বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বপ্নপূরণ

০০২ সালে চট্টগ্রাম নগরের বহদ্দারহাটে একটি ব্যায়ামাগার চালু করেন মানস দেব। নিজের নামেই নাম রাখেন ‘মানস জিম’। নিজে ব্যায়াম করার পাশাপাশি অন্য ছেলেমেয়েদেরও ব্যায়াম করানো শুরু করেন। ওই বছরই মিস্টার বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় সপ্তম হন মানস। ২০০৭ সালে একই প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেন। ২০০৯ ও ২০১১ সালেও হন দ্বিতীয়।

মানস বলেন, ‘টানা রানারআপ হওয়ার পর আমি কোচিংয়ে সময় দিই বেশি। ব্যায়ামবিদ তৈরিতে মনোযোগী হই।’ ২০১৩ সালে মিস্টার মাসল ম্যানিয়া প্রতিযোগিতায় কোচ হিসেবে তাঁর যাত্রা শুরু হয়। পরে মিস্টার বাংলাদেশসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় দলগতভাবে অংশ নিতে শুরু করে মানস জিম।

২০১৪ সালে ‘মিস্টার ঢাকা’ উন্মুক্ত শরীরগঠন চ্যাম্পিয়নশিপে সামগ্রিকভাবে চ্যাম্পিয়ন হয় মানস জিম। এ বছরও একই প্রতিযোগিতায় গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় মানস জিম। বিভিন্ন শ্রেণিতে ২৭ জন অংশ নিয়ে পুরস্কার পান ১৭ জন। চারজন হন একক ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন।

default-image

মিস্টার বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় ২০১৫ সালে প্রথম রানার্সআপ হয় চট্টগ্রামের এই জিম। এরপর ২০১৬ সাল ছাড়া প্রতিবারই রানার্সআপ হয়ে আসছে মানসের জিম। সর্বশেষ জাতীয় শরীরগঠন প্রতিযোগিতায় মাস্টার্স বিভাগে মানস জিমের এহসানুল তৃতীয় হন, ৮০ কেজি ওজন শ্রেণিতে চতুর্থ স্থান অর্জন করেন মেজবাহ।

ব্যায়ামবিদ তৈরির কারখানা

মানস দেবের মিস্টার বাংলাদেশ হতে না পারার আক্ষেপ ঘুচিয়েছেন তাঁর এক শিষ্য। ২০১৫ সালে মিস্টার বাংলাদেশ হয়েছেন তাঁর জিমের সাইফুল ইসলাম। এ ছাড়া ব্যায়ামে আন্তর্জাতিক সাফল্য পাওয়া মাকসুদা আক্তারও একসময় মানস জিমে অনুশীলন করেছেন।

চট্টগ্রামে শ খানেক জিম গড়ে উঠেছে এখন। এসব ব্যায়ামাগারের মালিকদের সংগঠন চট্টগ্রাম জিম ওনার্স সমিতির সম্পাদকও মানস দেব। এ ছাড়া বাংলাদেশ বডি বিল্ডিং ফেডারেশনের তিনি যুগ্ম সম্পাদক। ২০১৯ সালে তাঁর কাছে আসে জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন। দেশের সেরা বডিবিল্ডিং কোচ হিসেবে মানসকে দেওয়া হয় গোল্ড মেডেল।

চট্টগ্রাম শহরে মানস জিমের বর্তমানে চারটি শাখা। বহদ্দারহাট, রাহাত্তারপুল, ওয়াসা ও গোলপাহাড়। পটিয়া ও চন্দনাইশে আরও দুটি জিম রয়েছে। মানস বলেন, ‘পটিয়া ও চন্দনাইশের জিম দুটি থেকে কোনো আয় আসে না। এলাকার ছেলেদের মাদক থেকে দূরে রাখতেই এগুলো চালাচ্ছি। ব্যায়াম মাদক থেকে মানুষকে দূরে রাখতে সাহায্য করে।’ মানস বলেন, ‘ইতিমধ্যে ৫০০ ব্যায়ামবিদ তৈরি করেছি। আরও অন্তত ১৫০ জন কঠোর অনুশীলন করে চলেছেন। শরীরগঠনের পাশাপাশি জাতীয় পর্যায়ে স্বীকৃতি চান যাঁরা, তাঁদের তৈরি করছি।’ আছে মেয়েদের অনুশীলনের সুযোগ।

মানসের বর্তমান লক্ষ্য জাতীয় পর্যায়ের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সাফল্য অর্জন। সে লক্ষ্যেই ব্যায়ামবিদ তৈরি করে চলেছেন।

প্র ছুটির দিনে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন