বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তাঁর দেখানো পথে হাঁটতে শুরু করি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হলের পাশ দিয়ে বড় মাঠ পেরিয়ে এগোতে থাকি। একসময় নিজেকে আবিষ্কার করি জনশূন্য একটি জায়গায়। ঘুঘুর ডাক, ডাহুকছানার ছোটাছুটি, রঙিন ফড়িংয়ের ওড়াউড়ি সেখানে। তবে সবচেয়ে অবাক হলাম সামনে তাকিয়ে। ধবধবে সাদা কাশফুলের বন বলতে যা বোঝায়, এটা সেই বন। নাগরিক কোলাহল নেই, মানুষের সেলফি তোলার তাড়া নেই, নেই কাশফুলে লেপ্টে থাকা ধুলা। কাশবনে গোড়ালি পর্যন্ত পানি, তারপর শুকনা। হালকা বাতাসে দোল খাচ্ছে কাশফুল। শেষ বিকেলের রোদ শুভ্র কাশফুলে পড়ে এক অদ্ভুত আলোর খেলা সেখানে। আর আকাশে তাকালেই রাশি রাশি সাদা মেঘ। কী দারুণ এক পরিবেশ সেখানে! অথচ কিছুক্ষণ আগেই ছিলাম মানুষের কোলাহলে। গাড়ির হর্ন আর মানুষের জটলা থেকে এসে এমন দারুণ একটা পরিবেশ পাব, কল্পনাতেও ছিল না। হাতের ক্যামেরায় বন্দী করি সে দৃশ্য!

default-image

আমার মুগ্ধতা দেখে পাশ থেকে তুষার বলেন, ‘শহুরে কাশফুলে ধুলা পড়ে শুভ্রতা নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু এখানে তা নেই। জায়গাটাও অনেকে চেনে না। তাই ফুলগুলো এত সুন্দর আর সাদা।’

সন্ধ্যা অবধি থাকলাম কাশবনের পাশে। নির্মল বাতাস আর নীরবতা মনকে চাঙা করে তুলল। বুক ভরে শ্বাস নিলাম কিছুটা সময়। এ-ই বা কম কী!

প্র ছুটির দিনে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন