বিজ্ঞাপন
default-image

১৯৭২ সালে ২৫ শয্যার যে 'বাম' হাসপাতাল ফরাসিরা প্রতিষ্ঠা করেছিল, সেটি এখন সারিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। সারিয়াকান্দি পাইলট বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাকী মো. জাকিউল আলম বললেন, 'হুবহু ওই হাসপাতালই আছে। শুধু মাঝখানের একটা অংশ কেটে পেছনে যাওয়ার রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। পেছনের দিকে হাসপাতাল সম্প্রসারণ করা হয়েছে।'

ব্রশিওরের প্রচ্ছদে বাঙ্গালী নদীর ৩০ বছর আগের ও পরের ছবি রয়েছে। নতুন ছবিতে নদীর ওপরে সেতু। সারিয়াকান্দি পৌর সদরে ঢুকতেই বাঙ্গালী নদীর সেই সেতু পার হতে হলো। সেতুর ওপরে উঠেই চোখ পড়ল পিয়ের ক্লাকাঁর ৫০ বছর আগের তোলা ছবির দিকে। সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে নদীর খেয়াঘাট। খেয়ানৌকা ঘাটে ভিড়ছে। নদীর ঘাটের মালামাল নিয়ে গরুর গাড়ি, ঘাটের লোকজন। সেই ছবি এখন শুধুই স্মৃতি।

ব্রশিওরের প্রচ্ছদ পাতার একেবারে মাথায় এক কিশোরীর হাস্যোজ্জ্বল ছবি ও ৩০ বছর পরের পরিণত বয়সের একটি ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। এই নারীর নাম আলেয়া বেগম। ২০০২ সালে তাঁর বয়স ছিল ৪০ বছর। প্রদর্শনীর সময় প্রত্যেকের ছবির পাশে ৩০ বছরের ব্যবধানে তাদের জীবনের আনন্দ ও দুঃখের স্মৃতি ছাপা হয়েছিল। আলেয়া বেগম বলেছিলেন, তাঁর ছেলে ও মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। এটাই তাঁর আনন্দের স্মৃতি। আর দুঃখের স্মৃতি ছিল তাঁর বাবাকে হারানো। এরপর বিয়ে হয়েছিল সতিনের ঘরে।

default-image

সেই আলেয়া বেগম বেঁচে আছেন। বাঙ্গালী নদীর ধারে তাঁর বাড়ি। বাড়ির কাছে গিয়ে জানা গেল, তিনি বাড়িতে নেই, মেয়ের বাড়িতে গেছেন। সেখান থেকে আধা কিলোমিটার দূরে তাঁর মেয়ের বাড়ি। মেয়েজামাই একজন ব্যবসায়ী। জামাইবাড়ি গিয়ে পাওয়া গেল আলেয়া বেগমকে। প্রথম দেখায় ছবির কিশোরীর সঙ্গে মেলানো গেল না। সঙ্গে শিক্ষক জাকিউল আলম ছিলেন। তাঁকে দেখেই তিনি হেসে উঠলেন। হাসিতেই ধরা পড়লেন সেই আলেয়া। তাঁর ব্যবসায়ী জামাইয়ের আলিশান বাড়ি। মেয়ে ভালো আছে এটাই তাঁর এখন আনন্দ। তবে ছেলেটা ভালো কোনো কাজে লাগেনি। দ্বিতীয় পক্ষের স্বামী মারা গেছেন।

ক্লাকাঁর কথা তাঁর ভালো মনে আছে। প্রথম ছবিটা দেখে বললেন, তিনি খেলছিলেন, সে সময় ছবিটা তুলেছিলেন।

ব্যবসায়ী চঞ্চল সাহা ও তাঁর ভাই ভক্ত সাহাকে বাড়িতেই পাওয়া গেল। আগে টিনের ঘর ছিল এখন দোতলা পাকা বাড়ি হয়েছে। চঞ্চল সাহার প্রথম ছবিটি ১৫ বছর বয়সের। পূজার অনুষ্ঠানে ছিলেন। ৩০ বছর পরের ছবিটি তাঁর ভাই ও বাবার সঙ্গে তোলা। চঞ্চল সাহার দুই ছেলে চয়ন সাহা ও অয়ন সাহা প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। ভক্ত সাহার ছেলে লিখন সাহা এখন সারিয়াকান্দি কলেজের সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষক।

১৯৭২ সালে ২০ বছর বয়সী ভক্ত সাহা একটি পূজার নৌকার ওপরে ছিলেন। ক্লাকাঁ সেই ছবি তুলেছিলেন। এখন বার্ধক্যজনিত সমস্যা ছাড়া ভক্ত সাহার কোনো সমস্যা নেই। ভক্ত সাহা বললেন, এলাকাটি আমূল পাল্টে গেছে। তবে তখনকার মতো চিকিৎসা ব্যবস্থা এখনো হয়নি। সেই সময় (ক্লাকা যখন ছিলেন) এই অজপাড়াগাঁয়ে অত্যাধুনিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। জটিল রোগীদের হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হতো। দিনাজপুর থেকে রোগী সারিয়াকান্দিতে আসত।

ভক্ত সাহা বললেন, 'ক্লাকাঁ খুব সহজ মানুষ ছিলেন। আমাদের বাড়ির আঙিনায় একটি জাম্বুরাগাছ ছিল। বিকেলে সেই গাছের নিচে আমার মায়ের কাছে এসে বসে গল্প করতেন। খুবই ভালো মানুষ ছিলেন। তাঁকে সারিয়াকান্দির মানুষও খুব ভালোবাসত। কোনো দোকানে কিছু কিনতে গেলে তাঁর কাছ থেকে দাম কম নিত সবাই।'

default-image

পাতারু মাঝি বাঙ্গালী নদীতে নৌকা বাইতেন। ১৯৭২ সালে তাঁর নৌকার ওপরে কিশোর পাতারুর ছবি আছে। ২০০২ সালে তাঁর বয়স ছিল ৪৫ বছর। এখন বাঙ্গালী নদীর সেতুর মুখেই তাঁর বাড়ি।

পাতারুর মন ভালো নেই। সেতু হওয়ার পরে খেয়ার কাজ নেই। এখন জেলেদের সঙ্গে নদীতে জাল দড়ি টানেন। বড় দুই ছেলে মানসিক রোগাক্রান্ত। ছোট ছেলেটা বাবার মতোই অন্যের জাল–দড়ি টানে। তবে সবচেয়ে বড় দুঃখ হচ্ছে, তাঁর বাড়ির জায়গাটা সরকার অধিগ্রহণ করেছে। বিনিময়ে পেয়েছেন সামান্য কিছু টাকা। এখন যেকোনো দিন এই জায়গা ছাড়তে হবে। ক্লাকাঁ নেই শুনে পাতারুর স্ত্রী যমুনা রানী চোখ মুছলেন। দুঃখ করে বললেন, তখন ক্যালাকুইন তাঁর দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য কত সেধেছিলেন। বগুড়ায় নিয়ে গিয়ে মুরগির মাংস দিয়ে ভাত খাওয়ালেন। দই খাওয়ালেন কিন্তু দেশ ছেড়ে যেতে মন সায় দেয়নি। তাঁরা যাননি। এখন তো আর যাওয়ার কোনো জায়গাই নেই।

ব্রশিওরে ২০০২ সালের প্রদর্শনী সম্পর্কে ক্লাকাঁ লিখেছিলেন, এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে সারা দেশে নিজেকে জানার সচেতনতা তৈরিতে সারিয়াকান্দি পথিকৃৎ হয়ে থাকবে।

প্র ছুটির দিনে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন