বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বাংলাদেশি এই পরিব্রাজক শততম দেশ ভ্রমণ করেছিলেন ২০১৮ সালের জুনে। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে তা বেড়ে হয়েছিল ১৩৫। ২০২০ সালের শুরুতে করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকল। দেশে দেশে জারি হলো ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। অনেকের মতো পরিব্রাজক নাজমুন নাহারও হয়েছিলেন ঘরবন্দী। যখন সংক্রমণ কমতে থাকল, তখনই বেড়িয়ে পড়লেন লক্ষ্য অর্জনে। আমেরিকা, ইউরোপ, আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ ঘুরে গত বছরের ডিসেম্বরে এসেছিলেন দক্ষিণ এশিয়ার মালদ্বীপে। এটি ছিল তাঁর ১৪৪তম দেশ ভ্রমণ।

নাজমুন নাহার বলেন, ‘২১ বছর ধরে আমি স্বাধীন বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা পৃথিবীর এক দেশ থেকে আরেক দেশে নিয়ে যাচ্ছি। দেশের ইতিহাস, কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকেও বিশ্বের দরবারে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। তা অব্যাহত থাকবে।’

default-image

২০১৮ সালের ২০ জানুয়ারি ‘দেখছি আমি জগৎটাকে’ শিরোনামে নাজমুন নাহারের ভ্রমণজীবনের গল্প প্রচ্ছদ করেছিল প্রথম আলোর শনিবারের ক্রোড়পত্র ছুটির দিনে। তখন পর্যন্ত তিনি ৯৩টি দেশ ঘুরেছিলেন। ছুটির দিনের প্রতিবেদনের মাধ্যমেই সবার কাছে পরিচিতি পান পরিব্রাজক নাজমুন। প্রথম আলোকে সে সময় তিনি ২০১৮ সালের মধ্যে শততম দেশ ভ্রমণের লক্ষ্যের কথা বলেছিলেন। তিনি সে লক্ষ্য পূরণ করেছিলেন সে বছরই, শততম দেশ হিসেবে জিম্বাবুয়ে ভ্রমণের মাধ্যমে।

১৫০তম দেশ তো ভ্রমণ করা হলো, এরপর? ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে নাজমুন নাহার প্রথম আলোকে বলেন, ‘জাতিসংঘের অন্তর্ভুক্ত বিশ্বের অন্য দেশগুলো ভ্রমণের চেষ্টা করব এখন। বিশ্বশান্তির বার্তা পৌঁছানোর প্রচারণায় আরও বেশি সক্রিয় হব। এরই মধ্যে বিশ্বভ্রমণের ওপর বইও লিখতে শুরু করেছি। বইয়ের মাধ্যমে আমার অভিজ্ঞতা অন্যদের জানাতে চাই।’

প্র ছুটির দিনে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন