নতুন প্রেম, নতুন চাকরি, জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শেষ ক্লাস, গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানিক বা আনুষ্ঠানিক চুক্তি—নানা কারণেই পার্টি দেওয়ার ব্যাপার থাকে। পার্টি মানেই তো প্রিয় সব মানুষের সম্মিলন এবং আনন্দ, ইচ্ছেমতো খানাপিনা ও গানবাজনা। এসব পার্টি যেন কাজের চাপে দুমড়েমুচড়ে থাকা জীবনে রীতিমতো জ্বালানির রসদ হয়ে আসে।

নানাবিধ উপলক্ষে পার্টি দেওয়ার প্রথা বেশ পুরোনো। কিন্তু ১৯৯৫ সালে প্রকাশিত ফ্লাইট: আ কোয়ান্টাম ফিকশন নভেল বইতে সম্পূর্ণ নতুন একধরনের পার্টির কথা উল্লেখ করা হয়। মার্কিন লেখিকা ভান্না বোন্টা তাঁর এই উপন্যাস শেষ করেন একটি পার্টি আয়োজনের দিনগণনার মধ্য দিয়ে। ২০০০ সালের ৩ এপ্রিল আয়োজিত হবে সেই পার্টি; যে পার্টি যুদ্ধের বিপরীতে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সমগ্র বিশ্বের মানুষ একযোগে উদ্‌যাপন করবে।

বিজ্ঞাপন

শান্তিপূর্ণ পৃথিবীর জন্য বিশ্বজুড়ে একক পার্টি; ধারণাটি পাঠকমহলে দারুণ সাড়া ফেলে। ফলে উপন্যাস থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বই প্রকাশের পরের বছরই অর্থাৎ ১৯৯৬ সালের ৩ এপ্রিল বেশ কিছু সংগঠন ও ব্যক্তির উদ্যোগে দিবসটি উদ্‌যাপিত হয়।

আজ ৩ এপ্রিল, বিশ্ব পার্টি দিবস। সংহতি ও শান্তিপূর্ণ, পারস্পরিক সহযোগিতাপরায়ণ, মানবিক ও ইতিবাচক ভবিষ্যতের প্রত্যাশায় করোনা মহামারির এই সময়ে সমাবেশ না ঘটিয়ে ভার্চ্যুয়াল পার্টির আয়োজন হতেই পারে।

ডেজ অব দ্য ইয়ার অবলম্বনে

প্র ছুটির দিনে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন