নিজের পোষা কোনো প্রাণী মরে গেলে কষ্টের শেষ নেই। প্রিয় প্রাণীটির আয়ুসীমা পেরোনোর পর আপনার যে ক্ষমতা নেই তা ধরে রাখার! তবে প্রযুক্তি যদি আপনার পুরোনো, বিশ্বস্ত ও প্রিয় প্রাণীটিকে নতুন রূপে ফিরিয়ে দেয়, আপনি নিশ্চয়ই ভাববেন, আর কী চাই! যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা রাজ্যের এক দম্পতিরও আর কিছু চাওয়ার ছিল না। তাঁদের পোষা ল্যাব্রাডর রেট্রিভার জাতের ল্যান্সলট এনকোরের বয়স হয়েছিল। যাই যাই অবস্থা। তেমনই এক দিনে একটি নিলামে সেই দম্পতি তাঁদের প্রিয় ল্যান্সলটের ক্লোন করার সুযোগ বাগিয়ে নেন। ঠিক পাঁচ বছর পর সত্যি সত্যি বায়ো আর্টস নামের ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান কোরিয়ার সোয়াম বায়োটেক রিসার্চ ফাউন্ডেশন নামের আরেকটি প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় ল্যান্সলটের ক্লোন আরেকটি ল্যান্সলট উপহার দেয় সেই দম্পতিকে। ক্লোন করতে খরচ পড়েছিল বাংলাদেশি টাকায় প্রায় এক কোটি ৮৫ হাজার টাকা। এর আগে সেকেন্ড চান্স নামের একটি ষাঁড়ের ক্লোন করতে খরচ পড়েছিল প্রায় সাত লাখ টাকা। আর তাই এখনো পুরোনো সব রেকর্ড পেছনে ফেলে ল্যান্সলটই পৃথিবীর সবচেয়ে দামি কুকুরের মুকুট পরে আছে। —মাহফুজ আহমেদ

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন