বই হাতে তারিকুল ইসলাম
বই হাতে তারিকুল ইসলামসোয়েল রানা

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে দীর্ঘ ক্যানভাসে একটি পোর্ট্রেট আঁকতে চেয়েছিলেন তারিকুল ইসলাম। স্বপ্ন দেখেছিলেন প্রদর্শনীরও। অর্থের সংস্থান না হওয়ায় সিদ্ধান্ত নেন ক্ষুদ্র শিল্পকর্ম তৈরির। তিন মাসের চেষ্টায় তাঁর সে স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। তিনি এক ইঞ্চি দৈর্ঘ্য ও দেড় ইঞ্চি প্রস্থের একটি বই তৈরি করেছেন। তাঁর বইয়ে বঙ্গবন্ধুর শৈশব, কৈশোর, তারুণ্য ও রাজনৈতিক জীবনের ৫০টি চিত্রকর্ম স্থান পেয়েছে। এগুলোর মধ্যে পেনসিল স্কেচে আঁকা চিত্রকর্ম আছে ১৫টি, এ ছাড়া ৩৫টি আছে জলরঙে আঁকা ছবি। পেনসিল স্কেচ ও জলরঙে আঁকা বঙ্গবন্ধুর পরিবার, জাতীয় চার নেতা, সাত বীরশ্রেষ্ঠ, ভাষা আন্দোলন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ, বঙ্গবন্ধুর কারাবন্দী জীবন, মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয় উল্লাস, বঙ্গবন্ধুর চোখে বাংলাদেশ এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবার নির্মম হত্যাযজ্ঞের শোকচিত্র স্থান পেয়েছে। চিত্রকর্মের সঙ্গে পেনসিলে লেখা আছে ১৯২০ থেকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের শোকগাথার বর্ণনা। এখন পর্যন্ত এই শিল্পকর্মে ৪১০ পৃষ্ঠা সংযোজন করা হয়েছে। তারিকুল ইসলাম বলেন, ‘বইটি ৫০০ পৃষ্ঠা করব। এরপর গিনেস রেকর্ডের জন্য আবেদন করব।’

default-image
বিজ্ঞাপন

তারিকুল বগুড়ার মাটিডালি উচ্চবিদ্যালয়ে চারুকলার খণ্ডকালীন শিক্ষক। পড়াশোনা করছেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজে হিসাববিজ্ঞান বিভাগে স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে। বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছি ইউনিয়নের বেড়ের বাড়ি গ্রামে তাঁর বাড়ি। তারিকুল ইসলাম বলেন, ‘চিত্রকর্মে হাতেখড়ি বড় ভাই তাজমিনুর রহমানের কাছে। গাবতলীর বাগবাড়িতে ‘তাজ আর্ট’ নামে ভাইয়ের একটি দোকান আছে। শৈশবে পড়াশোনার ফাঁকে সেখানেই ছবি আঁকাআঁকি। স্নাতকে পড়ার সময় বগুড়া আর্ট কলেজেও ভর্তি হই।’

মন্তব্য পড়ুন 0