিখতে পারব না)। মাই ডিয়ার ধনু, আপনি যদি গীতিকার হয়ে থাকেন, তাহলে আজই নতুন কাগজ-কলম নিয়ে বসে যান। জয় হোক!

বিজ্ঞাপন

মকর ২২ ডিসেম্বর-২০ জানুয়ারি। ভর # ৩

এই রাশিভুক্ত দুজনের কথা বলি, দুজনেই নারী; একজন অনীতা করিম, প্রাক্তন মডেল ও ব্যাংকার। যেমন সুন্দর তার চেহারা তেমনই পবিত্র তার মন। মানুষের জন্য নিজেকে নিবেদন করাটাই মনে হয় যেন তার আসল পেশা। উচ্ছল হাসি এবং অন্যের কষ্টে ঝরঝর করে কাঁদা, সব ধরনের সাহায্য করতে সবার আগে ছুটে আসা। সিস্টার টেরিসা? আমাকে তিনি এ পর্যন্ত যত বই আর বাজারের সবচেয়ে দামি দোকানের জামাকাপড় দিয়েছেন, তার অনেকগুলো আজ অবধি আমার পরা হয়ে ওঠেনি। এই পাতায় আমার যে ছবিটি দেখা যায়, তার সম্মানেই ওটা পরেছিলাম। তার উপহারকৃত বইগুলো সব আমি আমার বুকের গভীরে লুকিয়ে রেখেছি।... অন্যজনের নাম রুহে তামান্না, লাবণ্য। মডেলিং, আবৃত্তি, অভিনয়, মিডিয়ায় মেধা ও প্রতিভা ওই পরিমাণ আছে বলেই তার অর্জনগুলোও অনেকেরই দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। মকর দিয়ে, কিংবা অন্য যেকোনো রাশির দেখা-অদেখা মানুষকে নিয়ে আমি সেট তৈরি করে দেখাতে পারব মনে হয়। জয় হোক!

কুম্ভ ২১ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি। ভর # ৯

তরুণ চলচ্চিত্র নির্মাতা চিন্ময় সমদ্দার। তাঁর রাশি যদিওবা কুম্ভ নয়, কর্কট; তবু তিনি উল্লেখের যোগ্য। কিশোর বয়সে তিনি ক্রিকেটে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছিলেন। পত্রিকার শিরোনামে তাঁকে বলা হয়েছিল বিস্ময় সমদ্দার! চলতি সপ্তাহে কুম্ভ এবং কর্কট, উভয়েই কিছু চমক দেখাবেন বলে আমার বিশ্বাস।

মীন ১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ। ভর # ৩

তরুণ মীন সাদমান সাকিব সপরিবার কোভিডাক্রান্ত হয়েছিলেন। এখন তো বিপদমুক্ত। কীভাবে? চরম গরম পানির ভাপ নিয়ে। অন্যান্য নিয়মও পালন করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যানসাম (উচ্চারণ এটাই ঠিক। হ্যান্ডসাম ভুল) এই ছাত্রটি এখন ঘরে বসে থেকে বই, মুভি ছাড়া আর কী কী নিয়ে ব্যস্ত হয়ে উঠবেন, আমি বোধ হয় তার আভাস দিতে পারি। হাতে স্মার্টফোন নিয়ে জনপ্রিয় একজন তরুণ, আপাতত নিঃসঙ্গ, কী করবেন তা বুঝতে গেলে জইতিশি হওয়ার দরকার করে না। সপ্তাহটি সব মীনের জন্যই শুভ হবে।

প্র ছুটির দিনে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন